গণতান্ত্রিক বিপ্লব- মুস্তাফা হুসেন

মুস্তাফা হুসেন:  একটি বামপন্থী দলের অফিসে একদিন সন্ধ্যাবেলা বস্তি উচ্ছেদ সম্পর্কিত মুক্ত আলোচনা সভায় বক্তাদের মূল্যবান কথাবার্তার শেষে মতামত জানাতে গিয়ে কিছু কথা বলতে হয়। বক্তব্য ছিল এই রকম: বস্তিবাসীরা বাস করে অন্যের ঘরে ও অন্যের জমিতে। ঘর তাদের নয় আর যে জমিতে তাদের বাস অর্থাৎ ঘর রয়েছে তাও তাদর নয়। সুতরাং দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী জমির মালিক অর্থাৎ সরকার তার নিজের জমি দখল বুঝে নেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছে। কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রের প্রচলিত ও প্রতিষ্ঠিত আইন অনুযায়ী জমির মালিক অর্থাৎ রাষ্ট্রের স্বার্থে তার আইন প্রয়োগকারী ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী ও প্রয়োগকারী সংস্থাকে বলেছে অবৈধ দখলকার অমালকি ব্যক্তিবর্গকে উচ্ছেদ করার জন্য। আমি জানালাম যে এটা তরারা ঠিকই করেছে। কারণ তারা নিষ্ঠাবান কর্মচারীরর মত সরকারি আদেশ পালন করেছে। সবাই হকচকিয়ে উঠল। প্রশ্ন তুললাম, ঢাকা শহরে জমির মালিক কারা? যারাই জমির মালিক হোক, এ শহরে বসবাসকারীর প্রাথমিক অধিকার তাদেরই যাদের শ্রমে ও ঘামে এ শহরকে বাসযোগ্য ও সুন্দর করে তোলা হয়েছে। সুতরাং বস্তিবাসীদের সমস্যা নিরসন করার জন্য প্রথমে নির্ধারণ ও নিশ্চিত করা প্রয়োজন জমির মালিকানার বিষয়টি। মালিকারান বিষয়টি পরিস্কার করা প্রয়োজন। এ মালিকানা কি আলাদা আলাদা ভাবে কতিপয় ব্যক্তির হবেৎ, না সম্মিলিত ভাবে হবে সকলের ? এ প্রশ্নের মিমাংষা না-করা পর্যন্ত বস্তিবাসীদের বসবাসর বা বাসগৃহের সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়।

বাংলাদেশের শাসনতন্ত্রে “৪২(১) আইনের দ্বারা আরোপিত বাধানিষেধ সাপেক্ষে প্রত্যেক নাগরিকের সম্পত্তি অর্জন, ধারণ, হস্তান্তর বা অন্যভাবে বিলিব্যবস্থা করিবার অধিকার থাকিবে এবং আইনের কর্তৃত্ব ব্যতীত কোন সম্পত্তি বাধ্যতামূলক ভাবে গ্রহণ, রাষ্ট্রায়ত্ত বা দখল করা যাইবে না। সম্পত্তিতে ব্যক্তি মালিকানার অধিকারকে নিরঙ্কুশ ও অমোঘ করা হয়েছে। সেখানে ব্যক্তির মালিকানাধীন অথভা ব্যক্তিবর্গের মালিকানাধীন জমিতে অনুপ্রবেশ করে ঘর বেঁধে বসবাস করা অবৈধ ও আইনবহির্ভূত। ব্যক্তিমালিকানাধীন জমিতে অনুপ্রবেশ করে ঘর বেঁধে বসবাস করা অবৈধ ও আইনবহির্ভূত। ব্যক্তিমালিক অথবা ব্যক্তিবর্গ-মালিক তার বা তাদের সম্পত্তিতে বা জমিতে অবৈধ অনুপ্রবেশের বিরুদ্ধে আদালতের কাছে যেতে পারে। কোর্ট, পুলিশ বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে বলতে পারে বাদী বা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের আরজি মোতাবেক অবৈধ অনুপ্রবেশকারীকে প্রয়োজন মাফিক শক্তি প্রয়োগ করে হঠিয়ে দেওয়ার জন্য। বাংলাদেশ সরকার খাস জমি ও ব্যক্তিগত মালিকানার পতিত জমি বেদখল থেকে মুক্ত করে প্রকৃত মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেবে। ব্যক্তিগত-সম্পত্তি-ভিত্তিক সমাজে এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং বস্তিবাসীরা অন্যের মালিকানাধীন জমিতে কুঁড়ে, ডেরা বা ছাপরা তৈরি করে মাথা গুঁজবে তা এ সমাজে কাম্য হতে পারে না। মানবাধিকারবাদীরা বলে থাকেন যে প্রত্যেক মানুষেরই মাথা গোঁজার ঠাঁই পাওয়ার অধিকার এবং এই অধিকার কায়েমের জন্য প্রয়াস চালাবার অধিকারও তার রয়েছে। তার জন্য শ্রমজীবী জনগণের সম্পত্তির মালিকানা যুক্ত নতুন সমাজ গড়ে তোলা দরকার। এই সম্পত্তি মালিকানা রসূত্র ধরেই কমিউনিস্ট পার্টির ইশতেহারের শেষ অংশে আছে ‘এই সমস্ত আন্দোলনে তারা প্রত্যেকটির প্রধান প্রশ্ন হিসাবে সামনে এনে ধরে মালিকানার প্রশ্ন, মালিখানার (অবশ্যই সম্পত্তির মালিখানা-লেখক) বিকাশের মাত্রা তখন যাই থাকনা কেন।’

এই বক্তব্যের পরে একজন তরুণ জানতে চাইল আসলে বক্তা কি বলতে চাইছে। সে বুঝতেই ্পারেনি যে-জমির মালিকানা নিয়ে যখন প্রশ্ন তোলা হয়েছে তখন একজন কমিউনিস্ট হিসাবইে সম্পত্তির মালিকানার প্রশ্নটিকেই সামনে তুলে ধরা হয়েছে। কমিউন্সিট মতাদর্শ অনুরারে সম্পত্তির মালিকানার ব্যবিÍগত রূপকে ধ্বংস করে সামাজিক মালিকানা প্রতিষ্টা করাই হল কমিউনিস্টদের কাজ। এই বক্তব্যটাই হাজির করার প্রয়োজনে শ্রোতাদের চিন্তাকে উস্কে দেওয়াররে জন্যই জমির মালিকানার প্রশ্নটিকে সামনে আনা হয়। তরুণটি মতামত প্রকাশ করল যে, ঢাকা শহরে জমির সিলিং নিয়ে একটা আন্দোলন গড়ে তোলা যায়। তার চিন্তা এর বেশি আর এগায়নি।

কারণ সম্পত্তি মালিকানার বিষয়ে কমিউন্সিট পার্টি নেতৃত্বের চিন্তাই একটি বিশেষ তারে বাঁধা। তরুণ কমিউন্সিট নেতা আগাম ধারণা করতে পারেননি যে, যা-হারে সামাজিক অস্থিরতা বাড়রছে, অবৈধ জমি দখলের সমস্যা দেখা দিচ্ছে, জীবিকা ও অন্যান্য ধান্দায় শহর ও নগরে যে-হারে জনসমাগম হচ্ছে, অন্যদিকে গ্রামীণ কৃষি ও অন্যান্য উৎপাদননী খাতে সামঞ্চস্যহীন শ্রম সরবারহ ঘটছে বা শ্রম সরবরাহের শূন্যতা দেখা দিচ্ছে, চল্লিশ বছরে তৈরি করা যান্ত্রিক কৃষি উপকরণের চাহিদা রোদে-পোড়া কৃষকের চেহারা নিয়ে অপ্রতুল সরবারহের সামনে শূন্য ভান্ড হাতে দাঁড়িয়ে চিন্তা করছে ্গাামী দিনগুলোতে পেটের ভাত যোগাড় হবে কি করে; বিদেশী জ্বালনি তৈল, বীজ কৃষি যন্ত্রপাতির সাহায্যে, তোলা দুধ দিয়ে পোলা বাঁচানোর মত কৃষিকে বাঁচানোর মত কৃষিকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে আগামী দিনগুলোতে পেটের ভাত যোগাড় হবে কি করে; বিদেশী জ্বালানি তৈল, বীজ, কৃষি যন্তপাতির সাহায্যে, তোলা দুধ দিয়ে পোলা বাঁচানোর মত কৃষিকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে যাতে করে পেটের ভাত যোগার-সমস্যার সামাধন করা যায়, তিনি ধারণা করতে ভয় পান ভ‚সম্পত্তিরমালিকানা নিয়ে জনজীবনে আরও বিশৃঙ্খলা (?) দেখা দিলে শান্তিপূর্ণ রাজনীতির পরিবেশে(!) বজায় থাকবে কি না, শোষকগোষ্ঠী দেশটাকে লুন্ঠন করে সা¤্রাজব্যবাদীদের কাছে বিক্রি করে দিয়ে বিদেশে পালিয়ে যাবে কি না ইত্যাদি। গ্যাস ক‚প খননের জন্য উৎপাদনী অংশীদারি চুক্তি করতে গিয়ে যেভাবে গোপনে দেশের স্বার্থ বিকিয়ে দেওয়া হয়েছে তাতে উপরের সম্ভাবনাগুলো জোরদার হয়েছে বেশি, জাতীয় সম্পত্তি ও সম্পদের ওপর জনগণের সার্বভৌম মালিকানা ক্ষুন্ন হবে একথা ভাবতে সকলরেই ভয় হয়।

কয়েকদিন পরে শ্রমিক শ্রেণীর পার্টির মুখপত্র বলে কথিত সাপ্তাহিক পত্রিকায় দেখলাম মুক্ত আলোচনা বিষয়ক সংবাদে সম্পত্তি মালিকানা সম্পর্কে কোন বক্তব্যই ছাপা হয়নি। ‘বাংলাদেশ বিগত তিন দশকের রাজৗণতিক আন্দোলন’ বিষয়কে আলোচান সভায় বলা হয়েছিল, বিগত তিন দশকে বিশেষ করে বিগত আশি বছরে কমিউনিস্ট আন্দোলনের শুরু থেকে আজ পর্যন্ত ভারতবর্ষে তথা বাংলা অঞ্চলে অনেক গণতান্ত্রিক আন্দোলন হয়েছে, অনেক মানুষ অত্যাচার নির্যাতন ভোগ করেছেন, অনেক মানুষ মৃতুবরণ করেছেন কিন্তু গণতান্ত্রিক বিপ্ল সম্পন্ন হয়নি। গণতান্ত্রিক বিপ্লব সম্পন্ন না-হওয়ার কারণ হিসাবে শ্রমজীবী শ্রেণীর পার্টির নেতৃত্ব পর্যায়ে অশ্রমিক ও অচাষী শ্রেণীর লোকদের বিপুল সংখ্যাদিক্য ও প্রাধান্যের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।

এই বক্তব্যের পরে বিশ্বদ্যিালয় পড়–য়া এক মেয়ের বক্তব্য ছিল যে, বাংলায় অনেক গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে অনেক মানুষ মৃত্যু বরণ করেছেন, গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক আন্দোলনের পরে অনেক অনেক পুরাতন রাজনৈতিক ধারার পরিবর্তন হয়েছে, অনেক রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি হয়েছে, সভাসমিতি, সমাবেশ করার অধিকার, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, অনেক রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় এসছে, অর্থাৎ তার ভাষায়গণতান্ত্রিক বিপ্ল সম্পন্ন হয়েছে।

অবশ্য মেয়েটির উপলব্ধি ও প্রশ্নবিদ্ধ ধারণা একবারে ভিত্তিহীন ও অমূরক নয়। পর আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় এসছে তখন নিশ্চয়ই গণতন্ত্র এসছে। বিএনপি জামাতের কর্মী সমর্থকগণ ভেবেছেন দীর্ঘ পাঁচ বছর আওয়আমী লীগ কর্তৃক অত্যাচার নির্যাতনের পর ১৯৭১ এর ‘গন্ডগোল’? এর সময়কার পাকিস্তান ধারণার পক্ষাবলম্বরকারী জামায়াতে ইসলাম সহ বিএনপি যখন আবার ক্শতায় এসছে তখন অবশ্যই গণতন্ত্র এসছে। বিজয়ের আনন্দে সকলেই ভুলে গেছে (১) ১৯৭১ এর খুন, লুটপাট, ধর্ষণ, হয়রানির কথা, (২) ১৯৮৭- তে চট্টগ্রামে গণসমাবেশে পুলিশের গুলিবর্ষণে নিহত মানুষদের কথা; (৩) ১৯৯৪-৯৫ এ সার -এর জন্য কৃসক আন্দোলনে নিহত ১৭ জন মানুষের কথা; (৪) পুলিশ এর ট্রাকের চাপায় নিহত ছাত্র নেতাদের কথা; (৫) ফেনীর অরাজকতা, উত্তরার সন্ত্রাস আর ওসমানি উদ্্যানের সবুজ প্রকৃতির শ্রীহারার বেদনার কথা; (৬) মালিবাগের প্রকাশ্যে রাজপথে পুলিশ আর সন্ত্রাসীদের গুলীতে নিহত মিছিলকারীদের কথা। আমাদের কথার সাথে কাজের সামঞ্চস্য ঘটাতে পারিনি। আমাদের মধ্যে প্রকৃত গণতান্ত্রিক চেতনার উন্মেষ ঘটাতে পারিনি। প্রকৃত উৎপাদক শ্রমিক চাষী ও তাদের পক্ষের বুদ্ধিজীবী তথা কায়িক ও মানসিক শ্রমজীবীদের নিকট উৎপাদন ও বিতরণের উপায় তথা সম্পত্তি ও সম্পদ হস্তান্তরের ঘটনা ঘটেনি।

