খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়ে আদেশ আজ

নিউজ ডেস্ক:    বহুল আলোচিত জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর হাইকোর্টে শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার আদেশ দেওয়া হবে। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গত রোববার এ দিন ধার্য করেন।

আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী বুধবার খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। তবে আর্থ্রাইটিসের উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি সম্মতি দেননি বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। এমন প্রেক্ষাপটে আইনি লড়াই ও রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারণে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন বিএনপির নীতিনির্ধারক নেতা ও আইনজীবীরা। প্রস্তুতিমূলক বৈঠক করেছেন সরকারপক্ষের আইনজীবীরাও। আবার যে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও।

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর জামিন আবেদনের ওপর আদেশকে কেন্দ্র করে সবার চোখ আজ উচ্চ আদালতের দিকে। খালেদা জিয়া কি জামিন পাবেন? নাকি আবেদন খারিজ হয়ে যাবে? এ নিয়ে জনমনে রয়েছে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা। বিএনপি নেতা ও আইনজীবীরা বলছেন, ন্যায়বিচার পেলে খালেদা জিয়া জামিন পাবেন বলে আশাবাদী। তবে দুদকের আইনজীবী বলছেন, তার জামিন পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) থেকে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসংক্রান্ত সিলগালা প্রতিবেদন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয়ে পাঠানো হয়। বিএসএমএমইউর একজন আইন কর্মকর্তা খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসংক্রান্ত সিলগালা করা প্রতিবেদন রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। রেজিস্ট্রার জেনারেল প্রতিবেদনটি হাইকোর্টের আদেশ প্রদানকারী বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন স্পেশাল অফিসার সাইফুর রহমান। আজ বৃহস্পতিবার এ প্রতিবেদনের ওপর আদেশ দেবেন হাইকোর্ট।

রাজনৈতিক বিশ্নেষকদের কেউ কেউ বলছেন, ‘রাজনৈতিক সমঝোতা’ হলেই কেবল খালেদা জিয়া জামিন পেতে পারেন। কেউ-বা বলছেন, স্বাস্থ্যগত প্রতিবেদনের ওপরই নির্ভর করছে আদালতের আদেশ। এর মধ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে টেলিফোন করায় সমঝোতার বিষয়কেও গুরুত্ব দিচ্ছেন অনেকে।