দেশের সব হাফিজিয়া মাদ্রাসা ১২ জুলাই থেকে খোলার অনুমতি দিলো সরকার

 

নিউজ ডেস্ক: দেশের সব হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও হিফজখানা ১২ জুলাই থেকে চালুর অনুমতি দিয়েছে সরকার। তবে এসব মাদ্রাসাকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে। বুধবার (৮ জুলাই) ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও হিফজখানার কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে যায়। এসব মাদ্রাসার নিরবচ্ছিন্ন অধ্যবসায়ের আবশ্যকতার কথা উল্লেখ করে কার্যক্রম চালুর বিষয়ে দেশের আলেমরা আবেদন করেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও হিফজখানা খোলার অনুমোদন দেওয়া হয়।

এরআগে গত ১ জুন দেশের কওমি মাদ্রাসায় ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে অফিস খোলার অনুমতি অনুমতি দেওয়া হয়।

জাতীয় দীনী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের সহ-সভাপতি ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের উপ-পরিচালক (অনুবাদ ও সংকলন বিভাগ) ড. মুশতাক আহমদ বলেন, ২ জুলাই বৃহস্পতিবার জাতীয় দীনী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে মুফতি মোহাম্মদ আলী, মাওলানা ইয়াহয়া মাহমদ, মাও মজিবুর রহমান ও আমি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর কওমি মাদরাসার হিফজখানাসমূহ খুলে দেওয়ার আবেদন করি। ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার রাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী টেলিফোনে হেফজখানা খুলে দেওয়ার বিষয়ে সরকারের সম্মতির কথা জানান। তবে মাদরাসাগুলোকে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ সময় তিনি হেফজখানা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

তবে কবে থেকে মাদরাসাগুলোকে ক্লাস শুরু হবে সে বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনও দেওয়া হয়নি। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। পরে কওমি মাদরাসার বোর্ডগুলো বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবে।