হবিগঞ্জবাসীর বনভোজনে উপচে পড়া মানুষের ঢল

হাকিকুল ইসলাম খোকন: গত রবিবার প্রবাসী হবিগঞ্জবাসীর উপচে পড়া উপস্থিতিতে নিউইয়র্কের প্ল্যাসিং মেডো করনা পার্ক হয়ে উঠে উৎসব মুখর। যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ সদর সমিতির নিখুঁত আয়োজনে অতিথিতিসহ বিভিন্ন স্টেট থেকে আগত হবিগঞ্জবাসিকে বরণ করার বিষয়টি ছিল আন্তরিকতায় পরিপূর্ন এবং দর্শণীয়। প্রিয়মুখগুলোকে কাছে পাওয়ার অনুভূতি ছিল অন্যরকম যা সত্যিকার অর্থেই অবর্ণনীয়।

এ বনভোজনে প্রধান অতিথি স্বদেশ থেকে আসা নবীগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান, এড.আলমগীর চৌধুরী, গেষ্ট অব অনার ছিলেন এটনী মঈন চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন হবিগঞ্জ চেম্বারের সভাপতি মোতাচ্ছিরউল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাকির হোসেন চৌধুরী অসীম, জেলা বারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি এড. সালেহ আহমেদ, সাংবাদিক মুজাহিদ আনসারী ,হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি সহ সাধারন সম্পাদক আমিনুর রশিদ এমরান, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক ইমদাদ চৌধুরী, কাজী কামরুল, এড. নাছির উদ্দিন, দেওয়ান বজলুর রহমান চৌধুরী প্রমূখ।

সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজদু মিয়া তালুকদারের সভাপত্বিতে এবং সাধারণ সম্পাদক শিমুল হাসানের পরিচালনায় বনভোজন ও মিলন মেলাটি পরিচালিত হয় যা সবার মনে সাড়া জাগায়, আসে প্রানের জোয়ার। প্রধান অতিথি এড.আলমগীর চৌধুরী তার বক্তবে বলেন “প্রবাসে হবিগঞ্জ সদর সমিতির এত বড় বনভোজনে অংশ নিতে পেরে তিনি অতন্ত খুশি এবং পাশাপাশি সদর সমিতি সম্মাননা পেয়ে তিনি তাদের নিকট ঋণীও”।

বনভোজনে আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ওয়াছি চৌধুরী, শেখ আতিকুর রহমান, শাহিন আহমেদ, শাহিন আজমল, নজরুল ইসলাম, শফিক আলম, মো: জামান, দুরুদ মিয়া রনেল, সফি উদ্দিন তালুকদার, আবু সাঈদ চৌধুরী কুটি, মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ, এড. খোকন গাজী রাশেদুল আলম শিবলী, নাজীম উদ্দীন, মোস্তফা কামাল সংগ্রাম, জহুর আলী চৌধুরী, মাহমুদ হাসান, আবুল কালাম, সামছুল ইসলাম, সৈয়দ এম রসিদ, আকবর হোসেন স্বপন, সৈয়দ এবাদ, শাহ শাম্মু, উজ্জ্বল ইসলাম, সাগর, আসকির মিয়া প্রমুখ। উপস্থিত সবার নাম উল্লেখ না করতে পারার বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ করা হয়েছে। উপস্থিত অতিথীবৃন্দ তৃপ্তিসহকারে দুপরের ভোজ সেরে দল বেধে বিভিন্ন স্থানে পরিদর্শন করেন।

বনভোজনের শেষ পর্বে সদর সমিতির প্রধান নির্বাচন কমিশনার মুজাহিদ আনসারী – ২০১৭- ২০১৯ সনের জন্য সভাপতি, আজদু মিয়া তালুকদার এবং সাধারন সম্পাদক শুকান্ত-এর নাম ঘোষনা করেন। বনভোজনে খেলাধুলার বিজয়ীদের মধ্য সকল অতিথিতিদের পুরস্কার তুলে দেন রোকন হাকীম। পরবর্তীতে আর্কষনীয় রেফেল-ড্র ঘোষনা করা হয় –
প্রথম পুরস্কার গাড়ী, টিকেট নম্বর-৩২২, ২য় পুরস্কার-বিমান টিকেট, টিকেট নম্বর- ৩৯১,

৩য় পুরস্কার টিভি, টিকেট নম্বর-৪৫১, ৪থ পুরস্কার ল্যাপটপ, টিকেট নম্বর- ৬৬৬
৫ম পুরস্কার ট্যাবলেট টিকেট নম্বর -৪৯০ এবং আরো সব ঘোষনা …

পরিশেষে সভাপতি আজদু মিয়া তালূকদার সকলকে এই বনভোজনে অংশগ্রহন করার জন্য জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বনভোজনের সমাপ্তি ঘোষনা করেন ।