কানাডায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়াল

নিউজ ডেস্ক:  করোনার সার্বক্ষণিক তথ্য রাখা ওয়ার্ল্ডওমিটার এর তথ্য অনুযায়ী, কানাডায় করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ২২ হাজার ৮৮৭ জন, মারা গেছেন ১০ হাজার ১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৮৬ হাজার ৪৬৪ জন।

কানাডার তিনটি প্রধান অন্টারিও, ব্রিটিশ কলাম্বিয়া এবং আলবার্টা প্রদেশসহ অন্যান্য প্রদেশেও প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্টারিও প্রদেশের তিনটি প্রধান অঞ্চল টরন্টো, অটোয়া এবং পিল রিজিওনের জন্য সীমাবদ্ধতা জোরদার করা হয়েছে। শনিবার ২৮ দিনের জন্য কার্যকর হওয়া পদক্ষেপগুলোর মধ্যে রেস্তোরাঁ ও বারগুলোর ভেতরে খাওয়া দাওয়া নিষিদ্ধ করা এবং জিম, সিনেমা থিয়েটার এবং ক্যাসিনো বন্ধ করা হয়েছে। প্রদেশগুলোর নীতি নির্ধারকরা কার্যকর পদক্ষেপের পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মুখে মাস্ক ব্যবহার করারও আহ্বান জানানো হয়েছে।

অন্যদিকে আলবার্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে ক্যালগারি এবং এডমন্টনে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এই বিধি-নিষেধের আওতায় উভয় শহরে সামাজিক জমায়েতের জন্য এখন বাধ্যতামূলক ১৫ ব্যক্তির সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রদেশটি সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ১৪৪০ জন নতুন করোনা শনাক্ত হওয়ার পরে কোভিড-১৯-এর বিস্তার হ্রাস করার প্রয়াসে সামাজিক জমায়েতের জন্য বাধ্যতামূলকভাবে ১৫ ব্যক্তির সীমা চালু করেছে।

টরন্টো সিটির শীর্ষ চিকিৎসক আইলিন ডি ভিলা সতর্ক করে বলেছেন টরন্টোতে মহামারির প্রথম ধাপের সংক্রমণের হারকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে টরন্টোতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাবে। তিনি হুঁশিয়ারি দেন ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ না করলে এই শীতে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে।

তিনি বলেন, টরন্টোতে কোভিড-১৯-এর বিস্তার সীমিত রাখার বিষয়টি সিটির বাসিন্দাদের যথাযথ সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে। ভাইরাসটি একজন থেকে অন্যজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে তাই যতোটা সম্ভব নিজেদের মধ্যে শারীরিক যোগাযোগ সীমিত রাখার আহ্বান জানান তিনি।