মিয়ানমারে প্রতি রাতে নামছে চীনের রহস্যঘেরা ফ্লাইট

নিউজ ডেস্ক: প্রতি রাতে চীন থেকে অজানা পণ্য ও কর্মী নিয়ে মায়ানমারে অবতরণ করছে অনিবন্ধিত প্লেন। এব্যপারে চীনা সরকার এবং মিয়ানমার এয়ারওয়েজ দাবি করেছে, বিমানগুলো সামুদ্রিক খাদ্যদ্রব্য বহন করছে।

এক্ষেত্রে ফ্লাইটের চলাচল সম্পর্কে অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই) প্রকাশিত সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে।

মিয়ানমারে সামরিক জান্তার ক্ষমতা গ্রহণের পর প্রতিকূল পরিস্থিতিতে বিমানগুলো কী বহন করছে তার জন্য দুটি সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেছে। এর একটি হচ্ছে তারা চীনা সৈন্য এবং সাইবার বিশেষজ্ঞদের নিয়ে আসছে তথ্য এবং ইন্টারনেটে প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণে সাহায্য বাড়াতে এবং অন্যটি হচ্ছে মিয়ানমার সরকার অস্ত্রের চালান বাড়িয়ে যাচ্ছে।

গবেষকরা উল্লেখ করছেন, প্রতি রাতে গড়ে ৫টি ফ্লাইট, ৩টি বিমান ইয়াঙ্গুন থেকে দক্ষিণ চীনের কুমিং ভ্রমণ করছে। ২টি বিমান মিয়ানমার এয়ার লাইনের রঙে আঁকা থাকলেও, অন্যটি অচিহ্নিত। এর সবগুলো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ইজারা নেওয়া হয় বলে উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, তাদের ট্রান্সপন্ডার বন্ধ করার মত কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ফ্লাইট লুকানোর চেষ্টা করা হলেও ইঞ্জিন থেকে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পাঠানো তথ্য এবং ইয়াঙ্গুনের বিমানবন্দরের কর্মীরা এবং সামরিক অভ্যুত্থানের বিরোধিতাকারী মিয়ানমারের নাগরিক অবাধ্যতা আন্দোলনের সদস্যরা টুইটারে ছবিগুলোর পোস্ট থেকে জানা গেছে।

মিয়ানমারের অত্যাচারে নিপীড়নের শিকার হয়ে ২০১৭ সালে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছিল। এরপর থেকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মুসলিম সংখ্যালঘু বা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ এবং অন্যান্য নৃশংসতাসহ নির্যাতনের অভিযোগ তুলেছে আন্তর্জাতিকভাবে।

যদিও তারা বারবারই বিষয়গুলো অস্বীকার করে আসলেও মিয়ানমারের সামরিক শাসকে মোড়ক গনতান্ত্রিক সু-চির সরকার তাদের নির্যাতন পার্শ্ববর্তী কিছু দেশের সহযোগিতায় রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগসহ অমানবিক নৃশংস- নির্যাতনগুলো ঠান্ডা মাথায় চালিয়েছে।

সর্বশেষ, এবছরের ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী সু-চির সরকারকে উৎখাত করে এবং নবনির্বাচিত সংসদ অধিবেশনের কয়েক ঘণ্টা আগে এক বছরব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে। সূত্র: এএনআই