ঢাবির অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ালো ডাকসুর সাংস্কৃতিক সম্পাদক

ঢাবি প্রতিনিধি

ব্যক্তিগত উদ্যোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনামূলক অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের পাশে দাড়িয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ ডাকসু’র সাংস্কৃতিক সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাহিত্য সম্পাদক আসিফ তালুকদার।

নিজ উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী, বন্ধু এবং বিভিন্ন জনা থেকে অনুদান সংগ্রহ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১২৫ জন শিক্ষার্থীকে খাদ্য সামগ্রীসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন। শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত ম্যাসেজের মাধ্যমে তালিকা করে এই উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে জানা গেছে।

এছাড়াও, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ ডাকসু’র স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী এবং সদস্য রফিকুল ইসলাম সবুজের উদ্যোগে তৈরীকৃত ‘মিশন ডিইউ ফ্যামিলি’ (Mission DU Family) নামে স্বেচ্ছাসেবী প্লাটফর্মে যুক্ত হয়ে ঢাবির অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের পরিবারের পাশেও দাড়িয়েছেন ডাকসুর এই নির্বাচিত প্রতিনিধি।

পাশাপাশি গাইবান্ধা জেলা ছাত্রলীগের সহযোগিতায়, জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার কিছু অসহায়, অনাহারী, খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষের খাবারের ব্যবস্থাও করেছেন তিনি।

এর আগে, করোনা ভাইরাসের কারণে ঘোষিত ছুটির কারণে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় ঘরে আটকা পরা এক মা সন্তানকে দুধ না খাওয়াতে পেরে আকুতি জানিয়েছিলেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতে সাড়া দিয়ে তার জন্যে বাচ্চার দুধ ও খাবার পাঠিয়েছে অসহায় মায়ের পাশে দাড়িয়েছেন তিনি।

শিক্ষার্থী এবং দেশের সাধারণ মানুষের জন্য তার এই কর্মকান্ড প্রসঙ্গে ডাকসুর সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার বলেন, আমাদের সবার কাজের ধরণ ভিন্ন হতে পারে কিন্তু লক্ষ্য একটাই, সেটি হলো করোনা সংকটে শিক্ষার্থী বন্ধুদের পাশে থাকা৷ আমরা আমাদের সামর্থের সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করছি শিক্ষার্থীদের পাশে থাকতে৷ আমরা আহ্বান জানাবো এই সংকটে প্রত্যেকে তার পাশের মানুষটির দিকে ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দেয়। আমার নিজের যতটুকু সামর্থ আমি তার সর্বোচ্চ করছি৷

তিনি আরোও বলেন, শিক্ষার্থীদের এমন সংকটে আমার পরিচিত বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসকল শ্রদ্ধেয় অগ্রজদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছি তারা প্রায় সবাই সামর্থ অনুযায়ী খুবই আন্তরিকতার সাথে এগিয়ে আসছে। পাশাপাশি দেশব্যাপী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পরিবারের কাছে আমি কৃতজ্ঞ যারা আমার অনুরোধে স্ব স্ব ইউনিটের অন্তর্গত আমাদের শিক্ষার্থী বন্ধুদের দিকে ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে৷