ভাস্কর্য নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির অবসান শিগগিরই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:    স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, ‌‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নিয়ে যারা নোংরামি করছে, তারা ভুল করছে। ভাস্কর্য নিয়ে এই ভুল বোঝাবুঝির অবসান শিগগিরই হবে। আর এগুলো রক্ষা করার দায়িত্ব সবারই, দেশের জনগণ ও সরকারের।’

মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমণ্ডিতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আপনারা সেটা দেখেছেন, কারা এটা (ভাঙচুর) করেছে। আমরা সবগুলোকে অ্যারেস্ট করেছি। শুধু বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নয়, কুষ্টিয়াতে আরেকটি ভাস্কর্য, বাঘা যতীনের ভাস্কর্যও ভাঙা হয়েছে। তাদেরও আমরা চিহ্নিত করেছি এবং তাদের নামে মামলা হয়েছে।’

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, যাতে জন্ম-জন্মান্তরে এবং প্রজন্মের পর প্রজন্ম চিনতে ও জানতে পারেন এই বাঘা যতীন কে ছিলেন। কিংবা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু তিনি যে শুধু বাংলাদেশের নেতা নন, সারা বিশ্বের নেতা ও সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি- তাকে যেন হৃদয়ে ধারণ করতে পারি। সেই কারণে ভাস্কর্য আমরা তৈরি বা স্থাপন করি।

তিনি বলেন, ‘ভাস্কর্যগুলো হচ্ছে ইতিহাসে সংস্কৃতির একটা অংশ বা পার্ট। বাংলাদেশে যে শুধু বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য আছে, তা নয়। আরও অনেক ভাস্কর্য রয়েছে। সারা পৃথিবীতে মুসলিম চিন্তাবিদ বা নেতাদের ভাস্কর্যও অনেক জায়গায় রয়েছে। মুসলিম তারকাদের ভাস্কর্য রয়েছে। আমরা মনে করি- ভাস্কর্য কোনো পূজার জিনিস নয়। এগুলো স্মৃতি ধরে রাখার জিনিস, হৃদয়ে ধারণ করার জিনিস।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সবাইকে আহ্বান জানাবো, আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না। এই কাজটি যারা করছেন, তাদের চিহ্নিত করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরিয়ে দেবেন। এদেশের জনগণ অনেক সংস্কৃতিমনা। কাজেই এদেশের জনগণ কোনোদিন কোনো ভাস্কর্য ভাঙেনি। এগুলো ষড়যন্ত্র। যারা ভাঙছে, তারা চিহ্নিত ষড়যন্ত্রকারী। এটা তাদেরই একটা অপপ্রয়াস।’

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন উত্তরের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি, সহ-সভাপতি সাদেক খান এমপি, আসলামুল হক আসলাম এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাবিব হাসান এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক রানা, দপ্তর সম্পাদক উইলিয়াম প্রলয় সমদ্দার বাপ্পী প্রমুখ।