মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের মানববন্ধনের বিষয়টি নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে

তাইজুর ইসলাম সবুজ : গত শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ অপচয়কারী, ব্যাটারিচালিত রিক্সা চলাচল বন্ধ ঘোষণা এবং মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ব্যবহার করে প্লেট তৈরী ও সরবরাহকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আয়োজিত মানববন্ধন নিয়ে ধু¤্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশ রিক্সা, ভ্যান মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে যে সকল অভিযোগ উত্থাপন করা হয় তার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিষয়টি জানার জন্য মগবাজার, মধুবাগে ঢাকা মহানগরীর রিক্সা ও ভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি দুলাল মিয়া ও ঢাকা সিটি মুক্তিযোদ্ধা রিক্সা ভ্যান মালিক কল্যাণ সোসাইটির সভাপতি আব্দুস সোবহান এদেরকে বিষয়টি অবহিত করলে তারা বলেন বাংলাদেশ রিক্সা ভ্যান মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ যে অভিযোগ করেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট।

কারণ আমরাও অবৈধ ব্যাটারিচালিত রিক্সা চলাচল বন্ধের পক্ষে। তারাই প্রথম অবৈধ ব্যাটারিচালিত রিক্সা মালিকদের নিকট ১০/- করে ফরম বিক্রি করেছিলেন সদস্য হওয়ার জন্য। এখন আবার তারাই ব্যাটারিচালিত রিক্সার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন এবং তারা প্লেট ও টোকেনের যে বিষয়টি উল্লেখ করেছেন প্রকৃত সত্য হলো তারা তাদের সংগঠনের নামে প্লেট টোকেন বিক্রি করেন তিন মাসের জন্য ৬০/- টাকা এবং ঢাকা সিটি মুক্তিযোদ্ধা রিক্সা ভ্যান মালিক কল্যাণ সোসাইটি প্লেট টোকেন দেন তিন মাসের জন্য ৩০/- টাকায়।

রিক্সা ভ্যান মালিক গণ মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনের নিকট থেকে কম টাকায় প্লেট টোকেন নেন বিধায় বাংলাদেশ রিক্সা ভ্যান মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করেন। দুলাল মহাজন মুক্তিযোদ্ধাদের নিকট থেকে প্লেট টোকেন নেন বিধায় তার বিরুদ্ধে ও একই অভিযোগ আনেন। উল্লেখ্য যে, ২০১০ সালে বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় ঢাকা মহানগর রিক্সা চোর প্রতিরোধ কমিটির বিরুদ্ধে প্রতারণার সংবাদ প্রকাশ হয়েছিল। বর্তমানে মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের সাথে তৎকালীন ঢাকা মহানগরের রিক্সা চোর প্রতিরোধ কমিটির অনেক নেতৃবৃন্দ জড়িত রয়েছেন।