আইসিইউ ও করোনার খালি বেডের তথ্য পাওয়া যাবে ‘আইসিইউ ফাইন্ডার’ ওয়েবসাইটে

ওবায়দুর রহমান সোহান, ঢাবি প্রতিনিধি: বিরাজমান কোভিড সংকটে মুমূর্ষু রোগীদের জন্য বিরাজ করছে আইসিইউ-এর প্রচণ্ড সঙ্কট। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীরা অনেকেই হাসপাতালে ঘুরে ঘুরে চিকিৎসা পাচ্ছেন না স্থান সংকুলান জনিত সমস্যার কারণে।

শুধু তাই নয়, তথ্য ব্যবস্থাপনার অভাবে  রোগীর কাছে পৌছাচ্ছে না তথ্য। রোগীর কাছে তথ্য না থাকায় কোন হাসপাতালে গেলে কোভিড-১৯ বেড ও আইসিইউ সংক্রান্ত সহায়তা পাওয়া যেতে পারে, সেটিও জানা যাচ্ছে না। এমতাবস্থায় অন্তত বর্তমানে থাকা আইসিইউ সুবিধা আর কোভিড-১৯ বিশেষায়িত বেডের তথ্য ব্যবস্থাপনার সমন্বিত সমাধান প্রয়োজন।

এই সমস্যার সমাধান করতে এগিয়ে এসেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশব্যপী বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজের একদল স্বেচ্ছাসেবক। তারা তৈরি করেছে ‘আইসিইউ ফাইন্ডার’ (https://icufinder.web.app) নামে একটি ওয়েবসাইট। যেখানে জানা যাবে, দেশের সকল হাসপাতালের আইসিইউ আর কোভিড-১৯ বিশেষায়িত বেডের মোট সংখ্যা এবং একেকটি হাসপাতালে ফাঁকা থাকা আইসিইউ আর কোভিড-১৯ বেডের রিয়েল টাইম তথ্য।

এই পর্যন্ত এই সাইটে সারাদেশর মোট ১৬৭ টি হাসপাতালের তথ্য যুক্ত করা হয়েছে বলে জানা যায়। সবগুলাে বিভাগের হাসপাতালের তথ্যই সাইেট হালনাগাদ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে আইসিইউ ফাইন্ডারের উদ্যোক্তা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ওমর ফারুক বলেন, বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন ও স্থানীয় প্রতিনিধিদের সাথে কথা বলে প্রাথমিক একটি তালিকা তৈরী করেছি। এই মুহুর্তে আমাদের সাইটে সারােদেশর ২০ টি হাসপাতালের হালনাগাদ তথ্য রয়েছে। যা পাওয়া যাবে ওয়েবসাইেটর “আইিসইউ খুঁজুন” বাটেনর মাধ্যমে।

তিনি আরও বলেন, রিয়েল টাইম বা তাৎক্ষণিক তথ্যের প্রবাহ নিশ্চিত করার জন্য দেশের বিভিন্ন জেলায় পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবক প্রয়ােজন যারা আইসিইউ ও কােভিড-১৯ বেডের লভ্যতা সম্পর্কে হালনাগাদকৃত তথ্য দিয়ে সহায়তা করেবন।

আরেক উদ্যোক্তা বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী আসিব আনজুম বলেন, এই উদ্যোগটিতে দেশের সব আইসিইউর খবর যোগ করেত মেডিকেল কমিউনিটির সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছি আমরা। অর্থ সংকটাপন্ন রােগীেদর কাছে এই ওয়েবসাইটিটর মাধ্যেম হালনাগাদ তথ্য পৌছে দিতে পারে কেবল ডাক্তাররাই।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মী ও তরুণ চিকিৎসকেদর প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি উল্লিখিত ওয়েবসাইেটর “রেজিস্ট্রেশন ” পেইজে নিজর নাম, ফোন নম্বর, ই-মেইল আইিড দেওয়ার জন্য। ওয়েবসাইেটর ডেভলপাররা আপনােদর সােথ যােগাযােগ করেবন। এরই মধ্যে অনেকে আমাদের যােগাযােগ করেছেন। সামািজক যােগাযােগ মাধ্যেমও চলেছ প্রচারণা।