সকল প্রকার ডেটার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধপরিকর : মোস্তাফা জব্বার

 

নিউজ ডেস্ক: ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সব-ধরনের রাষ্ট্রীয় তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিতের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগত ও ফিনান্সিয়াল ডেটাসহ রাষ্ট্রীয় তথ্যের নিরাপত্তা রক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। তাই সরকার সকল প্রকার ডেটার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর।’

মোস্তাফা জব্বার   ১২ জুলাই রোববার রাজধানীর ডিজিটাল প্লাটফর্মে লিগ্যাল কাউন্সিল আয়োজিত ‘ডেটা প্রোটেকশন এন্ড প্রাইভেসি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
ডিজিটাল প্রযুক্তি যত বিকশিত হচ্ছে ডেটা নিরাপত্তার প্রয়োজনীয়তা ততই বাড়ছে এ কথা উল্লেখ করে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন,‘যারা ডেটা চুরি করছে,তারা প্রযুক্তিগত দিক থেকে খুবই পারদর্শী। এই পরিস্থিতিতে আমাদের আইনের পাশাপাশি প্রযুক্তিগত সক্ষমতাও বাড়াতে হবে।’

মোস্তাফা জব্বার বলেন,ডিজিটাল অপরাধ মোকাবেলার বিষয়টি একেবারেই নতুন একটি ধারণা। পরিবর্তিত পরিস্থিতির গুরুত্ব বিবেচনায় সরকার ২০১৮ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করেছে।
তিনি বলেন,প্রযুক্তিগত অপরাধের ব্যাপারে মানুষের মধ্যে ইতোমধ্যে সচেনতা বেড়েছে। পাশাপাশি আইন-শৃঙ্গলা রক্ষায় নিয়োজিত বাহিনী এ বিষয়ে অত্যন্ত সচেষ্ট হওয়ায় অপরাধের মাত্রাও উল্লেখযোগ্য হারে কমছে।
মোস্তাফা জব্বার এসময় উল্লেখ করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্ব এবং তাঁর (প্রধানমন্ত্রীর) দূরদৃষ্টি-সম্পন্ন কর্মসূচি ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ অর্জিত হওয়ার কারণে করোনাকালে নিজ-নিজ গৃহে থেকেও মানুষ ডিজিটাল প্রযুক্তির কারণে মুক্ত জীবনের স্বাদ পাচ্ছে।

তিনি বলেন,‘প্রযুক্তিগত অপরাধ প্রযুক্তি দিয়ে মোকাবেলা করার সক্ষমতা অর্জনেও আমরা আর পিছিয়ে নেই। ইন্টারনেট নিরাপদ রাখতে শক্তিশালী প্রযুক্তিও আমরা অর্জন করেছি।’
মন্ত্রী জানান,ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংগঠিত অপরাধ প্রতিরোধে ২২ হাজার পর্ন-সাইট ও ৪ হাজার জোয়ার সাইট ইতোমধ্যেই বন্ধ করা হয়েছে।
‘বিকাশ’র সিইও কাদির কামাল, বেসিস’র সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির এবং লিগ্যাল কাউন্সিলের কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।