প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে মাস্ক পরলেন ট্রাম্প

নিউজ ডেস্ক:    মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অবশেষে প্রথমবারের মতো প্রকাশ্যে মাস্ক পরেছেন। শনিবার ওয়াশিংটনের বাইরে ওয়াল্টার রিড সামরিক হাসপাতালে আহত সৈনিক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের তিনি দেখতে যান। এ সময়ে হাসপাতালের করিডোর ধরে তাকে মাস্ক পরে আসতে দেখা যায়।

জনসম্মুখে মাস্ক পরে জনস্বাস্থ্য বিষয়ে উদাহরণ তৈরি করতে তার প্রতি অনেক আহ্বান জানানো হয়। মাস্ক পরার জন্যে তিনি রীতিমতো চাপে ছিলেন। কিন্তু শনিবারের আগে তাকে কখনও প্রকাশ্যে মাস্ক পরতে দেখা যায়নি।

মাস্ক পরা নিয়ে হোয়াইট হাউস ছাড়ার প্রাক্কালে ট্রাম্প বলেন, আমি কখনই মাস্ক পরার বিরুদ্ধে নই। কিন্তু এটি পরার নির্দিষ্ট সময় ও স্থান আছে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে দিন দিন করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে।

জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্যমতে, দেশটিতে শনিবার ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনায় ৬৬ হাজার ৫২৮ জন আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২ লাখ ৪২ হাজার ৭৩ জন।

নতুন মারা যাওয়া ৭৬০ জন নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৩৪ হাজার ৭২৯ জন। গত পাঁচদিনের চার দিনই দেশটিতে প্রতিদিনের সংক্রমণের সংখ্যা ৬০ হাজারেরও বেশি হচ্ছে। দেশটির রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা সম্ভব না হলে জনসমাগমস্থলে মাস্ক পরার সুপারিশ করেছে। কিন্তু মাস্ক পরা নিয়ে দেশটিতে বিভক্তি দেখা দেয় এবং বিষয়টি রাজনৈতিক ইস্যু হয়ে ওঠে। এ প্রেক্ষাপটে খোদ ট্রাম্পের দল রিপাবলিকানদের কারো কারো পক্ষ থেকেও মাস্ক পরার জন্যে প্রেসিডেন্টের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

কিন্তু ট্রাম্পকে নির্বাচনী সমাবেশ, মিডিয়া ব্রিফিং কিংবা অন্যকোথাও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। এমনকি নির্বাচনে ট্রাম্প তার প্রতিদদ্বন্দ্বী প্রার্থী জো বাইডেনের মাস্ক পরা নিয়ে ঠাট্টা তামাশা করেন।

তিনি অনেক সময়ই তার সহযোগীদের বলেছেন, মাস্ক পরলে তাকে দূর্বল দেখায়। এমনকি শনিবার হাসপাতালের উদ্দেশ্যে হোয়াইট হাউস ছাড়ার প্রাক্কালে তিনি বলেছেন, নিয়মিত নয়, হাসপাতালে যাচ্ছেন বলেই তিনি মাস্ক পরবেন।

তিনি বলেন, আপনি যখন হাসপাতালে থাকবেন, বিশেষ করে এ রকম নির্দিষ্ট অংশে, যখন আপনাকে অনেক সৈনিকের সঙ্গে কথা বলতে হবে এবং কখনও অনেক মানুষের সঙ্গে তারা হয়তো তখন কেবলই অপারেশন টেবিল থেকে ফিরেছে তখন মাস্ক পরা খুব ভালো একটা ব্যাপার।