নিজ পুকুরের মাছ উপহার দিয়ে গ্রামের অসহায় মানুষের দাঁড়ালো ঢাবি শিক্ষার্থী

ঢাবি প্রতিনিধি

করোনা ভাইরাসে সমগ্র পৃথিবীর মত বাংলাদেশও এক সঙ্কটময় অবস্থার মধ্য দিয়ে সময় অতিক্রম করছে। এমন পরিস্থিতিতে দেশের প্রায় অধিকাংশ মানুষই কর্মহীন হয়ে পড়েছে। সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে নিম্ন অায়ের শ্রমজীবি মানুষেরা। এমন সময় দেশের প্রশাসন থেকে শুরু করে ছাত্রসমাজ পর্যন্ত নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী যেমন: চাল, ডাল, তেল, অালু ইত্যাদি বিতরণ করে তাদের খাদ্যের চাহিদা পূরণের জন্য এগিয়ে আসছে।

এবার, নিজেদের পুকুরের মাছ, ছোট বাচ্চা শিশুদের জন্য গরুর দুধ, সবজি উপহার দিয়ে ব্যাতিক্রম উপায়ে নিজ গ্রামের কর্মহীন, খেটে-খাওয়া এবং অসহায় পরিবারের পাশে দাড়িয়ে অনন্য এক দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অপূর্ব চক্রবর্তী।

আজ রবিবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে তার নিজ জেলা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার তিনটি গ্রামের (পীড়ার বাড়ি, মুশরিয়া, ভূতের বাড়ি) বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রায় ১৮০ টি পরিবারের কাছে নিজেদের পুকুরের মাছ, ছোট বাচ্চা শিশুদের জন্য গরুর দুধ, সবজি, সাবান এবং স্যালাইন ইত্যাদি সম্বলিত উপহার সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন তিনি।

এই ব্যাতিক্রম উদ্যোগ প্রসঙ্গে অপূর্ব চক্রবর্তী বলেন, আমার এটা কোন ত্রাণ কার্যক্রম নয়।আমার সামর্থ্য অনুযায়ী গ্রামের পর্যদুস্থ পরিবারের জন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিজেদের পুকুরের মাছ, ছোট বাচ্চা শিশুদের জন্য গরুর দুধ, সবজি, সাবান এবং স্যালাইন উপহার দিচ্ছি।এই কার্যক্রমে ব্যক্তিগতভাবে তেমন বেশি খরচ হয় নি। আমাদের একটু ইচ্ছা থাকলেই দেশের ক্রান্তিকাল সময়ে দেশের মানুষের পাশে দাড়ানো সম্ভব।

তিনি আরোও বলেন, আমরা অামাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে একে অপরের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেই এই পরিস্থিতি অতিক্রম করা সম্ভব বলে মনে করি। আমি সকলের কাছে আহ্বান জানাই, সকলে ঐক্যবদ্ধতার সাথে সাহায্যের জন্য এগিয়ে অাসুন, তাহলেই ভাইরাস থেকে মুক্তি পাব এবং এক নতুন সকাল দেখতে পাব।