মার্কস্বাদীদের মতো গণতান্তিওক আন্দোলন ও গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও গণতান্ত্রিক বিপ্লব সম্পর্কে অনেকেরই কোন সুস্পষ্ট ধারণা নেই। অনেকেই দুটি শব্দের অর্থের মধ্যে সীমারেখা টানতে অপরাগ । সভা-সেমিনারে অনেক নাট্যব্যক্তিত্ব বলেন, রাজনীতির ভাষা পরিবর্তন প্রয়োজন। রাজনীতির ভাষা সহজ ও গণমুখি হওয়া দরকার যাতে সাধারণ শ্রমজীবী মানুষ রাজনৈতিক বক্তব্যকে যথাযথভাবে বুঝতে পারে ও গ্রহণ করতে পারে। এটা অনেকেই বলেন যে বামপন্থী অথবা সমাজতান্ত্রীক রাজনীতির ভাষা, যেমন গণতান্ত্রিক বিপ্লব, জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব, জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব ইত্যাদি অনেকেই বুঝতে পারেন না। এ বিষয়ে কিছু কথা পরিস্কার করে বলা দরকার বলে অনেকে মনে করেন।

মার্কসবাদ ও লেনিনবাদ- এর ভাষায় গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংস্কার এবং গণতান্ত্রিক বিপ্লব এক অর্থ বহন করেনা। দুটি খুব কাছাকাছি কিন্তু দুটি আলাদা বস্তু ও আলাদা ঘটনা। সম্পর্কটা এই সূত্রে যে, গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রাম পরিমাণগত রুপ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে গুণগত রুপে পৌছাতে পারে অর্থাৎ গণতান্ত্রিক বিপ্লবে রুপান্তরিত হতে পারে। গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ফলে উপরি-কাঠামোতে লোকভোলানো ছিটেফোটা সংস্কার হয়, যেমন ১৯৩৭ সালে সম্পত্তি মালিকদের ছয় আনা ট্যাক্স-ভিত্তিক ভোটারের ভোটে নির্বাচন হয়। যে ব্যক্তি ছয় আনা ট্যাক্স দিতে পারে কেবল সেই ভোট দিতে পারে। জয়লাভ করে কৃষক শ্রমিক পার্টির নেতা ফজলুল হক বাংলা প্রদেশে মন্ত্রীসভা গঠন করেন। রাজনৈতিক ক্ষমতার কিছুটা পরিবর্তন হয়। এগুলো গণতান্ত্রিক বিপ্লব নয়, গণতান্ত্রিক সংস্কারের ফল। ফজলুল হক-এর নেতৃত্ব যদিও ফ্লাইড কমিশন জমিদারি ও মধ্যস্তত্ব ব্যবস্থা উচ্ছেদের সুপারিশ করেছিলে কিন্তু তখনো জমিদারি ব্যবস্থা উচ্ছেদ হয়নি অর্থাৎ তখনো ভ‚মি-প্রশাসন ব্যবস্থায় পরিবর্তন হয়নি অথবা ভূমি মালিকানা ব্যবস্থায় পরিবর্তন হয়নি। ভূমি মালিকানা ব্যবস্থা মৌলিক পরিবর্তন না হলে দেশের আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক কোন পরিবর্তনকেই গণতান্ত্রিক বিপ্লব বলে ধরে নেওয়া যাবে না। ভ‚মি মালিকানা ব্যবস্থায় মৌলিক পরিবর্তন হলে, প্রথম প্রকার : সকল মধ্যস্বস্তে¡র বিলোপ অর্থাৎ রাষ্ট্রশক্তি ও চাষীর মধ্যে তৃতীয় কোন মালিকানা বা স্বত্বধিকারী না থাকা: দ্বিতীয় প্রকার হল: সকল জমি সরাসরি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীনে নিয়ে আসা।

১৯৪৬ সনে বাংলা অঞ্চলে পাকিস্তান ধারণার পক্ষের (সাম্প্রদায়িক) রাজনৈতিক দল প্রাদেশিক মন্ত্রীসভা গঠন করে। ১৯৪৭ সনের ১৪ আগষ্টের পর উপরোক্ত দলের অধিকতর সাম্প্রদায়িক অংশ পূর্ববাংলা প্রদেশে ক্ষমাতাসীন হয়। কিন্তু তখনো ভ‚মি-ব্যবস্থায় জমিদারি,তালুকদারি ইত্যাদি মধ্যস্বস্ত¡ প্রথা টিকে থাকে। ১৭৬৫ সালে ইংরেজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী মূলত কূটকৌশলের আশ্রয় নিয়ে বাংলার প্রকৃত শাসক-শক্তিতে পরিনত হয়। সে-ঘটনার প্রায় ত্রিশ বছর পরে ১৯৭৩ সালে ভ‚মি ও ভ‚মি রাজস্ব ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনা হয়। চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রবতির্ত হয়। খাজনা/রাজস্ব আদায়ের জন্য জমিদার নিয়োগ করে তাদের সাথে চুক্তিকরা হয়। খাজনা/রাজস্ব আদায়ের জন্য জমিদার নিয়োগ করে তাদের সাথে চুক্তি করা হয়। খাজনা/রাজস্ব আদায়কারীরা মেকি সামন্ত প্রভু সেজে যায়। অল্পকিছুদিনের পূর্বের আমলের রাজা নওয়াবের মত ঠাঁট-বাঁট নিপীড়ন চালায়,রায়ত/প্রজাদের উপকার করতে পারুক আর নাই পারুক! তাদের আচার-আচরণ নকল করে অমিত শক্তিমত্তা ও প্রভ‚ত্বের মহড়া দেয়। রাজা নওয়াবদের সামন্ততান্ত্রিক সংস্কৃতির ঠাঁট-বাঁট (পাতিসামন্ততন্ত্রের সুপাষ্ট্রাকচার বা উপরিকাঠামো) দ্বারা ইংরেজগণও প্রভাবিত হয়েছিল। পাতিসামন্ত সংস্কৃতির উক্ত ধারা পঞ্চাশের দশকের জমিদারি উচ্ছেদ পর্যন্ত চলে। বাংলা অঞ্চলে কোন কালেই ইউরোপিয় ধরনের সামন্ত ব্যবস্থা গড়ে উঠেনি। অন্যের ইচ্ছাকে অবদমিত করে নিজেকে একচ্ছত্র হিসাবে প্রকাশ করায় যে-প্রবৃত্তি বাংলা অঞ্চলের বলপ্রয়োগকারী ভ‚ম্যাধিকারীদিগের মধ্যে দেখা যায় তা সামন্ততন্ত্র নয়; স্বেচ্ছাচারিতা মাত্র। তা বরং পাতিসামন্ততন্ত্র নামক এক উৎপাদন পদ্বতির জন্ম দেয়, যে পাতিসামন্ততন্ত্র নিজের শক্তিপ্রয়োগের সীমারেখায় নিষ্ঠুর স্বেচ্ছাচারী কিন্তু অন্যের এলাকায় ভদ্রচারী। (গণতান্ত্রিক?)।

