দেশকে চরম বিপদের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে: ফখরুল

নিউজ ডেস্ক:  বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শনিবার বলেছেন, করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকির মধ্যে সরকার সবকিছু আবার চালু করে দেশকে চরম বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, রোববার থেকে কোনো সরকারি ছুটি থাকবে না এবং গণপরিবহনের সেবাও পুনরায় খুলে দেয়া হবে। সরকার প্রথম থেকেই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে আসছে। মনে হয়েছে যে কোথাও সমন্বয় নেই। সিদ্ধান্তগুলো সম্পূর্ণ অপরিপক্ক, অদূরদৃষ্টি সম্পন্ন ও প্রজ্ঞাবিহীন। খবর ইউএনবির

বিএনপি নেতা আরও বলেন, এ সিদ্ধান্তগুলো কোনো রকম চিন্তা ছাড়া একেবারে দায়িত্বজ্ঞানহীনভাবে নেয়া হচ্ছে। আমরা মনে করি (শাটডাউন তুলে নেয়া) একেবারে ভুল সিদ্ধান্ত। দেশকে আরও চরম বিপদের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে।

শনিবার বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ কথা বলেন ফখরুল।

সরকারের পক্ষ থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করা হলেও তিনি জনগণকে নিরাপদ থাকা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং ঘরে থাকার আহ্বান জানান।

ফখরুল বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে জনগণ চিন্তিত। কেননা এখন নতুন করে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা দুইই বাড়ছে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা পর্যায়ক্রমে শাটডাউনটি তুলে নেয়ার পরামর্শ দিলেও সরকার একসাথে সব কিছু পুনরায় চালু করে পুরো দেশকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে।

ফখরুল বলেন, এখন দেশে কোনো গণতন্ত্র নেই। জনগণের মৌলিক এবং মানবাধিকার ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। একদলীয় এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন সরকারের জনগণের সাথে কোনো যোগাযোগ নেই। তারা জনগণের কল্যাণে কোনা কাজ করতে পারে না এবং বিভিন্ন ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে জাতির জন্য বিপদ ডেকে আনছে।

বিএনপি প্রতিষ্ঠাতার মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে তিনি বলেন, তারা এ সংকটময় সময়ে তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী জনগণের পাশে থাকার ও তাদের সহায়তা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

ফখরুল দলের স্থায়ী কমিটির অন্য সদস্যদের সাথে নিয়ে জিয়ার মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন এবং সেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সূরা ফাতেহ পাঠ করেন। এ সময় জিয়ার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করেন তারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু এ সময় উপস্থিত ছিলেন।