শহীদ জহির রায়হানের জন্মদিন

নিউজ ডেস্ক:   আজ বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতের প্রবাদ পুরুষ শহীদ জহির রায়হানের জন্মদিন। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, চলচ্চিত্র পরিচালক, ঔপন্যাসিক, সাংবাদিক, সংগীত পরিচালক ও গল্পকার।

১৯৩৫ সালের ১৯ আগস্ট ফেনী মহকুমার বর্তমানে ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের মজুপুর গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার স্মরণে প্রতিবছর ফেনীর বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজন করলেও এ বছর করোনা মহামারির কারণে তেমন কর্মসূচি নেই। তার ছোট ভাই সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা ও শহীদ জহির রায়হান স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা মো. সফিউল্লাহ জানান, তাদের গ্রামের বাড়ি মজুপুরে জন্মদিনে মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়।

এছাড়া বিভিন্ন সংস্কৃতিপ্রেমী ব্যক্তিরা এদিনে জহির রায়হান স্মৃতি পাঠাগারে এসে জড়ো এবং তার স্মৃতিচারণ করেন। বাংলা চলচ্চিত্রের এ কিংবদন্তির জন্মদিনে ঢাকাসহ সারাদেশে সংস্কৃতিপ্রেমীরা নানা উৎসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। ১৯৫৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন জহির রায়হান। তার সাহিত্যিক ও সাংবাদিক জীবন শুরু হয় ১৯৫০ সালে যুগের আলো পত্রিকায় যোগদানের মাধ্যমে।

পরবর্তীতে তিনি খাপছাড়া, যান্ত্রিক, সিনেমা ইত্যাদি পত্রিকাতেও কাজ করেন। ১৯৫৬ সালে তিনি সম্পাদক হিসেবে প্রবাহ পত্রিকায় যোগ দেন। ‘জাগো হুয়া সাবেরা’ ছবিতে সহকারী হিসেবে কাজ করার মাধ্যমে ১৯৫৭ সালে তিনি চলচ্চিত্র জগতে পদার্পণ করেন। পরিচালক হিসেবে জহির রায়হানের প্রথম ছবি ‘কখনো আসেনি’। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৬১ সালের ২৪ নভেম্বর। ১৯৬৪ সালে তিনি পাকিস্তানের প্রথম রঙিন চলচ্চিত্র ‘সঙ্গম’ নির্মাণ করেন।

এদিকে দীর্ঘ একযুগেও ফেনীর সাংস্কৃতিক অঙ্গনের তীর্থস্থান খ্যাত শহীদ জহির রায়হান হল আগের জায়গায় পুন:নির্মাণ করা হয়নি। ২০০৮ সালে তৎকালীন ওয়ান-ইলেভেন আমলে আধুনিকায়নের নামে ফেনী শহরের মিজান রোডে জেলা পরিষদের জায়গায় নির্মিত শহীদ জহির রায়হান হল ভেঙে ফেলা হয়। পরবর্তীতে দরপত্র আহ্বান করেও নকশা ত্রুটির কারণে নির্মাণ কাজ আটকে যায়। ফলে বিভিন্ন সময় সাংস্কৃতিক কর্মীরা হলটি পুন:নির্মাণের জন্য মানববন্ধন-স্মারকলিপিসহ নানা কর্মসূচির প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ হলটি পুন:নির্মাণের আশ্বাস দিলেও তা আর কার্যকর হয়নি। ফেনীর সংস্কৃতিপ্রেমীদের দাবি অবিলম্বে পূর্বের স্থানে জহির রায়হান হলটি নির্মাণ করে ফেনীর সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে প্রাণবন্ত করা হোক।