ভারতের এলাহাবাদ হাইকোর্ট লাভ জিহাদের পক্ষে রায় দিয়েছে

নিউজ ডেস্ক: এলাহাবাদ হাইকোর্ট ভারতে বিভিন্ন-ধর্মীয় বিবাহ রোধে নতুন আইন করার জন্য এবং স্থানীয় প্রশাসনের দ্বারা এই জাতীয় দম্পতিদের হয়রানির করায় উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের নিন্দা করেছেন।

আদালত বলেছেন, যে কোনও প্রাপ্তবয়স্ক মহিলা যদি তার স্বামীকে বেছে নিতে এবং তার সাথে বসবাস করতে পারে তবে তার সেই স্বাধীনতাও রয়েছে।

একের পর এক প্রেমের জিহাদের অজুহাতে উত্তরপ্রদেশসহ বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলোতে বিয়ের নামে ধর্মান্তর-বিরোধী আইন কার্যকর করতে যখন মরিয়া, তখন এলাহাবাদ হাইকোর্ট বিভিন্ন ধর্মের দম্পতির মামলায় এই রায় দেন।

আদালত সোজাসোজি রায় দেন, যে কোনও প্রাপ্তবয়স্ক মহিলার তৃতীয় ব্যক্তির সিদ্ধান্ত ছিনিয়ে নেওয়ার অধিকার নেই।

উত্তর প্রদেশে ধর্মান্তর আইন কার্যকর হওয়ার আগে ইটায় শিখা নামে এক হিন্দু মেয়ে  সালমান নামে এক মুসলিম যুবকের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। শিখার পরিবার সেপ্টেম্বরে সালমানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।

তাদের অভিযোগ, তাদের মেয়েকে সালমান অপহরণ করেছিলেন। তিনি শিখাকে তাকে বিয়ে করতে বাধ্য করেছিলেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে শিখাকে জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক শিশু কল্যাণ কমিটির হেফাজতে প্রেরণ করা হয়েছিল। সেখান থেকে শিখার হেফাজতের দায়িত্ব পিতামাতার হাতে আসে।

সালমান সম্প্রতি জেলা আদালতের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টে স্মরণাপন্ন হন। তিনি অভিযোগ করেন যে তাঁর স্ত্রীকে অবৈধভাবে আটক করা হয়েছে এবং তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে।

সোমবার মামলার শুনানি চলাকালীন বিচারপতি পঙ্কজ নকভি ও বিচারক বিবেক আগরওয়ালের সমন্বয়ে এলাহাবাদ হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন এবং চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে এক হাত নেন।

তারা বলেন, তাদের সিদ্ধান্তে স্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে যে, আইন-কানুন বিষয়ে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং শিশু কল্যাণ কমিটি কতটা শ্রদ্ধাশীল!

দুই বিচারপতিও শিখার সাথে এ বিষয়ে কথা বলেছেন। শিখা আদালতকে বলেছিলেন যে তিনি সালমানকে তার নিজের ইচ্ছার ইচ্ছায় বিয়ে করেছিলেন।

শিখা তার স্কুল শংসাপত্র আদালতে জমা দিয়েছিল এবং বলেছিল যে তার জন্ম ৪ অক্টোবর, ১৯৯৯-এ হয়েছিল। তিনি একজন আইনত: প্রাপ্তবয়স্ক। তার পরেও তাকে তার স্বামীর সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে বাধ্য করা হয়েছে।

আদালত পুলিশকেও তিরস্কার করেন। শিখা, সালমানের সাথে বাড়ি না ফেরা পর্যন্ত এই দুই বিচারক দম্পতিকে পুলিশ নিরাপত্তা দেওয়ার নির্দেশ দেন। সূত্র: পিটিআই