ভারতে স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু হচ্ছে শীঘ্রই

স্পুটনিক ভি সম্পর্কে বক্তব্য রাখছেন রাশিয়ায় নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত ডিবি ভেঙ্কটেশ ভার্মা

সুমন দত্ত: রাশিয়ার ভ্যাকসিন স্পুটনিক ভি কে সবুজ বাতি ভারতের, রফতানি হবে বিদেশে। দেশেও সরবরাহ করা হবে স্পুটনিক ভি। তৈরি করবে ভারতীয় ড্রাগ মেকার হিটেরো ফার্মাসিটেক্যাল। রশিয়ায় নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত ডিবি ভেঙ্কটেশ ভার্মা সংবাদ সংস্থা রাশিয়ান টুডে কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।

বিশ্বের এখন চলছে করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ। বিশ্বের স্বাস্থ্য স্বাভাবিক করতে ভ্যাকসিনের বিকল্প নেই। ভ্যাকসিন দিতে পারে একটি দেশের হার্ড ইমুইনিটি। সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে আমেরিকা, রাশিয়া, চীন ও ভারতের মতো দেশগুলো।

পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী দেশ হচ্ছে ভারত। বিশ্বের বড় বড় গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো ভারতে ভ্যাকসিন উৎপাদন করে।

এবার রাশিয়ার স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন উৎপাদনে ভারতের একটি কোম্পানি এগিয়ে এসেছে।

আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ভারত সরকার রাশিয়ার তৈরি করা স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেবে।তারপর থেকে শুরু হবে সেখানকার জনগণের ওপর প্রয়োগ। ভেঙ্কটেশ ভার্মা এসব জানান। 

রাষ্ট্রদূত নিজে ব্যক্তিগতভাবে স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন নিয়েছেন। তাতে তার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি। 

রাষ্ট্রদূত বলেন, ভারতে স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশনের কাজ পুরোদমে চলছে। বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রাশিয়ান কর্তৃপক্ষ কথাও বলেছে। বড় আকারে উৎপাদনে যাবে বলে তারা প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে।

স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনে ভারতের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থার সীল মোহর পড়লেই এটি সবার জন্য সহজ লভ্য হয়ে যাবে। তখন ভারত নিজ দেশে ও বিদেশে রপ্তানি করতে পারবে। রাশিয়াতেই রফতানি করবে ভারতে উৎপাদিত স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন।

ভেঙ্কটেশ ভার্মা আরো বলেন, এই মুহূর্তে ভারতে স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনের ফেজ-২ পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। ফেজ-৩ পরীক্ষা চলছে। ফলাফল ভালো। ভ্যাকসিন সম্পর্কে নেতিবাচক কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

মস্কোতে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাসের অনেকেই স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন নিয়েছেন বলে তিনি জানান।

ভারতের হিটেরো ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান স্পুটনিক ভি উৎপাদন করার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। প্রতি বছর ১০০ মিলিয়ন ডোজ (১০ কোটি) বানাবে স্পুটনিক ভি। যা ২০২১ সালের শুরুতেই হবে।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম