নেতানিয়াহুর পদত্যাগ দাবিতে উত্তপ্ত ইসরায়েল

নিউজ ডেস্ক:    প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগ দাবিতে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ইসরায়েল। শনিবার জেরুজালেমে নেতানিয়াহুর বাসভবনের সামনের ও তেল আবিবের রাজপথে এ বিক্ষোভে শামিল হন হাজার হাজার মানুষ। প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের ব্যর্থতা, অর্থনীতির চাকা সামাল দিতে না পারা এবং নেতানিয়াহুর ব্যক্তিগত দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই বিক্ষোভ করেন তারা। খবর আল জাজিরার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার জেরুজালেমে নেতানিয়াহুর বাসভবনের সামনের প্রধান সড়কে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী প্রতিবাদে নেমে পড়েন। অনেকে ‘ক্রাইম মিনিস্টার’ লেখাসহ বিভিন্ন প্লাকার্ড নিয়ে রাস্তাতেই শুয়ে পড়েন। মধ্যরাত পর্যন্ত তারা সেখানে বিক্ষোভ দেখান। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে এবং বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়।

ইসরায়েলি গণমাধ্যম জানিয়েছে, নেতানিয়াহুর বাসভবনের সামনে শনিবারের বিক্ষোভে অন্তত ১০ হাজার ইসরায়েলি অংশ নেন।

২০১১ সালের পর এই প্রথম এতো বিপুল সংখ্যক জনসাধারণ সরকারপ্রধানের পদত্যাগ দাবিতে এ বিক্ষোভে অংশ নিলো।

জেরুজালেম ছাড়াও তেল আবিব ও মধ্য ইসরায়েলেও বিক্ষোভ হয়েছে। যেখানে নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠা ও করোনা ঠেকাতে তার সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরে পদত্যাগ দাবি করেন তারা। বিক্ষোভকারীরা বলেন, দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত নেতানিয়াহুর প্রধানমন্ত্রীর পদে থাকা উচিত নয়।

অবশ্য এসব আন্দোলনকে পাত্তা দিচ্ছেন না নেতানিয়াহু। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে এক বছরের বেশি সময় ধরে দেশটির রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা চলছে। তাকে কয়েকবার জিজ্ঞাসাবাদও করেছে পুলিশ। তবে মে মাসে নতুন একটি ঐক্যমত্যের সরকার গঠন করেন তিনি। তার ভাষায়, ‘তাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিতেই এই অভিযোগ আনা হয়েছে।’

এদিকে ইসরায়েলে এখন পর্যন্ত ৭২ হাজারের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃ্ত্যু হয়েছে ৫২৬ জনের। যদিও তথ্য গোপনের অভিযোগ তুলেছেন বিক্ষোভকারীরা। করোনায় কাজ হারিয়ে, ব্যবসা হারিয়ে হাজারো তরুণ ব্যবসায়ীও যোগ দিয়েছেন নেতানিয়াহু সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে এ বিক্ষোভে। তাদের অভিযোগ, সরকারের অর্থনৈতিক দুর্নীতির কারণেই করোনা সামাল দেওয়া যাচ্ছে না।