গোপালগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার বসতভিটা দখলের পাঁয়তারা,শঙ্কিত পরিবার

নিউজ ডেস্ক:    গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে সৈয়দ তৈয়ব আলী নামে এক মুক্তিযোদ্ধার বসতবাড়ির জমি জোরপূর্বক দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের নেতৃত্বে এ দখলের পাঁয়তারা চলছে বলে অভিযোগ ওই মুক্তিযোদ্ধার।

পক্ষাঘাতগ্রস্থ মুক্তিযোদ্ধা তৈয়ব আলীর লিখিত অভিযোগে জানান, তিনি ১৯৮৩ সালে কাশিয়ানী সদরে ৩৪ শতাংশ জমি কিনে বসতবাড়ি করে বসবাস করে আসছেন। সম্প্রতি তিনি বাড়িতে টিনের প্রাচীর ভেঙে ইটের প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে স্বপন, তাপস, রনজে, নওশের, সেলিমসহ এলাকার কিছু সংঘবদ্ধ স্বার্থন্বেষী লোকেরা নির্মাণ কাজে বাঁধা দেয়। এরপর থেকে তারা প্রায়ই বহিরাগত কিছু লোকজন এনে তার (মুক্তিযোদ্ধার) বাড়ির জায়গা দখলে নেয়া এবং গাছপালা কেটে ফেলার পাঁয়তারা করছে। তার (মুক্তিযোদ্ধার) ছেলেকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে ওইসব বহিরাগত লোকজন। এছাড়া বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে বিভিন্ন সময় রাতের বেলা বাড়ির জানালা লক্ষ্য করে প্রতিপক্ষের লোকেরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে বলেও তিনি অভিযোগ করেন। এতে চরম শঙ্কার মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা তৈয়ব আলী পরিবার পরিজন নিয়ে দিন কাটাছেন।

মুক্তিযোদ্ধা তৈয়ব আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘যে দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছিলাম। আজ সে দেশে নিজ ভিটায় বসবাস করেও আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। জালিয়াত চক্র আমার বসতভিটা দখলের পায়তারা করছে। তাদের অপতৎপরতায় আমি পরিবার নিয়ে চরম শঙ্কায় রয়েছি। এ চক্র যেকোন সময় আমার পরিবারের ক্ষতি করতে পারে। তাই আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছি।’

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নওশের আলীর সাথে কথা হলে তিনি অভিযোগের বিষয়গুলো অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি জমি নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছিলাম। মামলায় আদালত আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছে । তবে তাদের সাথে জমি নিয়ে বিরোধ নিস্পত্তির জন্য মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে দুইজন লোক পাঠিয়েছিলাম। এ কারণে হয়তো সে আমার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছে।’

কাশিয়ানী থানার ওসি মোঃ আজিজুর রহমান বলেন, ‘অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’