আজ থেকে মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা

নিউজ ডেস্ক:”শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে রবীন্দ্রনাথের মতো দৃপ্ত পায়ে হেঁটে/অতঃপর কবি এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়ালেন/তখন পলকে দারুণ ঝলকে তরীতে উঠিল জল,/হৃদয়ে লাগিল দোলা,/জনসমুদ্রে জাগিল জোয়ার সকল দুয়ার খোলা-/কে রোধে তাঁহার বজ্রকণ্ঠ বাণী?/গণসূর্যের মঞ্চ কাঁপিয়ে কবি শুনালেন তাঁর অমর কবিতাখানি/এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম/সেই থেকে ‘স্বাধীনতা’ শব্দটি আমাদের।”

যার জন্য ‘স্বাধীনতা’ শব্দটি হয়ে উঠেছে বাঙালির ও বাংলাদেশের সবার, রাজনীতির সেই মহাকবি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা শুরু হচ্ছে আজ শুক্রবার ১০ জানুয়ারি। যার নেতৃত্বে, যার সংগ্রামে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম, সেই বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পা রেখেছিলেন আজকের এই দিনে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডনে যান বঙ্গবন্ধু। সেখান থেকে ভারতে স্বল্প সময়ের যাত্রাবিরতি দিয়ে ১০ জানুয়ারি দুপুরে তিনি তৎকালীন তেজগাঁও বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।

আগামী ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ঘোষিত ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপনে নানা প্রস্তুতি চলছে সারাদেশে। আর জাতির পিতার দেশে ফেরার ঐতিহাসিক ঘটনাকে আরও স্মরণীয় করতে তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আজ ১০ জানুয়ারি শুক্রবার থেকেই শুরু হচ্ছে সারাদেশে মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা (কাউন্টডাউন)।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন জাতীয় জীবনে এক গৌরবময় অধ্যায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল মানুষের কল্যাণের জন্য- মুক্তির জন্য। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল সংগঠন জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন সফল করে তুলবে।

এ বছরের ১৭ মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সরকার ২০২০-২১ সালকে ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে উদযাপনের ঘোষণা দিয়েছে। ১৭ মার্চ বর্ণাঢ্য উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে সারাদেশে শুরু হবে বছরব্যাপী এ উদযাপন। এ ছাড়া গত বছরের ২৫ নভেম্বর ইউনেস্কো বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথভাবে এ কার্যক্রম উদযাপনের ঘোষণা দিয়েছে। ওইদিন প্যারিসে ইউনেস্কো সদর দপ্তরে সংস্থাটির ৪০তম সাধারণ অধিবেশনে সর্বসম্মতভাবে ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ফলে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন আন্তর্জাতিক মাত্রা পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কেন্দ্রীয়ভাবে আজ শুক্রবার বিকেল ৩টায় রাজধানীর তেজগাঁওয়ে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে (তেজগাঁও পুরাতন বিমানবন্দর) জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের ক্ষণগণনা কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। সেখানে বর্ণাঢ্য আয়োজনও থাকছে। জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে প্রতীকী বিমান অবতরণের মধ্য দিয়ে জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আবহ সৃষ্টি করে জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা শুরু হবে।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পরপর দেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা ও সব জনসমাগমের জায়গাগুলোতেও একই সঙ্গে ক্ষণগণনা শুরু হবে। এদিন সারাদেশের ১২টি সিটি করপোরেশনের ২৮টি পয়েন্ট, বিভাগীয় আট শহর এবং ৫৩টি জেলা সদর ও দুই উপজেলা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর মোট ৮৩টি পয়েন্টে ক্ষণগণনা (কাউন্টডাউন) ঘড়ি বসানো হবে। এসব ঘড়িতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা হবে। একই সঙ্গে ডিসপ্লেতে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর ভিডিও প্রদর্শিত হবে। কিউআর কোডের মাধ্যমে যে কেউ চাইলেই জন্মশতবার্ষিকীর ওয়েবসাইটের সঙ্গে যুক্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু ও জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজনের নানা তথ্য জানতে পারবেন। জানাতে পারবেন বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে অনুভূতি।

জাতির পিতার শততম এ বার্ষিকী স্মরণীয় করে রাখতে সরকারের পাশাপাশি দলীয়ভাবেও কর্মসূচি নিয়েছে আওয়ামী লীগ। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ১০ জানুয়ারিতে আতশবাজি উৎসবের মাধ্যমে ক্ষণগণনা শুরু করবে এ দেশ।

দেশ-বিদেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী, বঙ্গবন্ধুর নামে আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রবর্তন, ‘গ্রিন ফ্যাক্টরি অ্যাওয়ার্ড’ এবং হাতে হাত রেখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের প্রতিকৃতি গড়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড হিসেবে অন্তর্ভুক্তকরণ। এ ছাড়া কনসার্টসহ নানা আনন্দ আয়োজন ও রক্তদানসহ সেবাধর্মী কর্মসূচিও থাকবে।

বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১০২ সদস্যের জাতীয় উদযাপন কমিটি গঠন করা হয়েছে। একই সঙ্গে জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে ৬২ সদস্যের পৃথক জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটিও গঠন করা হয়েছে। সংসদের স্পিকার, প্রধান বিচারপতি, সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা, আওয়ামী লীগের গত সরকারের ১০ মন্ত্রী, বর্তমান সরকারের মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের মেয়র, তিন বাহিনীর প্রধান, পুলিশ মহাপরিদর্শক, কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, দু’জন সাবেক গভর্নর, বিভিন্ন ধর্মের মানুষের প্রতিনিধি এবং বেশ কয়েকজন সাংবাদিক, শিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এই কমিটির সদস্য হিসেবে রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীকে জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে। বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্বেও রয়েছেন তিনি।

ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী জানান, জাতির পিতার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের দিন ১০ জানুয়ারিকেই তার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনা শুরুর দিন হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে। যার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ক্ষণগণনার জন্য বিভাগীয় শহর, জেলা, সিটি করপোরেশন এবং উপজেলার বিভিন্ন জনসমাগমের জায়গায় এ ডিভাইস বসানো হবে। জন্মবার্ষিকী উদযাপনে জনগণ বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম উপস্থাপন এবং ত্বরান্বিত উন্নয়ন কার্যক্রম এবং ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত ‘সোনার বাংলা’ নির্মাণের জন্য পরিষেবাগুলো তুলে ধরা হবে বলেও জানান জাতীয় উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব।

জাহিদ/ঢাকানিউজ২৪ডটকম।