ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কোভিড-১৯ পজেটিভ

 

নিউজ ডেস্ক: ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি আজ জানিয়েছেন, তাঁর নোবেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) পরীক্ষার ফলাফল পজেটিভ এসেছে।
প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ টুইট কওে জানান- ‘হাসপাতালে গিয়ে পৃথক পরীক্ষার পরে আজ আমার রিপোর্ট (কোভিড-১৯) পজেটিভ এসেছে।’
করোনা ভাইরাস পজেটিভ ধরা পড়ার পরে, প্রণব মুখার্জি গত সপ্তাহে তাঁর সংস্পর্শে আসা সকলকে স্বপ্রনোদিত পৃথক থাকার এবং কেভিড-১৯-এর পরীক্ষা করার জন্য অনুরোধ করেছেন।
ভারতীয় কংগ্রেসের ৮৪ বছর বয়সী সাবেক এই নেতা ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ভারতের রাষ্ট্রপতি ছিলেন।
প্রণব মুখার্জি টুইট পোস্ট করার কয়েক মিনিটের পরেই, সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে মন্ত্রীগণ, রাজনৈতিক নেতারা এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকেরা তাঁর দ্রুত আরোগ্য এবং সুস্বাস্থ্য কামনা করে তাঁকে শুভেচ্ছা জানান।
দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল টুইটারে লিখেছেন, ‘স্যার দয়া করে নিজের প্রতি খেয়াল রাখুন। আমরা আপনার দ্রুত আরোগ্য এবং সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রার্থনা করছি।’
দিল্লি কংগ্রেসের সাবেক প্রধান অজয় ম্যাকেন টুইট করেছেন, ‘স্যার, আপনার দ্রুত আরোগ্য এবং দীর্ঘ ও স্বাস্থ্যকর জীবন কামনা করছি।’
কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল টুইট করেন- ‘আমি শ্রী প্রণব মুখার্জির দ্রুত সুস্থতার জন্য আর্শিবাদ করছি। আমি বিশ্বাস করি, তিনি ভাইরাস থেকে দ্রুত আরোগ্য লাভ করবেন। তাঁর সুস্বাস্থ্য কামনা করছি। ’
ভারতীয় কংগ্রেসের প্রধান মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালাসহ দলটির অন্য নেতারাও কোভিড-১৯ থেকে মুখার্জির দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন।
এর আগে, গত কয়েক সপ্তাহে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদিউরাপ্পা, কংগ্রেস নেতা সিদ্ধারামাইয়াসহ বেশ কয়েকজন শীর্ষ রাজনীতিবিদের কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।
মেগাস্টার অমিতাভ বচ্চন, অভিষেক এবং ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনসহ বলিউডের একাধিক সেলিব্রিটিও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন।
তারা ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং চিকিৎসার পরে হাসপাতাল ছেড়ে গেছেন।
ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্যে দেখা গেছে, ভারতে মোট ২২,১৫,০৭৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৬২০৬৪ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন।
মারাত্মক এই মহামারীতে ভারতে মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৪,৩৮৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ১০০৭ জনের মৃত্যু নিবন্ধিত হয়েছে।