চিকিৎসাসেবায় নতুন ধারা সৃষ্টি করেছে টেলিমেডিসিন

নিউজ ডেস্ক:   করোনা প্রাদুর্ভাবে টেলিমেডিসিন সেবা নতুন ধারার সৃষ্টি করেছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দেশে টেলিমেডিসিন সেবায় কার্যত বিপ্লব ঘটে গেছে।’

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপকমিটির উদ্যোগে ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন’ নামে একটি অ্যাপ উদ্বোধন করতে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি। ওবায়দুল কাদের সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এতে যুক্ত হন।

দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেবে আওয়ামী লীগ। এর মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের কাছ থেকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা নিতে পারবেন যে কেউ।

করোনায় টেলিমেডিসেন সেবার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘চিকিৎসকরাও নিজে এবং রোগীর কথা বিবেচনা করে এই মহামারি থেকে বাঁচতে চেম্বারে রোগী দেখা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এ অবস্থায় সময়ের প্রয়োজনে চিকিৎসা সেবায় নতুন ধারার সৃষ্টি হয়েছে, সেটা হলো টেলিমেডিসিন সেবা। ’

দ্রুতগতির ইন্টারনেট ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এসব কিছু সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী পরিকল্পনা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে। ’

তিনি বলেন, ‘২০০৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঘোষণা করে, ২০২১ সালে স্বাধীনতার ৫০ বছরে দারিদ্র্যমুক্ত ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে। একটি উন্নত দেশ, সমৃদ্ধ ডিজিটাল সমাজ, একটি ডিজিটাল যুগের জনগোষ্ঠী, রূপান্তরিত উৎপাদন ব্যবস্থা, নতুন অর্থনীতি সব মিলিয়ে একটি জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনের স্বপ্নই দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই স্বপ্ন ২০২১ সালের আগেই বাস্তবে সালে রূপান্তরিত হয়েছে।’

‘জয় বাংলা’ টেলিমেডিসিন অ্যাপ বাংলাদেশের চিকিৎসাখাতে একটি নতুন অধ্যায় সৃষ্টি করবে আশাবাদ ব্যক্ত করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এই অ্যাপের মাধ্যমে রোগী চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা নেবেন। এই অ্যাপে রোগীদের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে। ফলে রোগীর তথ্য পরে রোগ নিয়ন্ত্রণে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা যাবে।’

অ্যাপটির ডিজাইনার এবং পরিকল্পনাকারীদের ধন্যবাদ জানান ওবায়দুল কাদের।

অ্যাপ উদ্বোধনের সময়ে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ড. হোসেন মনসুর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর, আইইবি নেতা প্রকৌশলী রনক আহসান, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশেরে উপাচার্য ড. মো. মাহফুজুল ইসলাম, প্রকৌশলী আবু হাসান মাসুদসহ উপ-কমিটির সদস্যরা।