আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্তে সংঘর্ষ, নিহত ২২

নিউজ ডেস্ক:   পাকিস্তান ও আফগানিস্তান সীমান্তে সংঘর্ষে অন্তত ২২ জন নিহত হয়েছেন। ঈদুল আজহা উপলক্ষে দুই দেশের সীমান্তে লোকজন জড়ো হয়। এসময় তারা সীমান্ত অতিক্রমের চেষ্টা করলে গুলি করে উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী।

শুক্রবার আফগানিস্তান জানিয়েছে, পাকিস্তানের ছোড়া গুলিতে অন্তত ১৫ জন বেসামরিক নিহত হয়েছেন। আর পাকিস্তানের হাসপাতাল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আফগানিস্তানের ছোড়া গুলিতে সাতজন নিহত হয়েছেন। খবর রয়টার্সের

আফগানিস্তানের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় কান্দাহার প্রদেশের গভর্নর হায়াতুল্লাহ হায়াত জানান, উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সংঘর্ষের সময় সীমান্ত শহর স্পিন বোলডাকে পাকিস্তানি গোলা ছোড়া হয়। এতে নারী ও শিশুসহ অন্তত ১৫ জন নিহত ও ৮০ জন আহত হয়েছেন। অন্যদিকে পাকিস্তান জানিয়েছে, গুলিবিদ্ধ হয়ে অন্তত ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ৩১ জন আহত হয়েছেন।

দেশটির সীমান্ত শহর চামানের এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেছেন, আফগানিস্তানে যেতে ইচ্ছুক জনতা অশান্ত হয়ে উঠলে এবং পাকিস্তানি স্থাপনায় হামলা চালালে সংঘাতের সূত্রপাত হয়।

এক বিবৃতিতে আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, পাকিস্তানের সেনাবাহিনী যদি আফগানিস্তানে রকেট হামলা অব্যাহত রাখে তাহলে তাদের আফগান সেনাবাহিনীর পাল্টা আঘাতের মুখোমুখি হতে হবে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সমবেত জনতাকে লক্ষ্য করে আফগান বাহিনী প্রথমে গুলি চালায়। পাকিস্তানের সেনারা স্থানীয়দের রক্ষায় ও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালিয়েছে।

তবে বিক্ষোভকারীরা রয়টার্সকে ফোনে জানিয়েছেন, পাকিস্তানের সেনাবাহিনীই আগে গুলি ছুড়েছে। সীমান্তটি করোনা মহামারির জন্য দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল। ঈদ উপলক্ষে উভয় দেশের জনগণ সীমান্ত পারাপার হতে পারে সেজন্য বুধবার তা খুলে দেওয়া হয়।