• রমজানে ৬ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ
25 May 2017 8:11 pm
Logo

প্রচ্ছদ »  সন্দ্বীপে নৌ-দুর্ঘটনা আর কত

ঢাকানিউজ24 ডেস্ক | আপডেট: 4:55 May 13, 2017

সন্দ্বীপে নৌ-দুর্ঘটনা আর কত

সন্দ্বীপে নৌ-দুর্ঘটনা আর কত

নিউজ ডেস্ক: কবি দাউদ হায়দারের কবিতার একটি লাইন একটু অন্যভাবে বলা যায়—সন্দ্বীপে জন্মই আমাদের আজন্ম পাপ। না হলে দেশের কত কত সমস্যার সমাধান হয়। কিন্তু সন্দ্বীপের একটি সমস্যা অর্থাত্ যাতায়াত সমস্যার সমাধান আজো কেন হলো না? মনে হয় মূল ভূখণ্ড থেকে সন্দ্বীপ বিচ্ছিন্ন একটা দ্বীপ মাত্র। যার জন্যে সন্দ্বীপে যাতায়াতে ভয়-সংকুলতার কারো কোনো মাথাব্যথা নেই! এ পর্যন্ত কত লোক স্টিমার, ট্রলার বা নৌকা ডুবি হয়ে অকালে প্রাণ হারিয়েছে তার হিসাব কে রাখে?

গত ২ এপ্রিল ২০১৭-তে চট্টগ্রাম-সন্দ্বীপ নৌ-রুটে দুর্ঘটনায় ১৮ জন শিক্ষকের প্রাণহানি ঘটেছে। তার জন্য অদ্যাবধি কোনো দুঃখ বা শোক প্রকাশ করেনি কেউ। সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হলো, এই দুর্ঘটনার দায়ও কেউ স্বীকার করতে রাজি নয়। কারণ সন্দ্বীপের লোকেরা মানুষ নয়।

যাদের জন্ম মৃত্যু একান্তভাবে প্রকৃতির ওপর নির্ভরশীল। আমরা জন্মের পর থেকেই জেনে আসছি—সন্দ্বীপের জাহাজডুবি, নৌকা-ট্রলার ডুবিতে মানুষ প্রাণ হারাবেই। এই সমস্যার সমাধান চেয়ে কত স্মারকলিপি, মিটিং, মিছিল, মানববন্ধন করে যাচ্ছেন সন্দ্বীপবাসী। হিমালয়ের বরফও হয়তো একদিন গলতে পারে। কিন্তু সন্দ্বীপের যাতায়াতব্যবস্থার সমাধান অচিন্তনীয়।

সন্দ্বীপবাসীর দেশপ্রেম অপরিসীম। ৭১-এর ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা যে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রের মাধ্যমে ইথারে ইথারে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, তার অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন শব্দসৈনিক বেলাল মোহাম্মদ। তিনি সন্দ্বীপের কৃতী সন্তান।

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম পরিচালক শব্দসৈনিক শামসুল হুদা চৌধুরী, এই বেতার কেন্দ্রের পুঁথি পাঠকারী মোহাম্মদ শাহ বাঙালিসহ আরো অনেকেই সন্দ্বীপের মুক্তিকামী সন্তান। মুক্তিযোদ্ধাও কম নয়। যাঁরা ছিলেন সম্মুখ যোদ্ধা ও গেরিলা যোদ্ধা। গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা শহীদ কিশোর জসীমউদ্দীন মাত্র ১৯ বছর বয়সে জীবন উত্সর্গ করেছিলেন দেশমাতৃকার জন্য।

স্বাধীনতার পর থেকে দেশের বৈদেশিক মুদ্রা বা রেমিটেন্স প্রদানকারী সবচেয়ে বেশি বিদেশে অবস্থানকারী সন্দ্বীপের মানুষ। বিদেশের মাটিতে অমানুষিক কায়িক শ্রমের মাধ্যমে দেশোন্নয়নে এভাবে বিশেষ ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন সন্দ্বীপবাসী। তাঁরা বছরের পর বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগ সাইক্লোন, সমুদ্রের জোয়ার আর নদী ভাঙনে সর্বস্ব হারিয়েও নিজেদের প্রচেষ্টায় কঠিন সংগ্রামের মাধ্যমে মাথা উচুঁ করে দাঁড়ান। এভাবেই যুগ যুগ ধরে সন্দ্বীপবাসী বেঁচে আছেন।

বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন অনেক দেশের রোল মডেল। এটা সম্ভব হয়েছে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণতা এবং দেশপ্রেমের কারণে। আমাদের সন্দ্বীপবাসীর একান্ত কামনা—মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সন্দ্বীপের যাতায়াতের সুষ্ঠু ব্যবস্থা করতে এগিয়ে আসবেন।

আর্কাইভ
Jun0 Posts
Jul0 Posts
Aug0 Posts
Sep0 Posts
Oct0 Posts
Nov0 Posts
Dec0 Posts
May0 Posts
Jun0 Posts
Aug0 Posts
Sep0 Posts
Oct0 Posts
Dec0 Posts
Jan0 Posts
Feb0 Posts
Mar0 Posts
May0 Posts
Jun0 Posts
Jul0 Posts
Aug0 Posts
Sep0 Posts
Oct0 Posts
Nov0 Posts
Dec0 Posts
Jan0 Posts
Feb0 Posts
Mar0 Posts
Apr0 Posts
May0 Posts
Jun0 Posts
Jul0 Posts
Aug0 Posts
Sep0 Posts
Oct0 Posts
Nov0 Posts