আর্থিক প্রণোদনা চান পরিবহন মালিকরা

নিউজ ডেস্ক:    করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকারি সিদ্ধান্তে গণপরিবহন বন্ধ রাখায় দৈনিক ৫০০ কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে বলে দাবি করেছেন পরিবহন মালিকরা। লোকসান পোষাতে সরকারের কাছে আর্থিক প্রণোদনার দাবি জানিয়েছেন তারা।

বুধবার বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ ও মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ যুক্ত বিবৃতিতে এ দাবি জানিয়েছেন। এতে বলা হয়েছে, গত ২৬ মার্চ থেকে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়েছেন চালক-শ্রমিকরা। তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

লকডাউনের অংশ হিসেবে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের নির্দেশে আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে গণপরিবহন। এতে যেসব চালক-শ্রমিক দৈনিক মজুরিতে কাজ করেন তাদের আয়-রোজগার পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। এমন শ্রমিকদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ ও খন্দকার এনায়েত উল্যাহ।

দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচল করা বাসপ্রতি একজন শ্রমিককে পাহারার জন্য দিনে খোরাকি বাবদ ৩০০ টাকা দিচ্ছেন মালিকরা। বাকি শ্রমিকরা বেকার হয়ে পড়েছেন। অটোরিকশা, লেগুনাসহ অন্যান্য যাত্রীবাহী যানের শ্রমিকরাও কর্মহীন। এ ছাড়া পরিবহন খাতের সঙ্গে সম্পৃক্ত শ্রমিক, কর্মচারী, ওয়ার্কশপ-গ্যারেজ মেকানিকরাও বেকার হয়েছেন। যাত্রী কল্যাণ সমিতি নামে সংগঠনের হিসাব অনুযায়ী করোনার কারণে পরিবহন ও সংশ্নিষ্ট খাতের ৯০ লাখ চালক-শ্রমিকের ৯৮ শতাংশ কাজ হারিয়েছেন।

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে অসহায় পরিবহন শ্রমিকদের পরিবারের প্রতি সহায়তার হাত বাড়ানো একান্ত জরুরি। ক্ষতি বিবেচনায় এ খাতের মালিক-শ্রমিকদের জন্য বিশেষ প্রণোদনাও দরকার।