সংগীতে আলাউদ্দিন আলীর মতো সব্যসাচী কমই ছিল

নিউজ ডেস্ক:   সৈয়দ আবদুল হাদী। প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী। খ্যাতিমান সুরকার আলাউদ্দিন আলী পৃথিবী ছেড়ে পাড়ি দিয়েছেন পরপারে। প্রয়াত এই সংগীত পরিচালকের সুরে অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। সেইসব স্মৃতিকথা তুলে ধরা হলো-

আপনার শিল্পীজীবনে আলাউদ্দিন আলী ছিলেন কাছের মানুষ। তার চলে যাওয়া নিয়ে আপনার অনুভূতি…

বিদায় সব সময়ই কষ্টের। আর যে মানুষটি কাছের, দীর্ঘদিন যার সঙ্গে ওঠাবসা, তেমন কারও চলে যাওয়া মানেই কিছুটা নিঃস্ব হয়ে পড়া। কষ্টের অনুভূতি সব সময় বলে বোঝানো যায় না। আলাউদ্দিন আলীর চলে যাওয়া যতটা কষ্ট দিয়েছে, ততটাই শূন্যতা তৈরি করে গেছেন দেশের সংগীতাঙ্গনে।

আলাউদ্দিন আলীর সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল কীভাবে?

যতদূর মনে পড়ে, কোনো একটি গানের অনুষ্ঠানে তার সঙ্গে প্রথম দেখা হয়। ঐদিন দু’জনের মধ্যে কুশলাদি বিনিময় হয়েছিল শুধু। এরপর বিভিন্ন আয়োজনে দেখা এবং পরিচয় গাঢ় হতে থাকে। সেই থেকে একসঙ্গে কাজের সূত্রপাত। তার সুরে আমার গাওয়া অসংখ্য গান বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কাজের মধ্য দিয়েই জেনেছি, আলাউদ্দিন আলী কতটা মেধাবী এবং কাজের প্রতি কতটা নিষ্ঠাবান।

তার সঙ্গে সর্বশেষ কবে দেখা হয়েছে?

অনেক দিন আগে সাভারের সিআরপিতে যখন তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন, তখন দেখা হয়েছিল। সে সময় মনের মধ্যে প্রবল বিশ্বাস ছিল, আবার ফিরে আসবেন তিনি। আমাকে দেখে তিনি হাসলেন। তার হাসিমাখা মুখ এখনও চোখে ভাসছে।

ব্যক্তি আলাউদ্দিন আলীর কোন বিষয়টি আপনার ভালো লাগত?

কথায় আছে, ফল দেওয়া বৃক্ষ সব সময় নুয়ে থাকে। আলাউদ্দিন আলী ছিলেন তেমনই একজন মানুষ। তার বিনয়ী মনোভাব আমাকে মুগ্ধ করত। তবে শিল্পীদের ব্যক্তিগত জীবন সাধারণত সুখকর হয় না। তার জীবনের কিছু দুঃখ ছিল।

সংগীতের দীর্ঘ পরিসর ও পেশাগত দক্ষতা তৈরিতে তিনি কী ধরনের সাফল্য দেখিয়েছেন বলে মনে করেন?

বাংলাদেশের সংগীতে সত্তর দশক থেকেই আলাউদ্দিন আলী সুরের জাদু ছড়িয়ে গেছেন। তিনি কালকে অতিক্রম করতে পেরেছেন বলেই তার সুরের আবেদন সমকালীন। তিনি ছিলেন একই সঙ্গে সুরকার, সংগীত পরিচালক, বেহালাবাদক ও গীতিকার। সংগীতে আলাউদ্দিন আলীর মতো সব্যসাচী কমই ছিল। তার লেখা, সুর করা ও সংগীত পরিচালনায় অসংখ্য গান শ্রোতাপ্রিয় হয়েছে। চলচ্চিত্র, বেতার, টেলিভিশন মিলে প্রায় হাজার পাঁচেক গান তৈরি করেছেন তিনি। এমন পরিসংখ্যান বলে দেয়, তিনি একজন কিংবদন্তি।

তার সুরে অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন আপনি। কোনো একটি গানের স্মৃতিকথা যদি তুলে ধরতেন…

আমার গাওয়া ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার’ গানটি ১৯৭৮ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’ ব্যবহার করা হয়। গানটি লিখেছিলেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। চলচ্চিত্রে এই গানের চিত্রায়ণে ঠোঁট মিলিয়েছেন প্রখ্যাত অভিনেতা আনোয়ার হোসেন। গানটি গাইবার সময় মনে হয়েছিল, একের পর এক এত চমৎকার সুর একজন মানুষ কীভাবে করতে পারেন? এরপর তো গানটির ইতিহাস সবারই জানা। আর চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাওয়ার পর থেকে আমাকেও আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।