তিন পেসার খেলাতে চান চম্পাকা

তিন পেসার খেলাতে চান চম্পাকা
তিন পেসার খেলাতে চান চম্পাকা

নিউজ ডেস্ক:  চট্টগ্রামেও তিনজন পেসার খেলাতে চান এইচপির ভারপ্রাপ্ত প্রধান কোচ চম্পাকা রমানায়েকে।  নির্বাচকরা রাজি না হলে ন্যূনতম দু’জন তো খেলাবেনই। আয়ারল্যান্ড এইচপির বিপক্ষে ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে অনুষ্ঠেয় চার দিনের একমাত্র ম্যাচে স্বাগতিক এইচপি একাদশে শেষ পর্যন্ত তিন সিমার রাখা হলে কোচের সাহসী সিদ্ধান্তের জয় হবে।

সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে দুই টেস্টের সিরিজে টাইগারদের হোয়াইটওয়াশ হওয়া বিকল্প ভাবনার খোরাক দিয়েছে বিসিবি কর্মকর্তাদের। বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নতুন কৌশল খোঁজার কথা বলেছেন। চম্পাকার নিজের কৌশল বাস্তবায়ন করতে পারলে বিসিবি সভাপতির ইচ্ছাও পূরণ হবে তাতে।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের  ভেন্যুতেই আয়ারল্যান্ড এইচপির বিপক্ষে বিসিবি এইচপির একমাত্র চার দিনের ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ১ মার্চ পর্যন্ত। যে দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী।

কোচ চম্পাকা ভাবছেন, ‘যেহেতু ছেলেরা তরুণ, শীর্ষ পর্যায়ের ক্রিকেটে খেলার অভিজ্ঞতা নেই, এই সিরিজ দিয়ে ম্যাচ খেলার মেজাজ তৈরি করার দারুণ সুযোগ তাদের। কন্ডিশন ও পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে কীভাবে ভালো খেলতে হয়, সেটা শিখতে পারবে। আমি চাই তিনজন সিমার খেলাতে, যাতে করে স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়েও লড়াই করতে শিখতে পারে তারা। কারণ পেসারদের সুযোগ না দিলে কোনো দিনই শিখবে না।’

বিকল্প কিছু পরখ করে দেখার সুবর্ণ সুযোগ এটি। চম্পাকা যেমন বলছেন, ‘একই কৌশলে খেলার অসুবিধা রয়েছে। স্পিননির্ভর হয়ে থাকলে প্রতিপক্ষও পাল্টা আক্রমণের কৌশল নেবে। কারণ তারা জানে, উপমহাদেশ মানেই স্পিনে খেলা। এশিয়ার বাইরের দলগুলো তাই কৌশলেও পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। এখন তারা উপমহাদেশে আসে পেস ও স্পিনে ভারসাম্য রেখে। আমাদেরও বোলিং ভারসাম্য রাখা প্রয়োজন। তাই জাতীয় দলের কৌশল সেট করতে হলে এইচপিই হলো পরীক্ষার ক্ষেত্র। ম্যানেজমেন্ট রাজি হলে আমি এই সুযোগ কাজে লাগাতে চাই।’

বিসিবির অনুমোদন নিয়ে এইচপির অন্তরালে ‘এ’ দল নিয়ে এসেছে আয়ারল্যান্ড। স্বাধীনভাবে খেলার সুযোগ পেলে এই দলের বিপক্ষেও ভালো করার সুযোগ থাকবে।

ঢাকানিউজ২৪.কম