জালিয়াতির মাধ্যমে ৩শ কোটি টাকা আত্মসাৎ

নিউজ ডেস্ক:    এরশাদ ব্রাদার্স করপোরেশনের নামে জালিয়াতির মাধ্যমে পাঁচ ব্যাংক থেকে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাতের ঘটনায় ছয় ব্যাংক কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার দুদকের পরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা শেখ মো. ফানাফিল্যার নেতৃত্বে একটি টিম দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এই ছয় ব্যাংক কর্মকর্তা হলেন, সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিও মো. রফিকুল ইসলাম, সাবেক উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. দিলওয়া হোসেন ভূঁইয়া, সাবেক এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. গোলাম নবী, সাবেক এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট হারুন অর রশীদ, সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট এ এস এম হোজাইফা নোমান, সাবেক এফএভিপি নাজিম উদ্দিন মো. তারেক।

দুদক সূত্র জানায়, একসময় রাজশাহীতে রিকশাচালক হিসেবে জীবন নির্বাহ করতেন জনৈক এরশাদ আলী। এরপর তিনি বালুর ব্যবসা শুরু করেন। ২০১৫ সালে তিনি কয়েকজন ব্যাংক কর্মকর্তার সঙ্গে জড়িত হয়ে ‘এরশাদ ব্রাদার্স করপোরেশন’ নামক একটি প্রতিষ্ঠান তার নামে সৃষ্টি করেন। ২০১৬ সালে থেকে তিনি এরশাদ ব্রাদার্স করপোরেশনের কাগজপত্র ব্যবহার করে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে বেসরকারি চারটি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাত্ করে চক্রটি। এর মধ্যে ২০১০-২০১৬ সালের মধ্যে এবি ব্যাংকের ইসলামী ব্যাংকিং শাখা থেকে ১৩৯ কোটি টাকা, সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার ব্যাংক থেকে ৮৩ কোটি ২৯ লাখ ৩৮ হাজার টাকা, ব্র্যাক ব্যাংক থেকে ১৫ কোটি ৫ লাখ ২৭ হাজার টাকা, সাউথইস্ট ব্যাংক থেকে ৫ কোটি ৮৯ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং ফনিক্স ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের ২৯ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে আত্মসাৎ করেছে।

দুদক টিম ৩০০ কোটি টাকা আত্মসাতের বিষয়ে কয়েক জন ব্যাংক কর্মকর্তার জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে।