অবশেষে সেই ডালিম র‌্যাবের খাঁচায়

সিলেট প্রতিনিধি :: সিলেটের বহুল আলোচিত সেলিম হত্যা মামলার প্রধান আসামি ডালিম মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-৯। সোমবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর শামিমাবাদ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নগরীর শিবগঞ্জ মজুমদার পাড়া এলাকা হতে একই মামলার এজাহারভূক্ত আসামি মো. রাজীব হোসেন ওরফে রাজুকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জানা গেছে, মামলার প্রধান আসামি ডালিম গ্রেপ্তার এড়ানোর উদ্দেশ্যে পুরান ঢাকায় বুড়িগঙ্গা নদীর পাড়ে একটি পলিথিন উৎপাদনকারী কারখানায় কিছুদিন চাকরি করে এবং সর্বশেষ সুনামগঞ্জের ছাতকে মাটিকাটার শ্রমিক হিসেবে কাজ করার আড়ালে আত্মগোপন করেছিলেন। ডালিম একাধিক হত্যার মামলারও আসামি। মাদক ব্যবসা, ছিনতাইসহ অন্যান্য অভিযোগেও তার বিরুদ্ধে অনেক মামলা চলমান রয়েছে। সিলেটের অপরাধজগতের পরিচিত নাম ডালিম মিয়া। শুধু তাই নয়, ডালিমের স্ত্রী আনু বেগমও একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী এবং একাধিক মাদক মামলার আসামি।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ৭ নভেম্বর নগরীর কাস্টঘরের একটি বাসার ছাঁদে ছাদে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় লক্ষীপুর জেলার দত্তপাড়া গ্রামের ইসমাইল আলীর পুত্র সেলিম মিয়া (৩০) কে। একই দিন সন্ধ্যা ৭ টায় অজ্ঞাতনামা হিসেবে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। পরবর্তীতে নিহতের পিতা বাদি হয়ে গ্রেপ্তারকৃত ডালিম (১ নম্বর আসামি) এবং রাজীব (৫ নম্বর আসামি) সহ মোট ৬ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরো ২/৩ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ প্রসঙ্গে এএসপি আনোয়ার হোসেন শামীম জানান, এ চাঞ্চল্যকর ও আলোচিত খুনের ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত খুনিদেরকে গ্রেপ্তার করতে গোয়েন্দা তৎপরতা শুরু করি আমরা। তাদের বিভিন্ন অবস্থানস্থলে নজরদারি চালানোর পর অবশেষে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হলো। গ্রেপ্তারকৃত আসামি ডালিম ও রাজীব হোসেনকে সিলেট কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

নিহত সেলিমের বাবা ইসমাইল আলী র‌্যাবকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ছেলেকে তো আর ফেরত পাব না। এখন খুনি যেন উপযুক্ত শাস্তি পায়। খুনি যেন আর কোনদিন কোন বাবা মায়ের বুক খালি করার সাহস না পায়, এটাই আমাদের একমাত্র চাওয়া।