১৯৫০ সালে জমিদারী ব্যবস্থা অথিগ্রহণ করা হয়। পূর্ব বাংলা থেকে জমিদার-তালুকদারদের মধ্যে সংখ্যায় অত্যন্ত গরিষ্ঠ হিন্দুদেরকে খেদিয়ে তাদের জায়গাজমি হাতিয়ে নেওয়ার জন্য মুসলিম লিগাররা দ্রæত জমিদারি ব্যবস্থা অধিগ্রহণ আইন পাস করে। কিন্তু অন্য সকল মধ্যস্বস্ত¡ উচ্ছেদ করা হয়নি। উল্ল্যখ্য যে-মার্কসবাদী-লেনিনবাদী তত্ত¡ানুসারে ভ‚মি মালিকানায় পরিবর্তন গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের ভিত্তি, একই বস্তুর অর্থাৎ গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের যথাক্রমে অর্থনৈতিক রুপ ও রাজনৈতিক রুপ। অর্থনৈতিক পরিবর্তনটা অবকাঠামো আর রাজনৈতিক পরিবর্তনটা উপরিকাঠামো। রাজতন্ত্র জমিদারতন্ত্র খতম হলে ভ‚মি মানিকানায়ও যেমন পরিবর্তন হয়, রাষ্ট্রব্যবস্থায়ও বংশানুক্রমিকভাবে নির্ধারিত ব্যক্তির স্বেচ্ছায়তন্ত্রের বদলে আসে গুঠিকয়েক অভিাজাতের তন্ত্র অথবা অনেক বেশি সংখ্যক ব্যবসায়ী,পুজিঁপতি, ধনিকের তন্ত্র বা শাসন। রাজনৈতিক গণতান্ত্রিক পরিবর্তন ও অর্থনৈতিক গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের একটি আর একটির পরিপূরক। আসল কথা, ভ‚মি মালিকানার মৌলিক পরিবর্তন বিপ্লবী গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের মূল শর্ত ও ভিত্তি।

গণতান্ত্রিক বিপ্লব হল উৎপাদন ব্যবস্থায় উৎপাদন সম্পর্কের বিপ্লবী গণতান্ত্রিক রুপান্তর। উৎপাদন সম্পর্কে মানে বৈষয়িক সম্পদের উৎপাদন,বিনিময় ও বন্টনের প্রক্রিয়ার জড়িত মানুষের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্কটাই উৎপাদন সম্পর্ক। এটা উৎপাদনের উপায়ের মালিকানায় ধরনের উপর নির্ভর করে। উৎপাদিবা শক্তি এবং উৎপাদন সম্পর্ক মিলে গঠিত হয় উৎপাদন প্রণালী বা উৎপাদন পদ্বতি। সামন্ততন্ত্র তথা বাদশাহ বা স¤্রাটের আনুগত্যাধীন রাজা, নওয়াব,জায়গিরদার, জমিদার ও তালুকদার ও জোতদারদের তন্ত্র বা উৎপাদন ও শাসন-ব্যবস্থার পরিবর্তে ধনিক বণিক শিল্পপতি ও পুঁজিপতিদের তন্ত্রে বা শাসন-ব্যবস্থায় রুপান্তর হলে বুর্জোয়া বা শহরবাসী/নগরবাসী ধনিকদের শাসনে রুপান্তর বা পরিবর্তন, অন্য কথায় এ হলো বুর্জোয়া গণতান্ত্রিক বিপ্লব। গণতন্ত্র কি তা খুব সাধারণ ভাবে এটা এখন সকলেই বুঝে। সাধারন মানুষ বুঝে যে গণতন্ত্র মানে ভোট দেওয়ার অধিকার (অর্থাৎ ভোটতন্ত!)। কিন্তু বিগত পয়শট্টি বছর ধরে ভোটতন্ত্র (১৯৩৫ সনের ভারত শাসন আইন অনুসারে এদেশে প্রথম বিধান পরিষদিয় নির্বাচন হয়) চর্চা হলেও প্রকৃত গণতন্ত্র চর্চাটা জীবন খুব বেশি হয়নি।
হওয়ার কথাও নয়।

বাংলাদেশের চলমান জীবনের গতি-নিয়ন্ত্রক যে-অর্থনীতি তাতে গণতন্ত্র নেই। অনুপস্থিত ভ‚স্বামী জমি পতিত ফেলে রাখে বা চাষ করায়না, বর্গচাষী জীবিকার প্রয়োজনে চাষ করলেও জমি মালিকের তাতে নজর থাকো না, নজর থাকে ফসল পাকার পর ভাগের ভাগ পাওয়ার দিকে, কারখানা মালিক কারখানা লে-অফ বা বন্ধ রাখে, নির্দিষ্ট সময়ে প্রদেয় বেতন বন্ধ রাখে, বেতন দেয় না। কারখানার খাতাপত্র শ্রমিক বেশি দেখিয়ে বাস্তবে কম শ্রমিক নিয়োগ করে ভ‚য়া বিবরণ দাখিল করে কোটি কোটি টাকা ঋণ নেয়, কিন্তু কারখানা বাড়ায় না, অথচ চাষী বা মজুর কাজ পায়না, কাজের অভাবে টাকা রোজগার করতে পারে না, খাদ্য কিনতে পারে না, না খেয়ে মরে। কাজ পাওয়ার অধিকার একটি গণতান্ত্রিক অধিকার। ইউরোপ আমেরিকায় কাজ না-থাকলে সামান্য বেকার ভাতা দেওয়া হয়। অন্যদিকে বাংলাদেশে বেকারভাতা তো দূরের কথা, বেকার শ্রমজীবীর দিকে চোখ পড়বার আগেই চোখ উল্টোদিকে/অন্যদিকে ঘুরিয়ে নেয়া হয়।

