দিল্লি বাসে গণধর্ষণের ঘটনায় ৪ জনের ফাঁসি কার্যকর

নিউজ ডেস্ক :   ভারতে শুক্রবার চারজনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। ২০১২ সালে দিল্লির একটি বাসে এক নারীকে গণ ধর্ষণের পর হত্যা করার দায়ে ফাঁসি দিয়ে তাদের এ দন্ড কার্যকর করা হলো। ওই হত্যার ঘটনায় সে সময় দেশব্যাপী ব্যাপক বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমালোচনার ঝড় উঠে। খবর এএফপি’র।

কারাগার প্রধান সন্দীপ গোয়াল এএফপি’কে বলেন, ভারতের রাজধানী দিল্লির তিহার জেলখানায় ভোরের দিকে এ চারজনকে ফাঁসি দেয়া হয়। ২০১৫ সালের পর এটি ভারতের প্রথম মৃত্যুদন্ড কার্যকরের ঘটনা।

গোয়াল বলেন, ‘স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে পাঁচটায় এ চার আসামীর সকলের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।’

জ্যোতি সিংয়ের ওপর এ নারকীয় হামলার ঘটনায় ভারতজুড়ে কয়েক সপ্তাহ ধরে ব্যাপক বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। এটা নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সমালোচনার ঝড় উঠে।

মৃত্যুদন্ড কার্যকর হওয়ায় শুক্রবার সকালে ওই কারাগারের বাইরে লোকজনকে আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা যায়।

গণ ধর্ষণের শিকার হয়ে প্রাণ হারানো মেয়েটির মা আশা দেবি কারাগারের বাইরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাত বছর পর আমার মেয়েকে হত্যার ন্যায় বিচার পাওয়ায় আমরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি।’

দিল্লির বাসিন্দা মীনা শর্মা এএফপি’কে বলেন, ‘আজ ভারতের সকল নারী ন্যায় বিচার পেয়েছে।’‘আমি রাত ৩টার দিকে এখানে এসেছি। আমাদের জন্য আজ অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন হওয়ায় আমি এখানে অবস্থান করি।’

২৩ বছর বয়সী সিং ২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ছেলে বন্ধুর সঙ্গে সিনেমা হল থেকে বাড়ি ফেরার সময় তারা দিল্লির একটি বাসে উঠেছিল। পরে সিং ওই বাসে গণধর্ষণের শিকার হয় এবং শেষ পর্যন্ত তাকে প্রাণ হারাতে হয়। বাসটিতে পাঁচ ব্যক্তি ও ১৭ বছরের এক বালক ছিল।