হজ কোটা বাড়াতে সৌদিকে অনুরোধ করবে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক:   বাংলাদেশ-সৌদি আরব ২০২০ সালের হজ চুক্তি আগামীকাল বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তির জন্য ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে বাংলাদেশের পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল সৌদি আরবে পৌঁছেছে। এবারের হজ চুক্তিতে সৌদি আরবকে কোটা বাড়ানোর অনুরোধ করবে বাংলাদেশ, এমনটি জানা গেছে।

আগামীকাল সৌদি আরবের জেদ্দায় ২০২০ সালের বাংলাদেশ-সৌদি আরবের মাঝে হজ চুক্তি অনুষ্ঠিত হবে। সৌদি আরবের পক্ষে নেতৃত্ব দেবেন দেশটির হজ ও উমরা বিষয়ক মন্ত্রী ড. মোহাম্মদ সালেহ বিন তাহের বেনতেন।

সূত্রে জানা গেছে, এবারের হজ চুক্তিতে বাংলাদেশ আরও বিশ হাজার হজ কোটা বাড়ানোর অনুরোধ করবে। সেই সঙ্গে ৫০ শতাংশ হারে হজযাত্রীদের জেদ্দা এবং মদিনায় ফ্লাইট পরিচালনা, বাংলাদেশি হজযাত্রীদের সৌদি আরব অংশের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করার প্রস্তাব করা হবে। এ ছাড়া চুক্তিতে মাশায়েরে মোকাদ্দাসায় হজযাত্রীদের সেবার মান আরও উন্নত করার প্রস্তাব দেওয়া হবে।

এর আগে হজ চুক্তি উপলক্ষে গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে সৌদি আরবের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দল।

সৌদি আরব পৌঁছে প্রতিনিধি দল মক্কায় পবিত্র উমরা পালন শেষে বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করবে। এরপর হজ চুক্তি সম্পন্ন করে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ৭ ডিসেম্বর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ, জেদ্দা বাংলাদেশ কনস্যুলেটের নবনিযুক্ত কনসাল জেনারেল ফয়সাল আহমেদ, হজ কাউন্সিলর মো. মাকসুদুর রহমান প্রতিনিধি দলের সঙ্গে যুক্ত হবেন।

উল্লেখ্য, মুসলিম জনসংখ্যার ভিত্তিতে বিভিন্ন দেশের অনুকূলে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ হজ কোটা বরাদ্দ দেয়। গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশ থেকে সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজপালনের সুযোগ পেয়ে আসছেন।

দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের অনুকূলে হজ কোটা বাড়ানোর জন্য সৌদি আরবের প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে।

ধারণা করা হচ্ছে, এবার পাঁচ হাজার জনের কোটা বাড়াতে পারে সৌদি আরব। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২০২০ সালে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে ১ আগস্ট। বাংলাদেশ থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে ২৫ জুন।