ছি: সু চি ছি: রোহিঙ্গা বাড়ীঘর জলছে,তারা বিতারিত

অজয় দাশগুপ্তঃ  নোবেলজয়ী মানুষগুলোর নোবেলত্ব বা তাদের চারিত্রিক স্বচ্ছতা এখন প্রশ্নবিদ্ধ। চারিত্রিক বলতে তাদের ব্যক্তিগত চরিত্রের কথা বলা হচ্ছেনা। যাঁরা শান্তিতে নোবেল পেয়েছেন তাঁরা যখন অশান্তির সময় চুপ থাকেন বা মদদ দেন তখন অনায়াসেই ধরে নেয়া যায় আজকাল বিকিকিনির বাজারে নোবেল ও পণ্য। সু চি আমাদের দেশে পাঠিয়ে দেয়া রোহিঙ্গাদের নিয়ে জাতিসংঘে যে ভাষণ দিয়েছেন এ এফ পি তার পাঁচটি বুলেট পযেন্ট দিয়েছে দেখলাম। তিনি তাঁর ভাষনে এদের রোহিঙ্গা না বলে রাখাইনের সংঘাতে জড়িবে যাওয়া মানুষ বলে সম্বোধন করেছেন। তিনি এও বলেছেন কি হচ্ছে না হচ্ছে বা কেন হচ্ছে তা তলিয়ে দেখা হবে।

আমরা আম জনতা। আমরা দেখছি তলিয়ে দেখার আগে আপনি আমাদের দেশটাকে তলিয়ে দিতে চাচ্ছেন। আপনাদের দেশে কি হবে না হবে কোন সমস্যা কিভাবে সমাধান করবেন সেটা আপনাদের দায়। আমাদের দেশ থেকে হিন্দু বা সংখ্যালঘুরা এভাবে দেশ ছেড়ে পালালে ভারত বা আপনারা কি করতেন? কি হতো আপনাদের এ্যকশান? আমরা যেটুকু বুঝি তাতে এটা পরিস্কার এই মানুষগুলোকে আমরা না ইন্ধন দিয়েছি না দিয়েছি কোন সহায়তা তারপর ও আপনারা তাদের বাধ্য করেছেন বাংলাদেশে চলে আসতে। আপনারা যদি তাদের সন্ত্রাসী মনে করেন বা তাদের বিরুদ্ধে আপনাদের কোন অভিযোগ থাকে সেগুলোর সমাধান বা দায় তো আমাদের না। তাছাড়া এতবছর ধরে আপনাদের দেশে বসবাসরত এই মানুষগুলো রাতারাতি রোহিঙ্গা হয়ে গেলো দেশদ্রোহী হয়ে গেলো আর তার দায় নেবো আমরা?

আপনি খুব ভালো করে জানেন বাংলাদেশ এসব বিষয়ে মদদ দেয়না। উল্টো আপনাদের এই রোহিঙ্গারা আপাতত মানবিক আর ধর্মীয় কারনে সআনুভূতি পেলেও আসলে ওরা আমাদের লোক না। আপনি এই লেখা কোনদিন ও পড়বেননা। জানবেন ও না আপনার এই রোহিঙ্গারা ইতোমধ্যে নানা অপরাধে জড়িবে পরড়ে। শুনলাম সংখ্যালঘু নামের কিছু মানুষকে তারা অপহরণ ও করেছে । এসব আলামত আমাদের জন্য লাল সংকেত। আপনারা আপনাদের দেশে যাদের সন্ত্রাসী বা জঙ্গি মনে করবেন তাদের পাশের দেশে পালাতে বাধ্য করবেন এই কি নোবেলের মহিমা?

তাছাড়া একেবারে শেষে আপনি বললেন আসুন দেখে যান। কারা আসবে? কারা দেখবে? যারা মধ্যপ্রাচ্যে এসব করছে তারা? যাদের কারনে পুরো বিশ্ব আজ এক ভয়াবহ নিরাপত্তা সংকটে তারা? যাদের কারনে আজ মানুষ নিজেই একেকটি বোমা একেকজন খুনী সেই দেশগুলো আপনার দিকে ঝুঁকে আছেল এ কি ধরণের খেলা? আপনি এও বলেছেন সবাই যেন বুঝতে চায় মিয়ানমার ছিল সামারি শাসনের আন্ডারে। জী আমরা তা জানি। সে আমলে আপনাদের বৌদ্ধ শ্রমণ ও সন্যাসীদের ও নির্যাতিত হতে দেখেছি আমরা। কিনতু সে ম্যাকানিজম বিকল করবে কারা? কারা নেবে গনতন্ত্র বা সুশাসন প্রতিষ্ঠার দায়ভার? বিশ্ব ও বাংলাদেশ না আপনারা?

সবশেষে আপনি বলেছেন যাচাই বাছাই করে ফেরত নেবেন। বাহ। হাততালি দিতে ইচ্ছে করছে জনবাবা সু চি। আপনি কি এদের যাচাই বাছাই করে পাঠিয়েছিলেন? না আমরা যাচাই বাচাই করে এনেছিলাম? কথা শুনে মেন হচ্ছে এরা মানুষ না গরু ছাগল। আপনি তাদের আত পা অন্ডকোষ বা শরীর টিপে টেষ্ট করে তারপর ভালোগুলো ফেরত নেবেন বাকীদের বোঝা ব ইবে বাংলাদেশ। এতবড় পাপ ধর্মেও স ইবেনা।

এখন খুব ভালো বুঝি নোবেল শান্তি পুরষ্কার না পাওয়া মহাত্মা গান্ধীর জন্য কত বড় পুরষ্কার ছিল। ছি: সু চি আপনি নোবেলজয়ি বটে এখনো মানুষ হলেননা।

লেখক: সিডনি প্রবাসী, কলামিস্ট ও বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষক