করোনা কালেও মশক নিধনে মসিকের জোরদার ক্রাস প্রোগ্রাম

মো. নজরুল ইসলাম, ময়মনসিংহ:  ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের (মসিক) মশক নিধনে ক্রাশ প্রোগ্রাম গতকাল থেকে শুরু হয়েছে । গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ থেকে শুরু হওয়া মশক নিধন কার্যক্রমের দ্বিতীয় পর্যায়ের এই ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু হয়ে চলবে চলতি মাসের ০৮ তারিখ পর্যন্ত।

এ সম্পর্কে মসিক মেয়র ইকরামুল হক টিটু বলেন, মশক নিধন আমাদের নিয়মিত কাজের একটি অংশ। তবে বর্তমান সময়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এসময় ডেংগুর প্রাদুর্ভাবের ঝুঁকি বেশি থাকে। তাই আমরা আবারো ক্রাশ প্রোগ্রামের মাধ্যমে সকল ওয়ার্ডের সকল স্থানে একযোগে একটি পরিকল্পনার মাধ্যমে মশক নিধনের পরিকল্পনা করেছি।

মেয়র টিটু আরো বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধ ও তার প্রভাব মোকাবেলায় ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের ব্যস্ততা থাকলেও মশক বিশেষ করে ডেংগু সৃষ্টিকারী এডিস মশা নিধনকেও আমরা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করছি।


মশক নিধনে চলমান ক্রাশ প্রোগ্রাম সম্পর্কে মসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এইচ. কে দেবনাথ বলেন, মশক নিধনে টেকনিক্যাল কমিটির পরামর্শ মোতাবেক ১২২ টি হটস্পট চিহ্নিত করা হয়েছে। হটস্পটসমূহকে বিশেষ নজর দিয়ে এই ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় সকল ওয়ার্ডের সকল স্থানে ফগার মেশিন ও হ্যান্ড স্প্রে দিয়ে এডাল্টিসাইড ও লার্ভিসাইড স্প্রে করা হবে।

মসিক খাদ্য ও স্যানিটেশন কর্মকর্তা দীপক মজুমদার জানান, গতকাল থেকে মসিকের ১ থেকে ১৮টি ওয়ার্ডে একযোগে সকাল থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত ২টি করে স্প্রে মেশিন দিয়ে ওষুধ ছিটিয়ে মশার লার্ভা নিধন করা হচ্ছে। প্রতিদিন বিকেল ৪টা সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রতি ওয়ার্ডে ১টি করে ফগার মেশিন দিয়ে উড়ন্ত মশা নিধনে করা হবে। এ কাজ ৪দিন পর্যন্ত চলবে।
এরপর দ্বিতীয় ধাপে ১৯ নং ওয়ার্ড থেকে ৩৩নং ওয়ার্ডে চারদিনব্যাপী একইরূপে কার্যক্রম চালানো হবে। প্রয়োজনে সমসীমা আরো বাড়তে পারে বলে জানান খাদ্য ও স্যানিটেশন কর্মকর্তা দীপক মজুমদার ।