ভারতে আটক সেনাকে দ্রুত ফেরত চায় চীন

নিউজ ডেস্ক:  বিরোধপূর্ণ লাদাখ সীমান্তে ভারতের হাতে আটক চীনা সেনা সদস্যকে দ্রুত ফিরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং। চীনা সেনাবাহিনীর দাবি, ওই সেনা সদস্য পার্বত্য অঞ্চলে পশু পালকদের সহায়তা করার সময় পথ হারিয়ে ফেলে। তারপর থেকেই ওই সেনা সদস্য নিখোঁজ ছিল। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।
লাদাখে সেনা উপস্থিতি জোরালো রেখেছে চীন ও ভারত

সোমবার ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়, লাদাখ সীমান্তের দেমচক এলাকা থেকে চীনা সেনা সদস্য করপোরাল ওয়াং ইয়া লোনকে আটক করা হয়েছে। বেআইনিভাবে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশের দায়ে তাকে আটকের কথা জানায় দিল্লি। তার কাছ থেকে সামরিক ও বেসামরিক কয়েকটি নথি পাওয়ার কথাও জানানো হয়। ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে বলা হয়, নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনে তাকে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ)-এর হাতে তুলে দেওয়া হবে।

ভারতীয় সেনা বিবৃতির পর সোমবার রাতে চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফে জানানো হয়, পশু পালকদের সহায়তা করার সময় রবিবার সন্ধ্যায় ওই সেনা সদস্য পথ হারিয়ে ফেলে। তার নিখোঁজ হওয়ার বিষয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে জানানো হয় বলেও দাবি করে চীনা কর্তৃপক্ষ।

চীনা সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র ঝাং সুইলি জানান, পরে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ওই সেনা সদস্যকে খুঁজে পাওয়ার কথা বেইজিংকে জানায়। এছাড়া মেডিক্যাল পরীক্ষার পর তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুন লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় চীনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘাতে ভারতের অন্তত ২০ সেনা নিহত হয়। ধারণা করা হয়ে থাকে, ওই সংঘাতে চীনের পক্ষেও হতাহতের ঘটনা ঘটে। তবে বেইজিং কখনোই এ নিয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেনি।

ওই সংঘাতের পর ভারতের চার কর্মকর্তাসহ অন্তত দশ সেনা সদস্যকে আটক করে চীন। কূটনৈতিক ও সামরিক পর্যায়ে দরকষাকষির পর তিন দিনের মাথায় তাদের ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, কয়েক মাস ধরেই লাদাখ সীমান্তে ভারী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মুখোমুখি অবস্থান নিয়ে আছে ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী। উত্তেজনা নিরসনে বিভিন্ন পর্যায়ের আলোচনায় সমঝোতায় পৌঁছানোর কথা বলা হলেও প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার উত্তেজনা কার্যত নিরসন হয়নি।