স্বজন হত্যার বিচারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চায় সাবেক পুলিশপত্নী

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন মাঝে জান্নাতুল ফেরদৌস লিমা, বায়ে বিজয় আহমেদ, ডানে বিজয়ের মা।

সুমন দত্ত: রক্ষক যখন ভক্ষক হয়ে যায় তখন বিচার করার কেউ থাকে না। সমাজ হয়ে যায় চুপ। এমনই এক পরিস্থিতি শিকার রংপুরের বাসিন্দা জান্নাতুল ফেরদৌস লিমার। স্বামী সন্তান নিয়ে তিনি আতঙ্কের মধ্যে দিনযাপন করছেন। চান সবাইকে নিয়ে শান্তিতে থাকতে।বিচার চান খালাতো ভাইয়ের হত্যাকারীদের। এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাগর রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ভালোবেসে পরিবারের সম্মতি ছাড়া বিয়ে করেছিলেন পুলিশের এস আই আনোয়ার হোসেনকে। পরবর্তীতে এই আনোয়ারই তার জীবন দুর্বিষহ করে ফেলে। তাকে একাধিকবার তালাক দেয় ও ঘরে তোলে। অবশেষে স্বামীর অত্যাচার নির্যাতন সইতে না পেরে আনোয়ারকে ডিভোর্স দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। সেখানেও চলে আনোয়ারের হুমকি ধমকি। লোকজন দিয়ে ভয়ভীতি দেখানো। প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়ে কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না। কারণ তার অভিযুক্তরা পুলিশ প্রশাসনেরই লোক। এ কারণে স্বামী সন্তান নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন জান্নাতুল ফেরদৌস লিমা।

জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান।

লিমা আরো বলেন, পুলিশের নিয়োগ বাণিজ্য, পদন্নোতি ও বদলি কাজ করিয়ে বহু টাকার মালিক হোন এস আই আনোয়ার। তার বিরুদ্ধে দুদকে মামলা চলমান। পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে তার ঘনিষ্ঠতা থাকায় তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দাড় করানো যাচ্ছে না। তাদের সহায়তায় এস আই আনোয়ার তাকে মেরে ফেলার ও গুম করে দেবার হুমকি দিচ্ছে। স্ত্রী থাকার সময় তার অবৈধ কাজের প্রতিবাদ করলে চলত অত্যাচার নির্যাতন।

এস আই আনোয়ারের বিরুদ্ধে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। তারপরও কোনো কাজ হচ্ছে না। এ কারণে সংবাদ সম্মেলন ডেকে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাচ্ছেন এবং তার হস্তাক্ষেপ কামনা করছেন বলে উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান।

এদিন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন এস আই আনোয়ারের হাতে নিহত লিমার খালাতো ভাইয়ের ছোট ভাই বিজয় আহমেদ।

বিজয় আহমেদ বলেন, আমাকে মোবাইলে এস আই আনোয়ারের লোকজনরা হুমকি দেয়। আমি ছাত্র। আমাকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে দেয় না। সর্বক্ষণ তারা আমার পিছনে লোক লাগিয়ে রাখে। আর বলতে থাকে তোর বড় ভাইকে যেভাবে মেরে ফেলেছি, ঠিক একইভাবে তোকে মেরে ফেলব। এভাবে হুমকির মধ্যে তার লেখা পড়া চালিয়ে যেতে হচ্ছে। স্বাভাবিক জীবনে সে ফিরতে পারছে না। প্রভাবশালী হওয়ার কারণে সমাজের কোনো লোক বা প্রতিষ্ঠান তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসছে না।

এস আই আনোয়ারকে পুলিশের কারা সহায়তা করছে? কারা তাকে পেছন থেকে রক্ষা করছে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে জান্নাতুল ফেরদৌস লিমা জানায় দিদার নামে এক ডিআইজি, নাহিদ নামে এক এসপি ও এম এ জলিল নামে এক এসপি তাকে রক্ষা করছে। যে কারণে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। অগত্যা প্রধানমন্ত্রীর শরণাপন্ন হয়েছেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে আরো কয়েকজন নাম বলেন লিমা। যারা এস আই আনোয়ারের হয়ে বিভিন্ন সময় তাকে গুম করে ফেলার হুমকি দিয়ে আসছে ও রাস্তাঘাটে বিভিন্ন সময় হয়রানী করেছে। তারা হচ্ছেন, এস আই আহাদ, আবু সাওমা, আবু আজম, বখাটে তুহিন, বখাটে শাহিন ও রাণী।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম