চিনিকল বন্ধ করবেন না

সুমন দত্ত: রাষ্ট্রায়ত্ত ৬টি চিনিকল বন্ধ না করে এর উন্নয়ন করা হোক। চিনিকল বন্ধ করলে এর সঙ্গে জড়িত লক্ষাধিক লোক সরাসরি আর্থিক ও সামাজিক ক্ষতির শিকার হবেন।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ চিনিকল আখচাষি ফেডারেশনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। এদিন সংবাদ সম্মেলনের উপস্থিত ছিলেন পঞ্চগড় -১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ মজাহারুল হক প্রধান।

অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য পাঠ করেন মোহাম্মদ শাহজাহান আলী বাদশাহ। তিনি বাংলাদেশ চিনিকল আখচাষি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, চিনিকলগুলোকে বন্ধ না করে সরকার বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা করে এর উন্নয়ন করতে পারেন। এভাবে ১৫ টি চিনি কলের মধ্যে ৬ টি চিনিকল বন্ধ করে দিলে এসব চিনিকলে আখ সরবরাহকারী চাষিরা নিজেদের আখ কোথায়, কীভাবে মাড়াই করার জন্য দেবে।

তাদের সেই ব্যবস্থা করলেও তারা অন্য চিনি কলে আখ সরবরাহ করবে না বলে জানিয়েছে। এদিকে বন্ধ করতে যাওয়া চিনিকলগুলো শ্রমিক কর্মচারীরা রয়েছে একটি অনিশ্চিত দিন দেখার অপেক্ষায়। তাদের কেউ চিনিকলগুলোর চাকরি ছেড়ে অন্যত্র যেতে চায় না।

এমপি মজাহারুল হক প্রধান বলেন, চিনিকলগুলোর সমস্যা মিটিয়ে দিলে এগুলোকে আবার নিজ পায়ে দাড় করানো যায়। সরকার এজন্য পদক্ষেপ নিচ্ছে।

নেতারা আরো বলেন, আখের উন্নতজাতের বীজ সরবরাহ করলে তা থেকে ভালো পরিমাণে চিনি পাওয়া সম্ভব। এখন যে বীজ সরবরাহ করা হয় তাতে চিনির পরিমাণ কম। এছাড়া চিনিকলগুলোতে দীর্ঘদিন নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে। যার ফলে প্রশাসনিক কাজে নানা সমস্যা হচ্ছে। সরকার যদি চিনিকগুলোকে বাচাতে ভর্তুকি দেয়। কৃষকদের আখের দাম নির্ধারণ ও প্রয়োজনীয় উপকরণ সময়মত সরবরাহ করে তবে এ খাতকে বাঁচানো কঠিন কিছু না।

সবগুলো চিনিকলে আখ মাড়াই যাতে বন্ধ না হয় সরকারের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছে সংগঠনের নেতারা।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম