কয়রায় বাঁধ মেরামতে কাজ করছে সেনাবাহিনী

নিউজ ডেস্ক:    খুলনার কয়রায় ঘূর্ণিঝড় আম্পানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ভেঙে যাওয়া তিনটি স্থানের বাঁধ মেরামতের জন্য সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। শনিবার থেকে ভেঙে যাওয়া হরিণখোলা, উত্তরবেদকাশি গাজীপাড়া ও রত্মাঘেরি এলাকার বাঁধ মেরামত কাজ শুরু করেছে সেনা সদস্যরা।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যাটালিয়নের সদস্যদের সঙ্গে আরও দুটি ব্যাটালিয়নের ৩৫০ জন সদস্য বাঁধ মেরামতে সার্বিক সহযোগিতায় নিযুক্ত রয়েছেন।

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে বুধবার রাতে উপজেলার ওই তিনটি স্থানসহ পাউবোর লোকা, দশহালিয়া, গোলখালি, আংটিহারা, মাটিয়াভাঙ্গা ও চরামুখা বাঁধ ভেঙে যায়। এতে চারটি ইউনিয়নের কমপক্ষে ৩৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে পড়ে।

এর আগে পাউবোর সরাসরি তত্বাবধায়নে ভেঙে যাওয়া বাঁধের ওইসব স্থানে প্রায় এক কোটি টাকা বরাদ্দে সংস্কার কাজ করা হয়েছিল। স্থানীয়দের অভিযোগ, কাজের মান ঠিক না হওয়ায় বুধবার রাতের দুর্যোগে অতি সহজে বাঁধগুলি ভেঙে যায়। যে কারণে বাঁধটি রক্ষার জন্য সেনা মোতায়েনের দাবি করেছিলেন স্থানীয়রা। মানুষ।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মাদ খালিদ কামাল জানিয়েছেন, তারা ভেঙে যাওয়া বাঁধের তিনটি স্থান মেরামত করবেন। কাজের অংশ হিসেবে শনিবার সকাল থেকেই হরিণখোলা এলাকায় একটি ডামি বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাঁধগুলি মেরামত কাজ শেষ করবেন তারা।

এদিকে শনিবার কয়রার ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। এসময় তিনি বলেছেন, প্রাথমিকভাবে ভেঙে যাওয়া বাঁধগুলি সংস্কারে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেনা মোতায়েন হয়েছে। পরবর্তীতে কয়রা উপজেলাসহ উপকূলীয় এলাকার বেড়িবাঁধ স্থায়ীভাবে সংস্কারের জন্য মন্ত্রীসভায় অনুমোদিত মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

তিনি জানান, কয়রা উপজেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতাধীন ১২১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ স্থায়ীভাবে মেরামতের জন্য সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ একনেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।