সৌদি সরকার সালমান-নেতানিয়াহুর বৈঠক অস্বীকার করেছে

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু সৌদি আরবে গিয়ে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সাথে দেখা করেন। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সোমবার ইসরায়েলের গণমাধ্যমে এ জাতীয় সংবাদ প্রকাশের পরে পুরো বিশ্বে হৈ-চৈ পড়ে যায়। কিন্তু সৌদি কর্তৃপক্ষ দাবি করছে ইসরায়েলের গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ ঠিক না।

সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান একটি টুইট বার্তায় বলেছেন যে খবর প্রকাশ পেয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সফরের সময় ক্রাউন প্রিন্স এবং ইসরায়েলের কর্মকর্তারা একটি বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন, এটা ঠিক নয়। একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে ঠিকই কিন্তু সে বৈঠকে কেবল মার্কিন ও সৌদি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

দ্য গার্ডিয়ানের মতে, ফ্লাইট ট্র্যাকিংয়ের তথ্য থেকে জানা যায় যে, নেতানিয়াহু বিমানটি তেল আবিব থেকে সৌদি আরবের লোহিত সাগরের উপকূলীয় শহর নেওমে গিয়েছিল। যেখানে
সৌদির যুবরাজ মোহাম্মদ এবং পম্পেও বৈঠক করছিলেন।

কাতার-ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল-জাজিরার মতে, আরব দেশগুলিকে ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার চাপ দিতেই আমেরিকার চাপে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল।

ইসরায়েলের কান পাবলিক রেডিও এবং আর্মি রেডিও সোমবার জানিয়েছে, মোসাদ গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান ইয়োসি কোহেনও লোহিত সাগর উপকূলে সৌদি শহর নওমে সভায় অংশ নিয়েছিলেন।