ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি শুরু

নিউজ ডেস্ক :   ভারত রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় দীর্ঘ সাড়ে ৫ মাস পর দেশের স্থলবন্দরগুলো দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে।  হিলি, বেনাপোল ও ভোমরা স্থলবন্দরগুলো দিয়ে দেড় শতাধিক পেঁয়াজভর্তি ভারতীয় ট্রাক প্রবেশ করে।

হিলি প্রতিনিধি জানান, রবিবার  বিকেল পৌনে ৪টা থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়। এদিকে, দীর্ঘদিন পর পেঁয়াজ আমদানি শুরু হওয়ায় হিলি স্থলবন্দরে কর্মচাঞ্চল্য ফিরতে শুরু করেছে।

হিলি স্থলবন্দরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক হারুন উর রশীদ হারুন ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মাহবুব হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ভারত সরকার রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ফলে দেশটি থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি চেয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রে হিলি স্থলবন্দরের বেশ কয়েকজন আমদানিকারক আবেদন করি। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ৪/৫ জন আমদানিকারক পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি পেয়েছি। আনুষঙ্গিক কাজ শেষ হওয়ায় সকাল থেকে ভারতের হিলি কাস্টমসে পেঁয়াজ রফতানির উদ্দেশ্যে টেন্ডার প্রক্রিয়াসহ অন্যান্য কার্যক্রম সম্পূর্ণ হওয়ার পর বিকেল পৌনে ৪টায় পেঁয়াজ রফতানি শুরু হয়। এ পর্যন্ত আমরা খবর পেয়েছি, ভারতের হিলিতে ২৫/৩০ ট্রাকের মতো পেঁয়াজ এসেছে, যা ভারতের হিলি পার্কিংয়ে অবস্থান করছে। বিকাল ৪টা পর্যন্ত বন্দর দিয়ে ৪টি ট্রাকে ৯২ টন পেঁয়াজ ঢুকেছে। পর্যায়ক্রমে বাকি পেঁয়াজগুলো দেশে প্রবেশ করবে। আর দীর্ঘদিন পর আমদানি শুরু হওয়ায় দেশের বাজারে পেঁয়াজের দামের যে ঊর্ধ্বমুখী অবস্থা দাঁড়িয়েছিল, সেটি কমে আসবে।

তিনি আরও বলেন, বাজারে দেশি পেঁয়াজের দামের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে।

হিলি স্থলবন্দরে ঢুকেছে ভারতীয় ট্রাকভর্তি পেঁয়াজএদিকে, হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় পেঁয়াজভর্তি ট্রাক ঢুকলেও এখনও ক্রেতা পাননি আমদানিকারকরা। এ বিষয়ে আমদানিকারক মাহবুব হোসেনকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য টনপ্রতি ২৫০ থেকে ৩০০ ডলার দরে এলসি খুলেছি। ফলে আমাদের আনা পেঁয়াজের দাম পড়ে গেছে ২১ থেকে ২৫ টাকার মতো। এরসঙ্গে গাড়িভাড়াসহ অন্য খরচ ও লভ্যাংশ যোগ করলে আমাদের আমদানির পেঁয়াজের দাম পড়বে ৩০ টাকার মতো। বাজারে এ মুহূর্তে দেশি পেঁয়াজ উঠছে। তাই এখন পর্যন্ত কোনও ক্রেতা আসেনি। আশা করছি ক্রেতা পাওয়া যাবে।

বেনাপোল প্রতিনিধি জানান, বেনাপোল বন্দর দিয়েও পেঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। রবিবার (১৫ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৪ টার সময় ৩টি ট্রাকে ৯১ মেট্রিক টন পেঁয়াজ ভারত থেকে বাংলাদেশে আমদানি হয়েছে। দুটি কনসারমেন্টে এই পেঁয়াজ আমদানি হয়।

বেনাপোল চেকপোস্ট উদ্ভিদ সংগনিরোধ কোয়ারেন্টাইনের উপ-সহকারী কর্মকর্তা হেমন্ত কুমার ভারত থেকে ৯১ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রসঙ্গত, অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির অজুহাত দেখিয়ে গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত সরকার পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়। সম্প্রতি ভারতে উৎপাদন ভালো হওয়ায় এবং সরবরাহ বাড়ায় ২৬ ফেব্রুয়ারি পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে ২ মার্চ এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়। তাতে ১৫ মার্চ থেকে পেঁয়াজ রফতানির কথা বলা হয়।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির সবচেয়ে বড় পয়েন্ট হচ্ছে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থল বন্দর। প্রথম দিনে এই বন্দর দিয়ে ৮৮ ট্রাকে পেঁয়াজ প্রবেশ করেছে। এতে ১ হাজার ৯৩৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে।

সাতক্ষীরা ভোমরা শুল্ক স্টেশন কাস্টমসের সহকারী কমিশনার রেজাউল করিম বলেন, ভোমরা বন্দর দিয়ে প্রথম দিনে ভারত থেকে ৮৮টি ট্রাকে করে ১ হাজার ৯৩৮ মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে।