চট্টগ্রাম বিমান অফিসে টিকিটের জন্য হাহাকার প্রবাসীদের

নিউজ ডেস্ক:    চট্টগ্রামের প্রবাসীদের ভোগান্তি শেষ হচ্ছে না। একটি টিকিটের জন্য হাহাকার করছেন প্রবাসীরা। ফ্লাইটের সংখ্যা না বাড়ালে এ সংকট সমাধান সম্ভব নয়। মধ্যপ্রাচ্যে চাকরিতে ফেরত যেতে প্রবাসীরা টিকিট কাটার জন্য ভিড় করেন নগরীর ষোলশহরের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কার্যালয়ে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে টিকিট প্রত্যাশীদের মূল ফটকের বাইরে লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। প্রবাসীদের রোদের মধ্যে ফুটপাতে এবং সড়কে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেন টিকিটের জন্য। চাহিদার তুলনায় টিকেট কম হওয়ায় এ সংকট তৈরি হয়েছে।

ষোলশহরের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপক নজরুল ইসলাম চৌধুরীকে ফোন করলেও তিনি ফোন ধরেননি। বিমানের একজন কর্মকর্তা জানান, প্রবাসী যাত্রীদের প্রত্যাশিত দিনে যদি আসন খালি থাকে অবশ্যই টিকিট কনফার্ম করা হচ্ছে। অনেকে বাধ্য হয়ে হায়ার ক্লাসে টিকিট কাটছেন বেশি ভাড়ায়। এখানে কাউকে অহেতুক হয়রানি বা কারও যাত্রা ঝুলিয়ে রাখার সুযোগ নেই।

লাইনে দাঁড়ানো আবুধাবিগামী যাত্রী নিজাম বলেন, করোনার আগে ছুটি কাটাতে দেশে এসেছিলাম। ৪ বছর পর দেশে আসি। কিন্তু করোনার কারণে কোভিড পরীক্ষা নিয়ে কড়াকড়ি ও বিমান টিকেট না পাওয়ার কারণে কর্মস্থলে যেতে পারছি না।

আরেকজন টিকিট প্রত্যাশী রইসুল ইসলাম বলেন, বিমান অফিসে এখন আবুধাবির টিকিটের চাহিদা বেশি। কিন্তু ফ্লাইট কম। তার ওপর দুর্ভোগের শেষ নেই। সরকার যদি বিশেষ ফ্লাইট চালু করতো তাহলে রেমিটেন্স যোদ্ধাদের জন্য উপকার হতো।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স জানায়, আগামী ৩০ আগস্ট পর্যন্ত আবুধাবিগামী সপ্তাহে ৪টি ফ্লাইট আছে বিমান বাংলাদেশের। আরও দুইটি অতিরিক্ত ফ্লাইটের জন্য আবেদন করেছে সংস্থাটি ।