উদাহরণস্বরুপ, কালো ধুয়ার দ্বারা পরিবেশ দূষনের অজুহাতে প্রায় বিশ হাজার পুরানো যাত্রীবাহী বাস বন্ধ করে দেওয়া হয়। এতে এক লাখ লোক বেকার হয়। অথচ অধিকাংশ গাড়ির মেশিন থেকে সংশ্লিষ্ট যন্ত্রটি বদলে ফেলে কালো ধূয়া বের হওয়া ক্রটি সারানো যায় বলে অভিজ্ঞ অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারগণ অভিমত প্রকাশ করেন। এতে সংশ্লিষ্ট মালিক গাড়ি পুনসংস্থানের খরচ থেকে তুলনামূলক কম ক্ষতির সম্মূখীন হন। তার চেয়েও বড় কথা, গাড়ির ক্রুটির ব্যাপারে পরিবহন শ্রমিবগণ কোন অবস্থাতেই দায়ী নন। এব্যাপারে শতকরা একশত ভাগ দায়ী হল মালিক, সরকারি কর্তপক্ষ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা ও পুলিশ। পুরানো গাড়ি বন্ধের জন্য সরকার সার্কুলার জারি করে। সার্কুলার জারির সাথে সাথে রাস্তায় রাস্তায় পুলিশ গাড়ি বন্ধের জন্য সরকার সার্কুলার জারি করে। গাড়ি বন্ধের সাথে সাথে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে যায়। অধিকাংশ শ্রমিক অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটায়। এতে শ্রমিকের কাজ করে খাওয়ার গণতান্ত্রিক অধিকার ক্ষুন্ন করা হয়। এটা আন্তর্জাতিকশ্রম আইন সাথে সংগতিপূর্ন নয়। বিষয়টি শ্রম আদালতে বিচারযোগ্য। সরকারী সার্কুলার জারির দিন থেকে চাকরিচ্যুত শ্রমিকগণ ক্ষতিপূরণ পাবার যোগ্য। কিন্তু পাতিসামন্ততন্ত্রী উপরিকাঠামোর পরিবেশ লালিত সরকারি বেসরকারি রাজনীতিবিদ ও ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ এ ব্যাপারে উদাসীন। ১৯৫১ সালে প্রতিষ্ঠিত সর্ববৃহৎ পাটকল বন্ধ নয়, বিলুপ্ত করে দেওয়া হয়। স্থায়ী,অস্থায়ী ও বদলি শ্রমিক সহ প্রায় একত্রিশ হাজার শ্রমিককে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করে মিল কর্তৃপক্ষ দ্বারা আদেশ জারি করানো হয়। মাত্র ২৪ ঘন্টারও কম সময়ের নোটিশে মিলটি স্থায়ীভাবে ‘লে-অফ’ ঘোষনা করা হয়, যা গণতান্ত্রিক শ্রম আইন ও আন্তর্জাতিক শ্রম আইনের সম্পূর্ণ পরিপন্থী।

একত্রিশ হাজার শ্রমিক তার শ্রমশক্তি বিক্রী করার গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে স্থায়ীভাবে বঞ্চিত হয়ে অনিশ্চিত জীবন যাত্রার দিকে পা বাড়ায়। প্রমাণিত হয় যে বাংলাদেশ শ্রমিক শ্রেণীর কোন গণতান্ত্রিক অধিকার নেই। শ্রমিক শ্রেণীর এই গণতান্ত্রিক অধিকার স্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠার জন্য গণতান্ত্রিক বিপ্লব সম্পন্ন করা প্রয়োজন। এমন গণতান্ত্রিক বিপ্লব যাতে কারখানায় পরপর দুই বছর লোকসান দেখা দিলে মালিককে তার মালিকানা বা স্বত্বচ্যুত করে অন্য ব্যক্তির নিকট মালিকানা হস্তান্তর করা যায়। হস্তান্তর প্রক্রিয়ার নির্বাহী আদেশ দাতা হবে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রকৌশলী শ্রমিক কমিটি। মালিকানা হস্তান্তর প্রক্রিয়ার যুক্তিটা এখানে যে, শ্রমশক্তিও যেমন মুক্ত বাজার ব্যবস্থার উপর নির্ভরশীল,উদ্যোগ ও সাংগঠনিক দক্ষতাও (মালিকরা যেমন দাবি করেন) তেমন বাজার অর্থ-ব্যবস্থার উপর নির্ভরশীল হওয়া উচিত। এখানেই গণতান্ত্রিকতা। এ গণতন্ত্র কায়েম করতে পারে কেবল একটি গণতান্ত্রিক বিপ্লব, জাতীয় অনেক নামেই অভিহিত করা যেতে পারে যথা: নয়া গণতান্ত্রিক বিপ্লব, জাতীয় জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব অথবা জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব। এই বিপ্লবে যৌথ নেতৃত্ব দেবে সংগঠিত শ্রমিক শ্রেণীর একটি রাজনৈতিক দল, গণতান্ত্রিক ধনিক শ্রেণীর রাজনৈতিক দল,কৃষক-ক্ষেতমজুরদের রাজনৈতিক দল। তবে গণতান্ত্রিক এই পরিবেশ তৈরি করার জন্য দীর্ঘ রাজনৈতিক কর্ম-প্রচষ্টা প্রয়োজন।

বাংলাদেশের লুটোরা বুর্জোয়া রাজনৈতিক দলগুলো জনসাধারণকে সাধারণ বুর্জোয়া অধিকার দিতেও নারাজ। তারা মৌলিক গণতান্ত্রিক অধিকার অর্থাৎ ব্যাক্তি স্বাধীনতাকে স্বীকার করে না। সন্দেহমূলক ধারনার বাংলাদেশ অধিদপ্তর ৫৪ ধারায় গ্রেফতার ও আটক করে জেলখানায় বন্দি রাখা হয়। কোন কোন সময় আটককৃত ব্যক্তিকে থানা-হাজতে উপযুক্ত বিনামুতিতে ও তাদের অজ্ঞাতসারে রাখা হয়। সুনির্দিষ্ট মামলা ব্যতিরেকে জেলখানায় আটক রাখার সময় আটককৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা তৈরী করা হয়। এগুলো সবই লুটেরা বুর্জোয়াদের রীতিনীতি, সবই গণতান্ত্রিক আচরণ ও নিতীমালার পরিপন্থী।

