উপসর্গে কিশোরের মৃত্যু, করোনা নেগেটিভ হলেও ৪৩দিন পরও লাশ নিতে পিতার অস্বীকৃতি

মারফুয়া আক্তার মুনা , ময়মনসিংহ : করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত এবং মৃত্যু নমুনা করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ হলেও আরাফাত হোসেনের (১৭) লাশ গ্রহনও দাফন করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে পিতা। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘরে ফলে ৪৩ দিন যাবত লাশ রাখার পর ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার চরপাড়া (চড়ুইতলা) গ্রামের মজনু মিয়া ৩জুন লিখিতভাবে কোতুয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্তকর্মকর্তাকে লিখিতভাবে জানায় যে, তার ছেলে আরাফাত হোসেনের লাশ গ্রহন করবেন না।

কোতোয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ফিরোজ তালূকদার জানান, দীর্ঘ দিন আরাফাতের লাশ হিমঘরে থাকায় বাবার লিখিত আবেদনের মাধ্যমে লাশ নিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন। পরিবার এবং এলাকাবাসীর নিরাপত্তার কথা ভেবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে আবেদনপত্রে উল্লেখ করা হয়। তিনি আরো জানান, ধর্মীয় নিয়মানুযায়ী মরদেহ দাফনের ৪জনু নগরীর ভাটিকাশর গোরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে।

ময়মনসিংহ সিভিল সার্জন একেএম মশিউল আলম জানান, গত ২০ এপ্রিল ময়মনসিংহ নগরীর এস. কে (সূর্য্য কান্ত) হাসপাতালে করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হয়ে দুই দিন পর ২২ এপ্রিল চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আরাফাত হোসেন (১৭) নামের ঐ কিশোর। মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষায় আরাফাতের শরীরে কোভিড-১৯ ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।