রেলখাতে উন্নয়ন তাল মিলিয়ে হয়নি

সুমন দত্ত: দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশে রেলপথ উন্নয়নে কোনো কাজ হয়নি। যা হয়েছে তা এই সরকারের আমলে। পাকিস্তান আমলে রেলে কর্মচারী সংখ্যা ছিল ৭০ হাজার। আজ রেলে কর্মচারী সংখ্যা ২৭ হাজারের মতো। এতেই বোঝা যায় রেল খাত কতটা অবহেলিত। সবাই সড়ক পথকেই গুরুত্ব দিয়েছে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে নর্থ বেঙ্গল জার্নালিস্ট ফোরামের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এসব কথা বলেন রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। এসময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন নর্থ বেঙ্গল জার্নালিস্ট ফোরামের নব গঠিত কমিটি ২০২০-২০২১ সালের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সদস্যরা। এছাড়া অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন দৈনিক নয়া দিগন্তের সম্পাদক মো. আলমগীর মহিউদ্দিন,মোদাব্বের হোসেন প্রমুখ।

মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, আপনাদের এই অনুষ্ঠানে আসতে পেরে আমি খুব আনন্দিত। আপনাদের উত্তর বঙ্গে রেল নেটওয়ার্ক গড়ে উঠুক এটা আমিও চাই। সরকার সে লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। দেশ স্বাধীনের পর কোনো সরকারই রেল যোগাযোগে গুরুত্ব দেয়নি। বিএনপি আমলে রেলের লোকজনকে গোন্ডেন হ্যান্ডশ্যাক করে বিদায় দিয়েছে। বর্তমান সরকার রেল খাতকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেয়া হয়েছে । ১৯৮৬ সালের পর থেকে রেলে কোনো নিয়োগ হয়নি। এখানে জনবল বাড়াতে হবে। রেলের জন্য যেসব প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে সেগুলো বাস্তবায়ন হলে দেশে রেল যোগাযোগ উন্নত হবে।

এছাড়া অনুষ্ঠানে আগত বক্তারা উত্তর বঙ্গে কয়েকটি জেলায় গ্যাসের সংযোগ নেই বলে জানান। অবিলম্বে সেখানে গ্যাসের সংযোগ দেবার দাবি জানান তারা। সেখানে রেল যোগাযোগও তেমন ভালো করে গড়ে উঠেনি। উত্তরবঙ্গে উন্নয়ন হয়নি। গরীব লোকের সংখ্যা দিনকে দিন বাড়ছে। সাংবাদিকদের উত্তর বঙ্গের উন্নয়নের জন্য কলম ধরার তাগিদ দেন তারা।

ঢাকানিউজ২৪ডটকম