লুটেরা বুর্জোয়া শাসকঘোষ্টি সর্ববৃহৎ পাটকল বিলুপ্ত করার কয়েকদিন পরই রাজকার্যালয়ে ভাগ-বাটোয়ার চ‚ড়ান্ত ফয়সালা করতে বসে। তিনশত বিশ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত সর্ববৃহৎ পাটকলটি বিলুপ্ত করার প্রেক্ষিতে ভূসম্পত্তি ও অন্যান্য সম্পদ ব্যক্তি মালিকানায় হস্তান্তরের জন্য শিল্পপতি,ব্যবসায়ী,বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ ও সরকার প্রধান মিলিতভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। সর্ববৃহৎ পাটকল বিলুপ্ত করার ফলে শাসক-শোষক গোষ্ঠী এবং শ্রমশক্তি লুন্ঠনকারীদের বৈশিষ্ট্য জনসমক্ষে ধরা পড়ে।
১. ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের এক নেতা বলেন, পচিঁশ হাজার শ্রমিককে জবাই করে ফেলা হয়েছে; কিন্তু যারা পাটকলটিতে বছর দুইশত কোটি টাকা লোকসানের জন্য দায়ী তাদেরকে শাৎিস্ত দেওয়া হয়নি। লোকসানের প্রকৃত কারণ তদন্ত করে দেখা হয়নি।
২. পাটকলটি বিলুপ্ত না করে ব্যক্তি মালিকের বিক্রি করে দেওয়া যেত।
৩. সর্ববৃহৎ পাটকলটি বিলুপ্ত করায় বিষয়ে চলতে থাকা পার্লামেন্ট অধিবেশনে কোন আলোচনা হয়নি।
৪. পাটকল বিলুপ্ত করা প্রসঙ্গে শ্রমিকদের সাথে আলোচনা করে মতামত নেয়া হয়নি।
৫. ত্রিশ-চল্লিশ বছরের অভিজ্ঞ ও দক্ষ শ্রমিকগণ তাদের শ্রমশক্তি বিক্রির বাজার বিলুপ্ত হওয়ার বিষয়ে কোন মতামত রাখতে পারেনি। এটাও মুক্ত বাজার অর্থনীতির পরিপন্থি। উল্লেখিত সবগুলো বিষয়ই শ্রমিক শ্রেনীর গণতান্ত্রিক অধিকারের বিরুদ্ধে। চাষীর চাষ করার জমি ও হাতিয়ার, শ্রমিকের শ্রমশক্তি বিক্রির বাজার তৈরির জন্য একটি গনতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রয়োজন। তার জন্য প্রয়োজন গণতান্ত্রিক বিপ্লব।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক শ্রম আইনের ১৪৮টি ধারার মধ্যে বাংলাদেশ মানে মাত্র ৩২টি। এতদসত্তে¡ও শ্রমিকগণ কারখানা অঞ্চলে মালিকের পার্টিকে ভোট দেয়। গ্রামাঞ্চলে কৃষক, ক্ষেতমজুর সম্পত্তিবান বা জোতদারের পক্ষে ভোট দেয়। ভোট পাওয়ার জন্য সম্পত্তি মালিক, জোতদার ও কারখানা মালিক বৈধ-অবৈধ উপায়ে অর্জিত টাকা, পেশি-শক্তি, সন্ত্রাস, ছল-চাতুরি, মিথ্যাচারের আশ্রয় গ্রহণ করে। ভুলিয়ে ভালিয়ে উস্কানি দিয়ে ভোট আদায় করে। ভোট দেওয়া যদি গণতন্ত্র হয় তা হলে দেখা যায়, কেউদশ টাকা পেয়ে খুশি হয়ে ভোট দিতে যায়, আর কেউ ভোট পাওয়ার জন্য দশ লাখ টাকা খরচ করে সংসদ সদস্য হয়ে খুশি হয় আর রাষ্ট্রীয় যন্ত্র ব্যবহার করে কোটি কোটি কামাইয়ের পথ তৈরি করে। আর কেউ ভোটারদেরকে দশ টাকা পাইয়ে দেওয়ার জন্য মধ্যস্থতা করে খুশি হয়। এই মধ্যস্থকারীরা তৃণমূল পর্যায়ে ধনিক শ্রেণীর দলের রাজনৈতিক কর্মী। এটা হল এখনকার রাজনীতি।
আর অর্থনীতি হল এক দ্রব্যেরই এক এক দোকানে এক এক মূল্য। মুক্তবাজারের অর্থনীতিতে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে বাজার মূল্য নির্ধারিত হয় উৎপাদন খরচ+পুঁজিপতির মুনাফা দিয়ে, ভোগকারীর প্রয়োজন আর চাহিদা দিয়ে নয়। ভোগকারীর ক্রয়ক্ষমতা কম থাকলে বাজারে জিনিস বেশি বিক্রি হয় না। জিনিস বিক্রি না-হলে মুনাফা কম হয়। তখন পুঁজিপতি কারখানা মালিক জিনিস কম উৎপাদন করায়। ভোগ্যদ্রব্যের কৃত্তিম অভাব সৃষ্টি করে। সাথে সাথে জিনিসের দাম বাড়িয়ে দেয়। বাড়তি মূল্য দিয়ে জিনিস বিক্রি করলে কম জিনিসি বিক্রি হলেও কাঙ্খিত মুনাফা পাওয়া যায়। জিনিসের বাজারে পণ্য সরবারহ বেশি থাকলে এক মূল্য, পণ সরবারহ কম থাকলে আর এক মূল্য। সাধারণ ভোগকারী জনগণের চাহিদা কোন মূল্য নেই। জনগণের কোন মূল্য নেই। এখানে গণতন্ত্র নেই, গণের কোন মূল্য নেই। সুতরাং তাদের তন্ত্রেরও কোন মূল্য নেই। জনগণের চাহিদার কোন কোন মূল্য নেই। চাহিদা থাকলেও ক্রয়ক্ষমতা নেই। অবিকাশিত কিলাঙ্গ অর্থনীতির কারণে মানুষেল ক্রয়ক্ষমতা নেই। সর্বত্রই গ্রাম থেকে চলে আসা অনুপস্থিত ভূস্বামী, শহরে সুযোগ-সন্ধানী সুভিধাবাদী লুটেরা অসভ্য জংলিদের রাজত্ব। এরা কারখানার নামের কোটি কোটি টাকা ঋণ নেয় কিন্তু কারখানা বাড়ায় না।

