পর্যটন নগরী কক্সবাজার রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত

নিউজ ডেস্ক:    পর্যটন নগরী কক্সবাজারে প্রতিদিনই উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছুঁই ছুঁই। রোগীর ক্রম অনুসারে কক্সবাজার সদর ও চকরিয়ায় করোনার প্রাদুর্ভাব বেশিই শনাক্ত হচ্ছে। ফলে কক্সবাজার পৌরসভাসহ জেলার কয়েকটি এলাকাকে ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে চিহ্নিত এসব এলাকায় আগামী দুই সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছেন জেলা প্রশাসক। এ চৌদ্দ দিনের কঠোরতায় করোনার প্রাদুর্ভাব না কমলে প্রয়োজনানুসারে লকডাউনের সময় আরও বাড়তে পারে। ‘রেড জোন’ ঘোষিত এলাকা থেকে কেউ যেমন বাইরে যেতে পারবেন না, তেমন প্রবেশও করতে পারবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন জেলা প্রশাসক ও জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মো. কামাল হোসেন।

জেলা প্রশাসক বলেন,‘রেড জোন’ হিসাবে চিহ্নিত এলাকাগুলো সম্পূর্ণ অবরুদ্ধ থাকবে। প্রয়োজনে লকডাউনকৃত এলাকার নিম্ন আয়ের মানুষকে সরকারিভাবে খাদ্য ও চিকিৎসা সহায়তা দেয়া হবে। করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি কমাতে প্রচেষ্টার কমতি নেই আমাদের। দরকার হলে আরও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। জরুরি কাজের সাথে জড়িতরা রেড জোনে সীমিত আকারে চলাচল করতে পারবেন।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, কক্সবাজার পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১ নম্বর ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডকে ‘ইয়োলো জোন’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বাকি ১০টি ওয়ার্ডকে অতিমাত্রায় করোনা সংক্রমণের ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব স্থানে প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে কমিটি থাকবে। কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলরগণ কমিটির প্রধান হবেন। প্রত্যেক ওয়ার্ড থেকে যুবক, ছাত্র, সমাজকর্মী নিয়ে একটি করে স্বেচ্ছাসেবক টিম গঠন করা হবে। কমিটিতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, সেনাবাহিনীর সদস্য, পুলিশ, স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতিনিধিরা থাকবেন। তারা সার্বিক সহযোগিতা করবেন এলাকাবাসীকে।

যে দুটি ওয়ার্ড ইয়েলো জোন হিসেবে চিহ্নিত সেখানেও সবকিছু চলবে সীমিত পরিসরে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে সকলকে। কক্সবাজার পৌরসভায় কোন ওয়ার্ডকে ‘গ্রিন জোন’ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়নি। কারণ প্রতিদিন পৌরসভার কোন না কোন স্থানে করোনা রোগী মিলছে।

যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড ‘গ্রিন জোন’ হিসাবে চিহ্নিত করা হবে সেখানে সরকারি স্বাস্থ্য বিধি মেনে, সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে অন্যান্য নির্দেশনা মতো প্রায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থাকবে বলে জানান জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।

কক্সবাজার জেলায় এ পর্যন্ত (৪ জুন) ৮৯০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ২০ জন। ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে ঝুঁকিতে। ইতিমধ্যে একজন রোহিঙ্গা মারা গেছেন, ৩০ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।