করোনা পরবর্তী প্রস্তুতি নিতে হবে: নজরুল ইসলাম

নিউজ ডেস্ক:    বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক মহামন্দার মধ্যে কম মূল্যের পণ্য ও সেবার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে, সেজন্য আমাদেরকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

শনিবার অনলাইনে প্রাসঙ্গিক সংলাপ অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে বিশ্বে কম মূল্যের পণ্য ও সেবার চাহিদা বাড়বে। যারা এসব নিবেন তারাও অর্থনৈতিক সঙ্কটে পড়েছে। যেহেতু আমাদের কম মূল্যের পণ্য উৎপাদন ও সেবা দেওয়ার অভিজ্ঞতা আছে-এই সুযোগ নিতে পারলে কর্মসংস্থান কমবে না বরং বাড়তে পারে। যদি আমরা প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি,উদ্যোগ ও প্রশিক্ষণ নিতে পারি। আমরা অবিলম্বে এই কাজ শুরু করতে পারি। মনে রাখতে হবে সব কাজেরই একটি সময়-অসময় আছে।

তিনি বলেন, কলকারখানা, শিল্প প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন বন্ধ রাখা মুশকিল হবে। হয়ত চালু করতে হবে। সেটা কখন কীভাবে করতে হবে সেজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি না নিয়ে খুলে দিলে সঙ্কট আরো ঘনীভূত হবে। জীবন ও জীবিকা উভয়ই গুরুত্বপূর্ণ। জীবন ছাড়া জীবিকা অর্থহীন, আবার জীবিকা ছাড়া জীবন অসহনীয়।

বিশ্ব পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ঘোষিত ভিশন-২০৩০ কার্যকর করতে ও দেশের চলমান পরিস্থিতিতে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির উদ্যোগ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ভিশন-২০৩০ তে মানব সম্পদ উন্নয়ন, শিক্ষাখাতে জিডিপির ৫ শতাংশ, স্বাস্থ্য ও পল্ট্রি খাতে ৫ শতাংশ বরাদ্দের কথা বলা হয়েছে। এটা কার্যকর করা হোক। স্বাস্থ্য খাতে অপ্রতুল বরাদ্দের ফল আমরা ভোগ করছি। ভিশন ২০৩০ ও মানব সম্পদ উন্নয়ন করতে পারলেই সঙ্কটের সমাধান সম্ভব।

বিএনপির কমিউনিগেশন সেলের প্রধান সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপনের পরিচালনায় এই অনুষ্ঠানের আজ ছিল দ্বিতীয় পর্ব। দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে দেশি-বিদেশি সবার উদ্দেশ্যে দলের অবস্থান তুলে ধরে সরকারের কাজের ভুলত্রুটি ধরিয়ে দিয়ে তথ্যভিত্তিক সমালোচনা করবেন। এই সংলাপ থেকে দলের নীতিনির্ধারণী বার্তাও দেওয়া হচ্ছে।