গণতন্ত্র সূচকে ১০ ধাপ পিছিয়েছে ভারত

নিউজ ডেস্ক:     গণতন্ত্র সূচকে ১০ ধাপ পিছিয়েছে ভারত। ২০১৮ সালে ৪১তম অবস্থানে থাকলেও ২০১৯ সালে দেশটি নেমে এসেছে ৫১তম অবস্থানে। গতকাল বুধবার বিশ্বের ১৬৫টি দেশ ও দুটি ভূখণ্ডে গণতন্ত্র পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে সূচকটি প্রকাশ করেছেন ব্রিটিশ সাময়িকী দি ইকোনমিস্টের সহযোগী প্রতিষ্ঠান দি ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট।

নির্বাচন প্রক্রিয়া, বহুত্ববাদ, সরকারের কাজের পদ্ধতি, রাজনৈতিক সংস্কৃতি ও নাগরিক অধিকারের বিষয়গুলো বিবেচনা করে ১০ এর মধ্যে নম্বর দেওয়া হয় এই ডেমোক্র্যাসি ইনডেক্সে।

ভারত ২০১৮ সালে পেয়েছিল ৭ দশমকি ২৩ আর ২০১৯ সালে পেয়েছে ৬ দশমিক ৯০। তালিকায় বলা হয়েছে,২০১৯ সালে এশিয়ার গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে অনেক উথালপাথাল হয়েছে। সবচেয়ে বেশি পরিবর্তন এসেছে তাইল্যান্ডে। ২০১৮ সালে তার স্কোর ছিল ১ দশমিক ৬৯। ২০১৯ সালে হয়েছে ৬ দশমিক ৩২। গণতান্ত্রিক দেশগুলোর তালিকায় দেশটি উঠে এসেছে ৩৮ নম্বরে। ‌

গত বছর ভারতের গণতান্ত্রিক পরিবেশ এবং নাগরিক অধিকার সংক্রান্ত কয়েকটি বিষয় সমালোচিত হয়েছে। এর মধ্যে সংবিধানের ৩৭০ ধারা ও ৩৫–এ ধারা লোপ করে ভারতের সংসদে জম্মু–কাশ্মীর পুনর্গঠন আইন পাশ করানো হয়। এ ছাড়াও নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করে ভারতের মুসলিমদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করার মতো বিষয়গুলো সংযোজন করা হয়। যার জেরে মোদি সরকারকে ‘হিন্দুত্ববাদী সরকার’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়।

২০০৬ সাল থেকে লন্ডনের ইকোনমিস্ট গ্রুপ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতির পর্যালোচনা করে প্রতি বছর এই আন্তর্জাতিক তালিকা প্রকাশ করে আসছে।