যুক্তরাষ্ট্রের পথে চীনের বিমানগুলোকে বাধা দেবে ট্রাম্প প্রশাসন!

নিউজ ডেস্ক:    চীনের বিমানসংস্থার বিমানগুলোকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পথে যাওয়া আসার সময় বাধা দেবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন। সেই লক্ষে ট্রাম্প প্রশাসন একটি পরিকল্পনাও হাতে নিয়েছে। খবর নিউ ইয়র্ক টাইমসের।

বুধবার ট্রাম্প প্রশাসন জানিয়েছে যে, যুক্তরাষ্ট্র হয়ে আসা যাওয়া করা চীনের বিমানগুলোকে বাধা দেওয়ার পরিকল্পনা করছে তারা। চীন সরকার ১৬ জুন থেকে মার্কিন বিমানগুলোকে দুই দেশের মধ্যে চলাচলে কার্যকরভাবে বাধা দেওয়ার পর এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে চায় ট্রাম্প প্রশাসন।

বিমান চলাচলে চীনের সঙ্গে এই বিরোধটি শুরু হয় মূলত গত ২৬ মার্চ থেকে, যখন চাইনিজ সরকার মাসের প্রথমের দিকে বিদেশি বিমানের জন্য সপ্তাহে একটি ফ্লাইট চালু করার কথা বলে।

কিন্তু তখন থেকে আমেরিকা ও চীনের মধ্যে চলাচলকারী যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি বিমান সংস্থাই মহামারির কারণে তাদের পরিসেবা বন্ধ করে দেয়। ফলে চীন সরকার তখন কার্যকরভাবে দুই দেশের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান চলাচল নিষিদ্ধ করে দেয়। কিন্তু উল্টো দিকে. চীনের বিমান সংস্থাগুলোর বিমান যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে চলাচল অব্যাহত রেখেছিল।

ডেল্টা এয়ারলাইন্স এবং ইউনাইটেড এয়ারলাইন্স এই মাসে চীনে আবারও ফ্লাইট শুরু করার আশা করেছিল। উভয় সংস্থা চীনের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করলেও কোনও সাড়া পায়নি।

এদিকে, গত ১৪ মে মার্কিন পরিবহন অধিদফতর আমেরিকান বিমানগুলো দুই দেশের মধ্যে চালু করতে অনুমতি দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। যুক্তরাষ্ট্র দাবি করেছিল যে, চীন ১৯৮০ সালের এই চুক্তি লঙ্ঘন করছে। চুক্তি অনুযায়ী, দুই দেশের মধ্যে বিমান পরিচালনা করতে দেশিও বিদেশী বিমানগুলোকে সমান সুযোগ দেবে।

করোনা ভাইরাসের মহামারির ফলে চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা বাণিজ্য যুদ্ধের চেয়ে বেশি দেখা যায়। তারপর আবার হংকংয়ের নিরাপত্তা আইন নিয়ে দুই দেশের উত্তেজনা চরমে উঠে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আর মাত্র ৫ মাস বাকী থাকা অবস্থায়ও ট্রাম্প ও তার দল চীনের বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে। তারা লাগাতার অভিযোগ করে আসছে, বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের মহামারির জন্য চীন দায়ী এবং মার্কিন অর্থনীতি ধ্বংস করার জন্য চীনকে দোষ দিয়েছেন ট্রাম্প।