পছন্দের প্রতীকে ভোট দিতে পারেনি ভোটাররা, উপস্থিতি কম

নিউজ ডেস্ক: অনিয়ম ও কম ভোটারের উপস্থিতিতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইভিএমে ভোট কারচুপি হয় না সত্য। কিন্তু ভোট কেন্দ্র যদি একটি বিশেষ দলের এজেন্টদের হাতে চলে যায় তবে ভোট সুষ্ঠু হয় না। পুরান ঢাকার ভোট কেন্দ্রে তেমনই দেখা গেছে। বানিয়ানগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রে এর সত্যতা পাওয়া যায়। ৪৪ নং ওয়ার্ডে নারী ও পুরুষদের আলাদা ভোট কেন্দ্র ছিল। নারীদের কসমোপলিটন ভোট কেন্দ্র আর পুরুষদের বানিয়ানগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারী ভোটার বলেন, তাকে কীভাবে ভোট দিতে হবে বলে সরকার দলের একজন এজেন্ট তাদের পছন্দের প্রতীকে ভোট দিয়ে কনফার্ম সুইচ টিপতে বলেন। আরেকজন পেশায় সাংবাদিক তিনি নিজে বানিয়ানগর কেন্দ্রে ভোট দিতে গিয়ে দেখেন একজন ফ্রেঞ্চ কাট দাড়িওয়ালা ছেলে ইভিএমের বক্সের সামনে দাড়িয়ে আছে। সে নিজেই প্রত্যেকের ভোট দিয়ে দিচ্ছে। সে কেন এখানে দাড়িয়ে আছে জানতে চাইলে নীরব থাকে। নৌকা-রেডিও ও বই প্রতীকে সে ভোট গুলো দিচ্ছে।

বিএনপি অভিযোগ করছে তাদের এজেন্টকে বের করে দিচ্ছে। বাস্তবে বিএনপির কোনো এজেন্টকেই সেখানে দেখা যায়নি। মূলত বিএনপির কর্মীরাই আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক গলায় ঝুলিয়ে পুরান ঢাকার বিভিন্ন কেন্দ্রে অবস্থান করছে। এমনটাই দেখা গেছে পুরান ঢাকার বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে। পুরান ঢাকার গলিতে অবস্থিত কেন্দ্র গুলোতে গণমাধ্যমকেও দেখা যায়নি। কয়েকটি দৈনিক ও টিভি মিডিয়ার লোকজনকে বাংলাবাজার স্কুল, কবি নজরুল কলেজে উপস্থিত থাকতে দেখা গেছে।