সৌমিত্রের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ

প্রখ্যাত অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের দ্বিতীয়বারের করোনার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। ঠিক ১৪ দিনের মাথায় গতকাল বুধবার বেলভিউ নার্সিংহোমে তাঁর দ্বিতীয়বার করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। সন্ধ্যায় সেই রিপোর্ট আসে নেগেটিভ।

বেলভিউ নার্সিংহোমের  প্রধান নির্বাহী প্রদীপ ট্যান্ডন জানান, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের দ্বিতীয়বারের করোনার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ  । ১৪দিন আগে প্রথম পরীক্ষায় পজিটিভ রিপোর্ট এসেছিল।

গতকাল হাসপাতাল সূত্রে বলা হয়েছে, তিনি এখন ধীরে ধীরে সুস্থ হচ্ছেন। আগের দুদিনের থেকে তাঁর শরীরের অবস্থা অনেকটা স্থিতি শীল। জ্বর আসেনি। এখন তিনি মাঝে মধ্যে চোখও খুলছেন। তবে তাঁর নিস্তেজ ভাবটা রয়েছে। আর তাঁকে সচল রাখতে শুরু কর হয়েছে মিউজিক থেরাপি। তবে তার শ্বাস, প্রশ্বাস , হৃৎস্পন্দন, রক্তচাপ অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে এসেছে।

করোনা ছাড়া সৌমিত্রকে আঁকড়ে ধরেছে অন্যান্য রোগ। তবু গতকাল তাঁর শারীরিক অস্থিরতা নিয়ন্ত্রণের জন্য কয়েকবার দেওয়া হয় বাইপ্যাপ ভেন্টিলেশন সাপোর্ট। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে এখন চিকিৎসা করছেন ১৯ জন চিকিৎসক। এর মধ্যে হাসপাতালের রয়েছে ১১ জন আর হাসপাতালের বাইর থেকে আনা হয়েছে আরও ৮ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

গতকাল তাঁর একমাত্র কন্যা পৌলমী বসু জানিয়েছিলেন, বাবা চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন। ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে  তাঁর শারীরিক অবস্থার।

গতকাল তাঁর ইসিজি ও ইকোর পরীক্ষা হয়েছে। সোমবার তাঁর মস্তিষ্কের এমআরআই করা হয়েছে। তবে তাঁর প্রোস্টেট ক্যানসার ছড়িয়ে পড়েছে ফুসফুস এবং মস্তিষ্কে। সংক্রমণ ঘটেছে মূত্রনালিতেও। ফলে করোনার চেয়ে চিকিৎসকেরা তাঁর এই সব রোগ নিয়ে বেশি চিন্তিত। তবে তাঁরা আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, তাঁর শরীরের অধিকাংশ অঙ্গ এখন কাজ করছে। তবে ঠিক নেই শরীরে পটাশিয়াম ও সোডিয়ামের মাত্রা।

চিকিৎসকেরা বলেছেন, গত শনি ও রোববার এই দুদিনে তাঁর শরীরে তিন ইউনিট প্লাজমা প্রয়োগ করা হয়েছে। এতে সাড়া মিলেছে। প্রয়োজনে আবারও প্রয়োগ করা হতে পারে প্লাজমা।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর তিনি তাঁর একটি বায়োপিকের শুটিং’এর জন্য গিয়েছিলেন টালিগঞ্জের ভারতলক্ষ্মী স্টুডিওতে। সেখানে তাঁর শুটিংয়ের জন্য উপস্থিত ছিলেন কলাকুশলী সহ ২৫ থেকে ৩০ জন কর্মী। এখানেই শুটিংয়ের সময় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর শুটিং শেষে তিনি বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

১ অক্টোবর থেকে বাড়িতে থাকাকালীন তাঁর শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। শরীরে জ্বর ওঠে। তবে করোনার কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। এরপরই চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁর করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হলে গত ৫ অক্টোবর সোমবার তার করোনার পজিটিভ রিপোর্ট আসে। ৬ অক্টোবর মঙ্গলবারই তাঁকে ভর্তি করান হয় বেলভিউ নার্সিংহোমে ।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বয়স এখন ৮৫ বছর। ১৯৩৫ সালের ১৯ জানুয়ারি তিনি জন্মগ্রহণ করেন পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার কৃষ্ণনগরে।

সাইফ শোভন, চিফ রিপোর্টার,ঢাকা নিউজ২৪.কম