করোনা মোকাবেলায় দেশকে তিন ভাগে ভাগ করা হবে

নিউজ ডেস্ক:    বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাংলাদেশে দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। অদৃশ্য এই ভাইরাস মোকাবেলায় দুই মাসেরও বেশি সময় সারাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছিলো সরকার। যানবাহন চলাচলেও ছিলো নিষেধাজ্ঞা। তবে হঠাৎ এই ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় চিন্তার ভাজ পড়েছে সবার কপালে। এমন পরিস্থিতিতে সংক্রমণ ও মৃত্যুহার অনুযায়ী সারা দেশকে রেড, গ্রিন ও ইয়োলো জোনে ভাগ করার ঘোষণা দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিক।

সোমবার (১ জুন) করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ বিষয়ে করণীয় সংক্রান্ত সমন্বয় সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখনও এ রকম কোনো জোনে চিহ্নিত করা হয়নি। তবে ঢাকা, নারায়াণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রামে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছে। যদি কোনো জোন রেড হয় সেগুলোকে প্রথমে রেড করা হবে।

এরইমধ্যে বাংলাদেশের সব জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। তবে যেসব এলাকায় এখনও এই ভাইরাসের প্রকোপ কম রয়েছে সেইসব এলাকা ভালো রাখার পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

এলাকা ভিত্তিক লকডাউনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জোনের মাধ্যমেই সব করা হবে। যেখানে বেশি সংক্রমিত হবে সেখানে কয়েকদিনের জন্য বন্ধ রাখা হবে। তবে বিশেষজ্ঞরা যেভাবে পরামর্শ দেবে সেভাবেই আমরা কাজ করবো।

দেশে প্রতিদিনকার করোনা পরীক্ষার হার বেড়েছে বলেই সংক্রমণের হারও বৃদ্ধি পাচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, সেজন্য আমরা কয়েকটা জোন মার্কিং করছি। যেমন, রেড, গ্রিন ও ইয়োলো। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ছিল এই জোনগুলোর মধ্যে রেড জোনকে কীভাবে গ্রিন জোন করা যায় সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৯ হাজার ৫৩৪ জন এবং এ যাবত মোট মৃত্যু হয়েছে ৬৭২ জনের। আর মোট সুস্থের সংখ্যা ১০ হাজার ৫৯৭ জনে।