আপাতত স্কুল-কলেজ বন্ধ হবে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:   করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের স্কুল-কলেজ বন্ধের মত পরিস্থিতি এখনও সৃষ্টি হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক।তিনি বলেন, স্কুল-কলেজ স্বাভাবিকভাবে চলবে। আপাতত স্কুল বন্ধ হবে না। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা হবে। এ ভাইরাস নিয়ে মানুষ যতটা আতঙ্কিত, আসলে বিষয়টা এতো আতঙ্কের নয়। তবে এই ভাইরাস নিয়ে রিউমার যেন না ছড়ায়, এজন্য আমাদের যত্নশীল হতে হবে।

 সোমবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত এক বৈঠকে এ কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

জাহিদ মালেক বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিশেষ করে স্কুলে হ্যান্ড সানিটাইজার ব্যবস্থা করা হোক। এই মেসেজটা শিক্ষার্থীরা তাদের পরিবারের কাছেও নিয়ে যাবে।এখনকার জন্য এই নির্দেশনা, পরে অন্য নির্দেশনা এলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় তা জানাবে, আমরা সাহায্য করব।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে আমরা জানুয়ারি মাস থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছি। এয়ারপোর্টে নতুন করে ২টি স্ক্যানার বসানো হয়েছে। এই নিয়ে ৬টি স্ক্যানার বসানো হয়েছে এয়ারপোর্টে। তিনটি কমিটি করেছি, জাতীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে। আমরা আশঙ্কায় ছিলাম যেকোনো সময় আমরা আক্রান্ত হতে পারি। রবিবার রোগী শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রী দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন।

বিদেশ থেকে যারা আসছেন তাদের উদ্দেশে জাহিদ মালেক বলেন, প্রয়োজন ছাড়া দেশে আসবেন না আপনারা। যদি আসতেই হয় তাহলে এসে সেলফ কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন। প্রয়োজনে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। আমাদের মেডিকেল টিম গিয়ে আপনাকে পরীক্ষা করবে।

তিনি বলেন, বিদেশফেরত বিশেষ করে করোনাভাইরাসে বেশি আক্রান্ত ইতালি ও দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলো থেকে আসা বাংলাদেশিদের বিশেষভাবে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তাদের পরীক্ষার মাধ্যমে প্রয়োজন হলে কোয়ারেন্টাইনে (সংক্রমণরোধে আলাদাভাবে) রাখার ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ঢাকায় ৪০০ বেড প্রস্তুত করা হয়েছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ডাক্তার ও নার্সদের প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। প্রটেক্টিভ গ্লাফস জাতীয় জিনিসগুলো বড় আকারে মজুদ করা হবে। ইতালি, কোরিয়া থেকে আসা মানুষদের আলাদা পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। বাসস