বরং ঋণ নেয়া টাকয় অন্যত্র বিদেশি মালপত্র বেচাকেনার ব্যবসা-বাণিজ্য গড়ে তোলে। বিনা অজুহাতে কারখানা বন্ধ রাখে। লে-অফ করে রাখে। দশ-বিশ বছর চাকরি করা শ্রমিকদেরকে ছাঁটাই করে। (শ্রমিকদের ভাষায়-পেটে লাথ্থি দিয়ে বের করে দেয়।) ধনিকশ্রেণীর বুদ্ধিজীবীরা বলে যে এরই নাম গণতন্ত্র। কিন্তু আসলে এটা ধনিক্েরশনণীর গণতন্ত্র। এখানে মালিকদের মত শ্রমিকদের গণতন্ত্র নেই, কাজ করে খেযে-পরে বেচেঁ থাকার সম অধিকার নেই। মালিকের অধিকার আছে কারখানা স্থাপন করে মুনাফা অর্জন করার। কোটি কোটি টাকা কামানোর। কিন্তু শ্রমিকের সুযোগ ও অধিকার নেই কারখানায় কাজ করে খেটে খাওয়ার। মালিক যে-কোন সময় কাঁচা মালের অভাব দেখিয়ে অথবা অন্য যে-কোন অজুহাতে শ্রমিককে ছাঁটাই করতে পারে বা কারখানা বন্ধ করতে পারে। শ্রমিক মালিককে সেলাম ঠুকলো কি না ঠুকলো তাতে মালিকের কিছু যায় আসে না। কারখানার শ্রমিক ঘন্টার পর ঘন্টা খাটলেই হল, মুনাফা তথা উদ্বৃত্ত মূল্য সৃষ্টি হলেই হল, মালিক এটাই চায়। দিনের পর দিন, মাসের পর মাস এভাবে খাটতে খাটতে শ্রমিক যদি অপুষ্টি ও য²া হয়ে মারাও যায় াততে মালিকের কিছুই যায় আসে না। শ্রমিক বিদ্রোহী হয়ে উঠলে, কায়দা-কানুন করে তাদেরকে দমন করা হয়, দমিয়ে দেওয়া হয় অথবা সামান্য কিছু দিয়ে তুষ্ট করা হয়। এখানে জনগণের গণতন্ত্র নেই। শতকরা পাঁচজন মানে মুষ্টিমেয় কিছু ধনিক লোকেন গণতন্ত্র। বুর্জোয়া গণতন্ত্র।

অন্যদিকে রাজা, নওয়াব, জায়গিরদার, জমিদার, তালুকদার, জোতদারদের রাজত্বে গণতন্ত্র ছিলনা, থাকে না। এরা বক্তির স্বাধীনতাকে স্বীকার করে না। চাষী বা কারিগরকে মানুষ বলেই গণনা করে না। এরা চায় অন্যের নিঃশর্ত আনুগথ্য ও অধীনতা। চাষী বা কারিগরকে মানুষ বলেই গণনা করে না। এরা চায় অন্যের নিঃশর্ত আনুগত্য ও অধীনতা। চাসী বা প্রজা রাজা জমিদার বা ভূস্বামীকে সেলাম না-ঠুকলে তার গর্দান যায়। প্রজা, রাজা বা ভূস্বামীর ধারে কাছে ঘেঁষতে পারতো না। জমিদার বাড়ির সামনে ছাতা মাথায় বা জুতা পায়ে হেঁটে যেতে পারতো না। সঠিক সময়ে সঠিক পরিমানে খাজনা দিতে না পারলে বিষাক্ত শিং মাছÑভরতি কুয়ার পানির মধ্যে গলা পর্যন্ত চুবিয়ে রাখত। বেয়াদবদেরকে বাঁশডলা দিত।

আমাদের দেশে বিগত প্রয়ে একশ বছরের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ফলে অনেক গণতান্ত্রিক সংস্কার সাধিত হয়েছে। ভোটাধিকার ছিল না, ভোটাধিখার হয়েছে। আগে ট্যাক্সদাতাভিত্তিক সীমাবদ্ধ ভোটাধিকার ছিল না, ভোটাধিকার হয়েছে। আগে ট্যাক্সদাতাভিত্কি সীমাবদ্ধ ভোটাধিকার ছিল, তারপর বয়সভিত্তিক প্রাপ্তবয়স্ক ভোটাধিকার হয়েছে। নারীদের ভোটাধিকার ছিল না, নারীদের ভোটাধিকার হয়েছে। গোপন ভোট ব্যবস্থা হয়েছে। এটা এখন সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ছড়িয়ে পড়েছে। বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক সংস্থা ও সংগঠন ভোট-ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদের নেতৃত্বে নির্বাচিত করে। নিরাপত্তা থাকলে যে-কেউ যাকে খুশি তাকে ভোট দিতে পারে। যদিও সন্ত্রাস দিয়ে ভোটারদেরকে প্রভাবিত করা যায়, কিন্তু সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নিরাপত্তার নিশ্চয়তা থাকলে ভোটারদের প্রভাবিত করা যায় না। অবশ্য টাকা দিয়ে ভোট কেনা যায়। ভোটতন্ত্র তার নিরপেক্ষকতায় হারায়। গ্রহণযোগ্যতা হারায়। এভাবে, গণতন্ত্রকার্যকর করার একটি প্রযুক্তি ও যন্ত্রকৌশল (মেকানিজম) তার ব্যবহারযোগ্যতাও হারায়। গণতান্ত্রিক সংস্কারের প্রক্রিয়া অপব্যবহারের ফলে গণতান্ত্রিক বিপ্লবে পরিণত হয় না।
অন্যদিকে, জমিদারি ব্যবস্থা উচ্ছেদের ফলে ও ভোট ব্যবস্থা প্রবর্তনের ফলে

মাতব্বরি ফলাতে চেষ্টা করে। অধঃস্তদেরকে (আদরের ভাব দেখিয়ে) তুই তুকারি করে। অথবা আবার ’কেউ গাছেরও ভাব তলারও কুড়াব’ এই নীতিতে বিশ্বসী হয়ে অনুপস্থিত ভুস্বামী/জোতদার চিসাবে চাষীদের ভাগ বসায়। ডাইনিং টেবিলের সামনে বসে আমাদের বাড়ীর ক্ষেতের আতপ চাউলের প্রশংসা করে। বর্গাচাষী ও ক্ষেতমজুরের মন্তানেরা চাকর দাসী হয়ে খেদমত করে। নারীকে ধর্ম,ভদ্রতা ও সভ্যতা-ভব্যতার ভয় দেখেয়ে সংকীর্ণ পরিবেশে আগলে রাখতে চেষ্টা করে। পুরুষ-প্রধান সমাজে জ্রকাশ্যে স্মার্ট, গণতান্ত্রিক আচরণ-দুরস্ত পুরুষ বাড়িতে গিয়ে বউ পেটায় অথবা বউয়ের সাথে অবনিবনায় বউকে হত্যাও করে। পাতিসামন্ততন্ত্রী+পাতিসুর্জোয়া খিচুরি সংস্কৃতিতে ললিত তরুণ প্রজ¤œ একই পঙ্কিল পরিবেশে বেড়ে উঠা শিশু-কিশোরী-যুবতী নারীর কাছে খোলামেলা ঘনিষ্ঠ হতে পারেনা অথবা িৈবক আকর্ষণে দূরেও ঠেলতে পারেনা। একাধিক সংখ্যায় অথবা দল বেঁধেধর্ষণ করে, তারপর হত্যা করে। এগুলো সবই সামন্ততান্ত্রিক অথবা আরও প্রাচীন বর্বর গোষ্ঠী সমাজের (?) আচার আচরণ, ধনতান্ত্রিক ব্যবস্থাসম্মত নয়, ধনবাদী গণতান্ত্রিক আচরণ নয়। বাংলাদেশে নারীর প্রতি আচরণ মানবিক নয়,গণতান্ত্রিক নয়। এটা বুর্জোয়া ও সা¤্রাজক্যবাদী ঋণদাতা মহাজনদের ও দৃষ্টি আকর্ষণ করে। পুরুষের সাথে নারীর প্রকৃত সম অধিকার ও সম মর্যাদা প্রতিষ্ঠা গণতান্ত্রিক বিপ্লবের একটি আংশ। ২০০২ সনের মার্চ মাসের প্যারিস বৈঠকে যে কতিপয় কারণে দরিদ্র খাতকের বেশে হাজির -হওয়া বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলকে ঋণ-সাহায্য দার অস্বীকার করা হয়, সে-সময় বাংলাদেশে না রী নির্যাতন উল্লিখিত কতিপয় কারণের মধ্যে একটি। বাংলাদেশ ও অন্যান্য দেশের মুসলমান সম্প্রদায়ের নারীগণ তাদের সংস্কৃতি অনুযায়ী বোরখা পরিধান করেন।

তারা মাথার তালু উপরিভাগ থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত কাপড়ে আকৃত করে ঘরের বাইরে বের হন।হাতে ও পাওয় মোজা পরেন অনেক সময় চোখেও কালো চশমা পরেন, যাতে স্বামী ব্যতিত অন্য পুরুষ তার দেহের কোন একটি অংশকেও চোখে দেখতে না পারেন।অনেকে বলেন, এটা স্বাস্থ্য ও ইসলামি বিধিসম্মত। আর অনেকে বলেন যে, নারীও মানুষ, আর মানুষ বলেই তার মাঝেও সকল মানবিক প্রবৃত্তি বিরাজমান থাকে সুতরাং বোরখা পরা নারীও পুরুষকে চোখে দেখতে পারেন। তাতে করে তার মাঝেও স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক মানবিক প্রবৃত্তি কাজ করতে পারে। তিনিও (তার চোখে) সুন্দর পুরুষ দেখে মুগ্ধ অথবা অসুন্দর পুরুষ দেখে বিরক্ত হতে পারেন। তার মধ্যেও পাপবোধ জাগ্রত অথবা সঞ্চারিত হতে পারে। অন্যদিকে এটাও সত্য যে, নারীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে নারীকে, তার দেহকে করে তোলা হয়েছে প্রচারের অস্ত্র। নারীর দেহকে করে তোলা হয়েছে পণ্য। নারীর গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ এই সব বিষয়কে বিবেচনায আনতে শুরু কবেছে। সারা বিশ্বের নারী সমা জেন্ডর-ইস্যুকে সকলের সামনে তুরে ধরেছে। বাংলাদেশের লায়লা সামাদ (প্রয়াত), তসলীমা নাসরিন অথবা জার্মানীর সেই মুসলিম নারী যিনি মাথায় স্কার্ফ পরার জন্য আদালতে মামলা লড়ছেন, সবাই তাদের গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের দ¦ারা অনুপ্রাণিত হয়েই লড়াই করেছেন অথবা করছেন। দেশের ভূস্বামীরা গ্রামের ঠিকানায় সংসদ নির্বাচিত হয়ে বাতীয় সম্পদ লুন্ঠন ও দেশ। বিক্রির কার্যকলাপে শরিক হয়। কিন্তু গ্রামের জমিতে আধুনিক খামার গড়ে তোলেনা।এরা বিষ্ঠাও ত্যাগ করেনা, পথও ছাড়েনা। গ্রামাঞ্চলে নির্জন পায়ে চলা পথে চলতে গিয়ে অনক বর্বর লোককে মল-মূত্র ত্যাগে নিরত থাকতে দেখা যায়। থমকে দাঁড়াতে হয়। পথ চলতে গেলে এদেরকে লাঠি পেটা করে তাড়ানো ছাড়া উপায় নেই। গ্রামের কৃষি থেকে অনুপস্থিত ভূস্বামী ও অকৃষকদেরকে উচ্ছেদ ব্যতিত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার বিকল্প কোন উপায় নেউ রক্ত-বংশগত আভিাজাত্যের শক্তি কিছুটা স্থানান্তরিত হয় শহর ও নগরাঞ্চলে। সামরিক বেসামরিক অমলাতন্ত্রে। ব্যবসা-বাণিজ্যে এবং কিছু পরিমাণে পরদেশী পুজিনির্ভর শিল্পকারখানায়।

গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পরিণতিতে কমবেশি গণতান্ত্রিক সংস্কার হয়। গণতান্ত্রিক সংস্কারের সর্বশ্রেষ্ঠ উদাহরন হল ১৯৫০ এর জমিদারি অধিগ্রহণ আইন। ১৯৫২ সনের ভাষা আন্দোলন, ১৯৭১ সনের ভ‚খন্ডগত রাজনৈতিক স্বাধীনতার আন্দোলন ইত্যাদিও বৃহৎ গণতান্ত্রিক সংস্কারের আন্দোলন। এগুলো বিপ্লব নয়। ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি বহিঃশক্তি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত বলে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব প্রশ্নযোগ্য। রাষ্ট্রীয় স্বধীনতা ও সার্বভৌমত্ব গণতান্ত্রিক বিপ্লবের অবিচ্ছেদ্য বৈশিষ্ট্য। এখানে তাই গণতান্ত্রিক বিপ্লব অসমাপ্ত।

বিপ্লব হাহলে কি? বিপ্লব হল আমূল বা মূলশুদ্ধ বা ভিত্তিসমেত পূর্ণাঙ্গ ও পূর্ণরূপের পরিবর্তন। আর সংস্কার হল প্রচলিত কাঠামো অক্ষুণœ বেখে চলমান পরিবর্তনশীল পরিবেশের সাথে কিছুটা সঙ্গতিক স্বর্থে পুরানো কাঠামোর কিছু কিছু অংশ মেরামত করে নেওয়া। বাংলা অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক ইতিহাসে এর রূপটা কি?

সাইফ শোভন, চিফ রিপোর্টার,ঢাকা নিউজ২৪.কম